বড় খবর

মেধাতালিকা নিয়ে ধোঁয়াশা, ফের উত্তপ্ত প্রেসিডেন্সি চত্বর

স্নাতক স্তরের প্রবেশিকার ফল প্রকাশ হলেও প্রকাশিত হয়নি মেধাতালিকা। যার ফলে কে কোন র‌্যাঙ্ক পেয়েছেন তা নিয়ে বিভ্রান্তির সৃষ্টি হয়েছে পরীক্ষার্থীদের মধ্যে।

প্রেসিডেন্সিতে আন্দোলনরত ছাত্রছাত্রীরা

ফের একবার আন্দোলনে সরব হয়েছেন প্রেসিডেন্সি বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রছাত্রীরা। কাউন্সেলিং ফি কমানো এবং স্বচ্ছ মেধাতালিকা প্রকাশের দাবিতে সোমবার ছাত্র আন্দোলন শুরু হয় বিশ্ববিদ্যালয় চত্বরে। ডিনের ঘরের সামনে অবস্থান বিক্ষোভে বসে স্টুডেন্ট ফেডারেশন অফ ইন্ডিয়া (এসএফআই)। গত বছর থেকে একই দাবি নিয়ে আন্দোলন চললেও কোনো সুরাহা হয়নি বলে দাবি তাদের।

স্নাতক স্তরের প্রবেশিকার ফল প্রকাশ হলেও প্রকাশিত হয়নি মেধাতালিকা। যার ফলে কে কোন র‌্যাঙ্ক পেয়েছেন তা নিয়ে বিভ্রান্তির সৃষ্টি হয়েছে পরীক্ষার্থীদের মধ্যে। প্রেসিডেন্সি বিশ্ববিদ্যালয়ের পড়ুয়ারা জানিয়েছেন, শুধু নিজেদের নম্বর দেখতে পাচ্ছেন প্রার্থীরা, কিন্তু অন্যেরা কে কত নম্বর পেয়েছেন, বা নিজের অবস্থান কী, তা জানতে পারছেন না কেউ। নিজের র‌্যাঙ্ক ভালো না হলে অন্য কোথাও ভর্তি হওয়ার ভাবনাচিন্তাও করতে পারছেন না তাঁরা। এত কিছু না জেনেই মোটা অঙ্কের টাকা দিয়ে কাউন্সেলিংএ বসতে হচ্ছে।

২০১৭ সাল অবধি কাউন্সেলিং ফি ছিল ১০০ টাকা। সেটি এক ধাক্কায় ৫০০ টাকা করে দেওয়া হয়েছে। যা মানতে নারাজ বিশ্ববিদ্যালয়ের পড়ুয়ারা।

প্রেসিডেন্সির আন্দোলনরত পড়ুয়া শুভজিৎ সরকার বলেন, “ডিন অফ সায়েন্স ডাঃ অরবিন্দ রায় মৌখিকভাবে জানিয়েছেন, কালকের (মঙ্গলবারের) মধ্যেই মেধাতালিকা বের করা হবে, তবে যতক্ষণ এই কাউন্সেলিং ফি না কমানো হয় ততক্ষণ চলবে বিক্ষোভ।”

উল্লেখ্য, গত বছর প্রবেশিকার ফলাফল প্রকাশ পাওয়ার পর মেধাতালিকা বের করেনি প্রেসিডেন্সির প্রবেশিকা পরীক্ষার দায়িত্বে থাকা রাজ্য জয়েন্ট এন্ট্রান্স বোর্ড। তখনও আন্দোলনে নেমেছিলেন বিশ্ববিদ্যালয়ের পড়ুয়ারা। আন্দোলনের জেরে সেবার মেধাতালিকা প্রকাশ করা হয়। কিন্তু এবছর ফের মেধাতালিকা প্রকাশ করা হয়নি, পাশাপাশি গত বছরের কাউন্সেলিং ফি-তে কোনও বদল হয়নি। তাই এবছরও সেই একই দাবিতে ফের আন্দোলনে বিশ্ববিদ্যালয়ের পড়ুয়ারা।

Web Title: Presidency university student demand transparency in merit list and reduced counselling fee

Next Story
বিনামূল্যে দেখতে পারবেন মাধ্যমিকের খাতা
The moderation of comments is automated and not cleared manually by bengali.indianexpress.com