১৪ দিনে ১৩ বার বাড়ল জ্বালানির দাম, কলকাতায় পেট্রল ১১৪ টাকা পার, ডিজেল সেঞ্চুরি ছুঁইছুঁই

পেট্রোপণ্যে কর কমানো নিয়ে কেন্দ্র-রাজ্য দায় ঠেলাঠেলি অব্যাহত।

Petrol Diesel Price in Kolkata Today
ফের জ্বালানির দাম বাড়ার আশঙ্কা। এক্সপ্রেস ফটো- শশী ঘোষ

জ্বালানির ছ্যাঁকা অব্যাহত। মঙ্গলবার ফের বাড়ল পেট্রল-ডিজেলের দাম। গত দুসপ্তাহে ১৩ বার বাড়ল দাম। এবার রাজ্যে আরও মহার্ঘ জ্বালানি। মঙ্গলবার সকাল ছটার পর থেকে বাদ বাড়ল পেট্রল-ডিজেলের। আজ, মঙ্গলবার কলকাতায় লিটার প্রতি ৮৩ পয়সা করে বাড়ল পেট্রল এভং ৮০ পয়সা করে বাড়ল ডিজেলের দাম।

কলকাতায় এখন পেট্রল প্রতি লিটার ১১৪ টাকা ২৮ পয়সা। ডিজেল লিটার প্রতি ৯৯ টাকা ২ পয়সা। লাগাতার জ্বালানির মূল্যবৃদ্ধির জেরে সাধারণ মানুষের নাভিশ্বাস ওঠার জোগাড়। তার মধ্যে পেট্রোপণ্যে কর কমানো নিয়ে কেন্দ্র-রাজ্য দায় ঠেলাঠেলি অব্যাহত। মধ্যবিত্তের সুরাহা হওয়ার কোনও লক্ষণ নেই।

উল্লেখ্য, রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধের জন্য আন্তর্জাতিক বাজারে অপরিশোধিত তেলের দাম আকাশছোঁয়া হয়েছে। যার প্রভাব পড়েছে ভারতেও। স্বভাবতই দাম বেড়েছে জ্বালানির। কিন্তু গত ২৪ ফেব্রুয়ারি ইউক্রেনে রাশিয়া হামলা করার পর বেশ কিছুদিন কিন্তু ভারতে পেট্রোপণ্যের দাম বাড়েনি। পাঁচ রাজ্যে ভোটের ফল বেরোনোর ১২ দিনের মাথায় বাড়তে শুরু করে জ্বালানির দাম।

গত ১০ মার্চ ছিল ভোটগণনা। জ্বালানির দাম বাড়তে শুরু করেছে ২১ মার্চ থেকে। তার পর থেকে বেড়েই চলেছে পেট্রল-ডিজেলের দাম। জ্বালানির মূল্যবৃদ্ধি ইস্যুতে কেন্দ্রকে আক্রমণ করেছে বিরোধীরা। যদিও বিজেপির দাবি, উত্তরপ্রদেশ, হরিয়ানা, মধ্যপ্রদেশ-সহ বিজেপি শাসিত রাজ্যগুলির সরকার পেট্রোপণের উপর কর কমিয়েছে। কিন্তু পশ্চিমবঙ্গ-সহ অবিজেপি রাজ্যগুলি কর কমাচ্ছে না। যার ফলে সাধারণ মানুষকে বেশি দাম দিয়ে জ্বালানি কিনতে হচ্ছে।

এদিকে, সোমবারও সংসদে জ্বালানির আঁচে উত্তপ্ত হয়েছে পরিস্থিতি। বিরোধীরা একযোগে কেন্দ্রকে আক্রমণ করেছে মূল্যবৃদ্ধি নিয়ে। তাদের দাবি, পাঁচ রাজ্যে ভোটের জন্য ১৩৭ দিন দাম বাড়েনি। যখন আন্তর্জাতিক বাজারে অপরিশোধিত তেলের দাম কম তখন কেন সরকার জ্বালানির দাম বাড়াচ্ছে, প্রশ্ন বিরোধীদের।

Stay updated with the latest news headlines and all the latest Business news download Indian Express Bengali App.

Web Title: Petrol diesel price in kolkata today

Next Story
DA বৃদ্ধির ঘোষণা, কেন্দ্রের সিদ্ধান্তে মুখে হাসি কেন্দ্রীয় সরকারি কর্মচারীদের