scorecardresearch

বড় খবর

শাহী-প্রতিশ্রুতিই সার! দুস্থ আদিবাসী মেয়ের ‘চিকিৎসার দায়িত্ব নেওয়া’র কথা দিলেন সায়ন্তিকা

গত নভেম্বরে বঙ্গসফরে এসে বাঁকুড়ার বিভীষণ হাঁসদার বাড়িতে পাতপেড়ে মধ্যাহ্নভোজন সেরেছিলেন অমিত শাহ। অসুস্থ মেয়ের চিকিৎসা আজও অধরা! এগিয়ে এলেন তৃণমূল প্রার্থী সায়ন্তিকা।

sayantika

একুশের পথ প্রশস্ত করতে গত নভেম্বর মাসেই বঙ্গসফরে এসে বাঁকুড়ার (Bankura) বিভীষণ হাঁসদার বাড়িতে পাতপেড়ে মধ্যাহ্নভোজন সেরেছিলেন অমিত শাহ (Amit Shah)। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী তাঁর বাড়িতে পা রাখায় একদিনের সেলিব্রিটি হয়েছিলেন বটে! কিন্তু তাতে লাভ আখেড়ে কিছুই হয়নি! আজও সেই কৃষক পরিবারের সঙ্গী দৈন্যদশা। উপরন্তু বাড়িতে অসুস্থ মেয়ের চিকিৎসার জন্য প্রয়োজন অর্থ। কিন্তু নুন আনতে পান্তা ফুরনো বিভীষণের সেই সামর্থ্য কোথায়! ভেবেছিলেন, খোদ অমিত শাহ তাঁর বাড়িতে পা রাখায় হয়তো সমস্যার একটা সুরাহা হবে। কিন্তু কোথায় কী? হতদরিদ্র হাঁসদার সামর্থ্য অনুযায়ী শাহী অভ্যর্থনায় কোনও খামতি না থাকলেও, লাভের লাভ কিছুই হয়নি। প্রতিশ্রুতিই সার! শাহী-সফরের মাস খানেক পর আজও তাই অসুস্থ মেয়ের চিকিৎসা অধরাই। এবার প্রচারের ফাঁকে সেই কৃষক হাঁসদার বাড়িতেই হঠাৎ হাজির হলেন তৃণমূলের (TMC) তারকা প্রার্থী সায়ন্তিকা বন্দ্যোপাধ্যায় (Sayantika Banerjee)। কথা দিলেন যে, ভোটে (West Bengal Assembly Election 2021) জিতলে তাঁর মেয়ের চিকিৎসার সমস্ত দায়ভার তিনিই নেবেন।

কিন্তু ওই, ঘরপোড়া গরু সিঁদুরে মেঘ দেখলে ডরায়! বাঁকুড়ার চতুরডিহি গ্রামের বিভীষণ হাঁসদারও সেইরকম অবস্থা। প্রতিশ্রুতি তো আগেও পেয়েছিলেন। কিন্তু তাতে কোনও কাজ হয়নি। বিভীষণের কথায়, গত বছর ৫ নভেম্বর বাঁকুড়া সফরে এসে অমিত শাহ যখন তাঁর বাড়িতে এসে মধ্যাহ্নভোজ সেরেছিলেন, তখন হাই ব্লাড সুগারে আক্রান্ত মেয়ে রচনা হাঁসদার চিকিৎসার জন্য সাহায্য চেয়েছিলেন গেরুয়া শিবিরের কাছ থেকে। পরে অবশ্য তা নিয়ে রাজ্যের শাসকদল ও বিরোধী শিবিরের মধ্যে চাপানউতোর কম হয়নি। অভিযোগ, কখনও তৃণমূলের তরফে কলকাতায় নিয়ে গিয়ে, কখনও আবার বিজেপির (BJP) তরফে দিল্লির এইমসে রচনার চিকিৎসার ব্যবস্থা করার আশ্বাস দেওয়া হয়। কিন্তু তারপর কোনওতরফেই আর বিষয়টি এগোয়নি।

এবার কি হবে? তৃণমূলের তারকা প্রার্থী সেই আশ্বাস জুগিয়েছেন হাঁসদাকে। অমিত শাহকে বিঁধে সায়ন্তিকার মন্তব্য, “বাঙালিরা আতিথেয়তা করতে জানে। তাই যাঁরা এই বাড়িতে এসেছিলেন, তাঁরা যথাযথ আতিথেয়তা পেয়েছেন। কিন্তু এখানে এসে তাঁরা আবার চলেও গিয়েছেন। তবে আমি এই বাংলার মেয়ে। এখানেই থাকব। প্রতিশ্রুতি দিয়ে চলে যাব না।” উল্লেখ্য, উত্তপ্ত ভোটপ্রচারের ময়দানে মমতার একনিষ্ঠ সৈনিক হিসেবে সায়ন্তিকা বন্দ্যোপাধ্যায় যে পদ্ম-বাহিনীকে টেক্কা দিতে একটা মাস্টারস্ট্রোক দিলেন, তা বলাই বাহুল্য।

Stay updated with the latest news headlines and all the latest Entertainment news download Indian Express Bengali App.

Web Title: During campaign bankura tmc candidate visits bibhishan hansdas home