চুল টেনে বেধড়ক মার অঙ্কুশকে! ‘বন্ধু’ মিমির দাবি, ‘খুব দরকার ছিল…’

মার খাচ্ছেন বন্ধু, এদিকে হাসছেন মিমি?

mimi chakraborty, ankush hazra, mimi ankush, tolly news
অঙ্কুশ-মিমি

১৩ বছরের একটা সম্পর্ক, এত সহজে টিকেছে নাকি? এর জন্য কিছু তো স্পেশাল টিপস রয়েছেই। প্রেমের সম্পর্কে কত কিছুই না হয়। কিন্তু তাই বলে এভাবে মারধর? অঙ্কুশের অবস্থা দেখে চোখ কপালে দর্শকদের। কিন্তু ভীষণ খুশি তারকা বন্ধুরা।

সামনেই রিলিজ নতুন ছবি ‘লাভ ম্যারেজের’। ঐন্দ্রিলার সঙ্গে জুটি বেঁধেছেন এই ছবিতেও। প্রেম করছেন , তবে বিয়ে করছেন না কেন? এই প্রশ্নই বারবার শুনে এসেছেন তারা। এবছর আদৌ বিয়ে করবেন কিনা সেই নিয়েও নানান গুজব রয়েছে। এতবছর যখন সম্পর্ক টিকিয়েছেন তখন কিছু বিশেষ কী রয়েছে? এই প্রসঙ্গে টিপস দিতে বসেই ঐন্দ্রিলা বলেন…”লাভ ম্যারেজ টেকাতে তিনটে বিষয় খুব দরকার”। আর সেগুলো কী কী? অভিনেত্রী জবাব দেন…

“প্রথম, পার্টনারকে খুব বিশ্বাস করতে হবে। দ্বিতীয়, তাকে কিছু বলার সুযোগ দিতে হবে। একথা শুনেই অঙ্কুশ বলেন, তিন নম্বরটা আমি বলি?” আর কে পায়? অঙ্কুশের দুঃসাহস দেখেই ঐন্দ্রিলা শুধু মুখে নয়, চুল টেনে ঝাঁকিয়ে একরকম মেরে ধরে একসার! তাঁর সঙ্গে চিৎকার করে বলতে থাকেন, “সবেতে ঢুকতে হবে না? বলতে বলেছি আমি?” এরপর? সমস্ত ঘটনা ঠাওর করতে না পেরেই অবাক অঙ্কুশ! তাঁকে কিনা এভাবে মারধর? কিন্তু পরবর্তীতেই ঐন্দ্রিলা বলে বসেন, “সম্মান করাও কিন্তু খুব দরকার। নাহলে মুশকিল”।

অঙ্কুশের অবস্থা দেখে অনুরাগীরা দুঃখ পেলেও একজন কিন্তু চরম খুশি। তিনি আর কেউ নন, বরং মিমি চক্রবর্তী। মিমি অঙ্কুশের বন্ধুত্ব ঠিক কেমন একথা অনেকেই জানেন। আবার মিমিকে নানানভাবে বিরক্তও করেন অঙ্কুশ। তাই তো, বন্ধুকে এভাবে মার খেতে দেখে খুব খুশি তিনি। বলেই বসলেন, “খুব দরকার ছিল ঠ্যাঙানি খাওয়ার”। আবার শুভশ্রী বলে বসলেন, “তোরা দুজনেই পাগল”। কিন্তু অঙ্কুশ? তারপর তার কী অবস্থা?

অভিনেতার মুখ দিয়ে আর কোনও কথা নেই। এমন মার খেয়ে আর সেখানে থাকার কোনও মানে আছে? বরং একলাফে পালাল সে।

Stay updated with the latest news headlines and all the latest Entertainment news download Indian Express Bengali App.

Web Title: Ankush hazra beaten up by oindrila sen mimi reacted

Next Story
এই শেষ? ‘টাইগার থ্রির’ পর আর সলমনের সঙ্গে ছবি করবেন না ক্যাটরিনা!
Exit mobile version