scorecardresearch

‘গায়ে হাওয়া লাগিয়ে বেড়াচ্ছেন!’ সমালোচনা করতেই বাড়িতে হাজির ‘বিধায়ক রাজ’ খোদ, আপ্লুত যুবক

সোশ্যাল মিডিয়ায় ব্যারাকপুরের এক যুবক রাজকে কটাক্ষ করে লিখেছিলেন, গায়ে হাওয়া লাগিয়ে ঘুরে বেড়াচ্ছেন। ৪ ঘণ্টার মধ্যেই ওই যুবককে সাড়া দেন বিধায়ক।

Raj Chakraborty, Barrackpore

প্রতিশ্রুতি দিয়ে কথা রাখার নামই রাজ চক্রবর্তী (Raj Chakraborty)। আবারও প্রমাণ করলেন ব্যারাকপুরের (Barrackpore) তারকা বিধায়ক। এলাকার জমা জল নিয়ে এক যুবক কটাক্ষ করে বলেছিলেন, “গায়ে হাওয়া লাগিয়ে ঘুরে বেড়াচ্ছেন রাজ চক্রবর্তী।” আর বিধায়ক কিনা সটান সেই সমালোচক যুবকের বাড়িতে গিয়েই হাজির! শুধু তাই নয়, অতি বিনম্রতার সঙ্গে তাঁর সঙ্গে এবং এলাকার মানুষের সঙ্গে কথাবার্তা বলে, তাঁদের অভাব-অভিযোগ শুনে নিজের উদ্যোগে কাজ শুরু করালেন। বিধায়ক রাজের এমন কাণ্ডকারখানা দেখে যেমন হতবাক এলাকাবাসী, ঠিক তেমন আপ্লুতও বটে! অনুরাগীরা বলছেন, সমালোচকদের মুখ বন্ধ করার জন্য এক্কেবারে উপযুক্ত পন্থা।

ভোটে জিতলে ময়দানে আর টিকিটিও পাওয়া যাবে না! তারকা প্রার্থীদের ক্ষেত্রে অনেকেই এমন মন্তব্য করেছিলেন। খোঁটা শুনতে হয়েছিল বিরোধী শিবিরের তরফেও। তবে মানুষের পাশে দাঁড়ানোর প্রতিশ্রুতি দিয়েও ভুলে যাননি রাজ চক্রবর্তী। কথা দিয়েছিলেন বিধায়ক হয়ে মানুষের সুখ-দুঃখের ভাগীদার হবেন। সে কথা রেখেছেন তৃণমূলের তারকা বিধায়ক। ব্যারাকপুরের উন্নয়নের কাজে ইতিমধ্যেই হাত লাগিয়েছেন। এবার যুবকের কটাক্ষ শুনে সেই এলাকাতেও ছুটলেন রাজ চক্রবর্তী।

[আরও পড়ুন: ‘বিচার-সমালোচনা না করে মানসিকভাবে বিধ্বস্ত মানুষদের পাশে থাকুন’, বার্তা মিমির ]

সোশ্যাল মিডিয়ায় ব্যারাকপুরের এক যুবক রাজকে কটাক্ষ করে লিখেছিলেন, গায়ে হাওয়া লাগিয়ে ঘুরে বেড়াচ্ছেন। ৪ ঘণ্টার মধ্যেই ওই যুবককে পাল্টা উত্তর দিয়ে বিধায়ক ঠিকানা দেওয়ার কথা বলেন। আর তার পরদিনই একেবারে সোজা গিয়ে হাজির হন সমালোচক যুবকের বাড়িতে। শুধু তাই নয়, এলাকা পরিদর্শন করে সেখানে যাতে জল আর না জমা হয়, তার কাজও শুরু করে দেন। ঘটনায় বিধায়ক রাজ চক্রবর্তীর এমন ভূমিকায় আপ্লুত ওই যুবক।

তারকা বিধায়ক এত দ্রুত পদক্ষেপ করবে বলে ভাবেননি ওই যুবক কিংবা তাঁর প্রতিবেশীদের কেউই। রাজ বলেন, বিধায়ক হওয়ার পর থেকে তিনি বসে নেই। কখনও ব্যারাকপুরের মানুষদের অতিমারী পরিষেবা দিতে কোভিড সেফ হোম, কোভিড হাসপাতালে খুলেছেন, আবার কখনও বা ব্যারাকপুরের নিকাশি ব্যবস্থা, জমা জল, ভাগাড়ের সমস্যা নিয়ে কথা বলেছেন প্রশাসনের সঙ্গে।
উল্লেখ্য, ইতিমধ্যেই ব্যারাকপুরের প্রতিটি বাড়িতে ‘ধন্যবাদ’ জানিয়ে চিঠি পাঠানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছেন বিধায়ক রাজ চক্রবর্তী। চিঠিতে দেওয়া থাকবে তাঁর ফোন নম্বরও। যাতে ব্যারাকপুরবাসী তাঁদের সমস্যার কথা সরাসরি জানাতে পারেন তাঁকে। এমন বিধায়ক পেয়ে খুশি এলাকাবাসীও।

https://platform.twitter.com/widgets.js

[আরও পড়ুন: দুস্থ বৃদ্ধার চিকিৎসার দায়ভার নিলেন দেব, সাংসদের মানবিকতায় মুগ্ধ অনুরাগীরা ]

ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস বাংলা এখন টেলিগ্রামে, পড়তে থাকুন

Stay updated with the latest news headlines and all the latest Entertainment news download Indian Express Bengali App.

Web Title: Raj chakraborty met the man who trolled him