scorecardresearch

বড় খবর

নভেম্বরও এসেছিলেন ‘সারেগামাপা’র মঞ্চে, জেনে নিন বাপ্পিদা’র গাওয়া শেষ গান কোনটি!

জেনে নিন শেষ কবে গান কম্পোজ করেছিলেন বাপ্পিদা।

ইন্ডিয়ান আইডলের সিজন ১০-এ মঞ্চ কাঁপাচ্ছেন বাপ্পিদা

আচমকাই চলে গেলেন সংগীত পরিচালক তথা গায়ক বাপ্পি লাহিড়ি। লতা মঙ্গেশকরের পর সন্ধ্যা মুখোপাধ্যায়ের মৃত্যুর ধাক্কা এখনও কাটিয়ে উঠতে পারেনি বাঙালি। তার মাঝেই বুধবার সাত সকালে আরও এক বাঙালি তারকার মৃত্যুর খবর এল আরব সাগরের পার থেকে। মুম্বইয়ের হাসপাতালে প্রয়াত ‘ডিস্কো কিং’। বয়স হয়েছিল ৬৯ বছর। মঙ্গলবার মুম্বইয়ের জুহুর এক হাসপাতালে মৃত্যু হয় তাঁর।

আশির দশকে বলিউড মিউজিক ইন্ডাস্ট্রির দিশা বদলে গিয়েছিলেন এই বাঙালি। ‘ডিস্কো ডান্সার’, ‘হিম্মতওয়ালা’, ‘শারাবি’, ‘অ্যাডভেঞ্চার্স অফ  টারজান’, ‘ডান্স ডান্স’, ‘সত্যমেব জয়তে’, ‘কম্যান্ডো’, ‘শোলা অউর শবনম’-এর মতো একাধিক সুপারহিট ছবির সংগীতের দায়িত্বভার সামলেছেন তিনি। আমির খানের বাবা তাহির হুসেনের ‘জখমি’র সঙ্গে বলিউডের সংগীত জগতে নিজের আত্মপ্রকাশ দাপটের সঙ্গে ঘোষণা করেছিলেন এই বাঙালি সংগীত শিল্পী। ২০২০ সালে ‘বাগি ৩’ ছবির ‘ভাঙ্গাস’বাপ্পিদার কম্পোজ করা শেষ গান। ১৯৮৪ সালের ‘তোহফা’ চলচ্চিত্রের বাপ্পি লাহিড়ির কম্পোজে ‘এক আঁখ মারু তোহ’ গানের রিমিক্সড ভার্সন। এই ভার্সনটি কম্পোজ করেন তানিষ্ক বাগচী, বাপ্পি দা, দেব নেগি এবং জোনিতা গান্ধী। এর আগে ‘তোহফা’ চলচ্চিত্রের বাপ্পিদা’র সুরে মূল গানটি গেয়েছিলেন, কিশোর কুমার এবং আশা ভোঁসলে।

করোনা আক্রান্ত হয়ে গত বছর মুম্বইয়ের ব্রিচ ক্যান্ডি হাসপাতালে ভর্তি হয়েছিলেন বাপ্পি লাহিড়ি। পরে সেরে উঠলেও বেশ অসুস্থ হয়ে পড়েন। করোনার জেরে কন্ঠস্বর হারিয়েছেন বাপ্পিদা, এমন গুজবও রটেছিল। যদিও ছেলে বাপ্পা লাহিড়ি সেই সময় জানিয়েছিলেন, ‘কোভিডের পাশাপাশি বাবার ফুসফুসেরও সমস্যা দেখা দিয়েছিল। বাবাকে কথা বলতে বারণ করা হয়েছে’।

নভেম্বর মাসে ‘সারেগামাপা’ র মঞ্চে হাজির হয়েছিলেন বাপ্পি লাহিড়ি। শেষবার তিনি প্রকাশ্যে আসেন সলমন খানের ‘বিগ বস’ ১৫-র মঞ্চে। নাতি স্বস্তিকের গান ‘বাচ্চা পার্টি’র প্রচারে সেখানে পৌঁছেছিলেন বাপ্পি লাহিড়ি। তাঁর মৃত্যুতে শোকের ছায়া সংগীত জগতে।

Stay updated with the latest news headlines and all the latest Entertainment news download Indian Express Bengali App.

Web Title: Bappi lahiris last record song was bhankas from baagi