scorecardresearch

লকডাউনে রবীন্দ্রজয়ন্তী, দেশ-বিদেশের শিল্পীদের নিয়ে সুজয়প্রসাদের অনন্য কবিপ্রণাম

দেশ-বিদেশের প্রায় ৩৩ জন ছেলেমেয়ের কণ্ঠে উঠে এল কবিগুরুর ভারততীর্থ। আমেরিকা, ইংল্যান্ড, কানাডা, অস্ট্রেলিয়া-সহ কলকাতার ছাত্র-ছাত্রীরা পালন করলেন রবীন্দ্রনাথের ১৫৯ তম জন্মবার্ষিকী।

লকডাউনে রবীন্দ্রজয়ন্তী, দেশ-বিদেশের শিল্পীদের নিয়ে সুজয়প্রসাদের অনন্য কবিপ্রণাম

এবারের রবীন্দ্রজয়ন্তী অন্য বছরগুলোর তুলনায় বেশ খানিকটা আলাদা। করোনা হানায় ম্রিয়মান সাধারণ জীবন। কিন্তু তাই বলে রবীন্দ্রজয়ন্তী পালন হবে না! গৃহবন্দি অবস্থাতেই অনলাইনে কবিগুরুকে শ্রদ্ধা জ্ঞাপন করছে বাঙালি। বাচিকশিল্পী সুজয়প্রসাদ চট্টোপাধ্যায় ও তাঁর ছাত্র-ছাত্রীরা রবীন্দ্রজয়ন্তী উদযাপনে অনন্য উপায় বাছলেন।

এই উদ্যোগে শামিল হয়েছেন ঋতুপর্ণা সেনগুপ্তও। দেশ-বিদেশের প্রায় ৩৩ জন ছেলেমেয়ের কণ্ঠে উঠে এল কবিগুরুর ভারততীর্থ। আমেরিকা, ইংল্যান্ড, কানাডা, অস্ট্রেলিয়া-সহ কলকাতার ছাত্র-ছাত্রীরা পালন করলেন রবীন্দ্রনাথের ১৫৯ তম জন্মবার্ষিকী।

তবে এস পি ক্রাফ্টের সহযোগীতায় তাদের এই উদ্যোগের পিছনে অন্য একটি কারণও রয়েছে। করোনা ভাইরাসে বিরুদ্ধে মানুষের অসম লড়াইকে কুর্নিশ জানাচ্ছেন তাঁরা। সুজয়প্রসাদের কথায়, “ভবিষ্যৎ অনিশ্চিত। এই অন্ধকার সময় দূর হোক। কবিতা হয়ে উঠুক প্রার্থনা। তাই এই বিশেষ উদ্যোগ। যাঁরা আবৃত্তি করেছেন তাঁরা অন্তর দিয়ে পড়েছে। ভাইজ‍্যাগে যা ঘটেছে তা আমাদের ব‍্যথিত করেছে। জানিনা, ভারত সব কলুষতা মুক্ত হয়ে আবার কবে মৃত্যুপুরীর দুয়ার থেকে ফিরবে।”

ভিডিওটি সম্পাদনা করেছেন অর্ক গোস্বামী। ঋতুপর্ণা সেনগুপ্তর মুখবন্ধের পর স্বাস্থ্যকর্মীদের প্রতি স্যালুট জানিয়ে শুরু হয়েছে এই ভিডিও। ‘হে মোর চিত্ত পুণ্যতীর্থে জাগো রে ধীরে’… র মাধ্যমেই, সেই সমস্ত যোদ্ধাদের প্রতি প্রণাম জানিয়েছেন যাঁরা COVID-19-এর সঙ্গে নীরবে মোকাবিলা করছেন আমাদের সুস্থ রাখার জন্য।

২০২০-র প্রতি বাচিক শিল্পীর কাতর অনুরোধ, ”তোমার দেনা-পাওনা এবার শেষ কর। এই তীর্থস্থানকে শ্মশান করে তুলোনা”। নেটিজেনদের মন কেড়েছে সুজয়ের এই ভাবনা

ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস বাংলা এখন টেলিগ্রামে, পড়তে থাকুন

Stay updated with the latest news headlines and all the latest Entertainment news download Indian Express Bengali App.

Web Title: Recites tagores poem bharat tirtho online sujoyprasad chatterjee tribitue to health workers