বড় খবর


জ্বালানির মূল্যবৃদ্ধির জেরে কৃষি ক্ষেত্র কতটা ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে ?

পাল্লা দিয়ে দাম বেড়েছে ডিজেলেরও। এখন এই জ্বালানির দাম কীভাবে কৃষিক্ষেত্রকে ক্ষতিগ্রস্ত তা বিশ্লেষণ করে দেখা যেতে পারে।

কৃষি আইন, আন্দোলন নিয়ে জেরবার দেশ। এরই মধ্যে বৃহস্পতিবার দেশে সেঞ্চুরি হাঁকিয়েছে পেট্রোলের দাম। পাল্লা দিয়ে দাম বেড়েছে ডিজেলেরও। এখন এই জ্বালানির দাম কীভাবে কৃষিক্ষেত্রকে ক্ষতিগ্রস্ত তা বিশ্লেষণ করে দেখা যেতে পারে। তথ্য থেকে জানা যাচ্ছে, গত বছরের তুলনায় কৃষিক্ষেত্রের ব্যয় এই মূল্যবৃদ্ধির জেরে প্রায় ২৮ শতাংশ বৃদ্ধি পেয়েছে।

কীভাবে জ্বালানীর মূল্যবৃদ্ধি কৃষি খাতে ব্যয় বৃদ্ধি করছে?

পাঞ্জাবে প্রায় ১১ লক্ষ কৃষক পরিবার রয়েছে। আর ট্রাক্টর রয়েছে ৫.২০ লক্ষ। এসএমএস-সিস্টেমের মাধ্যমে প্রায় ৩৬ থকে ৩৭ লক্ষ টন গম এবং ধান কাটার জন্য ব্যবহৃত হয় তা।
এগুলি ছাড়াও সে রাজ্যে ৭৫ হাজার খড় কাটার মেশিন রয়েছে। এক লক্ষেরও বেশি কৃষি সরঞ্জাম রয়েছে। এই সমস্ত মেশিনগুলি ডিজেল চালিত। পাঞ্জাবের প্রায় ৪২ লক্ষ হেক্টর জমিতে চাষ করতে ব্যবহৃত হয় সেই মেশিন। এগুলি ছাড়াও রাজ্যে ১.৫০ লক্ষ ডিজেলচালিত টিউবওয়েল রয়েছে।

পাঞ্জাবে কৃষিক্ষেত্রে ডিজেলের ব্যবহার কতটা হয়?

পাঞ্জাবের পেট্রোল পাম্প ডিলার্স অ্যাসোসিয়েশনের মুখপাত্র গুরমিত মন্টি শেগাল বলেছেন, “পাঞ্জাবে ডিজেলের ব্যবহার প্রায় পেট্রোলের তুলনায় ২.৫ গুণ বেশি। যার মধ্যে প্রায় ৪০ শতাংশ ডিজেল খরচ কৃষি খাতে ব্যবহার করা হয়। কারণ আমাদের রাজ্যে মোট ৩,৪০০টির মধ্যে প্রায় ২০ শতাংশ এই জাতীয় পেট্রোল পাম্প রয়েছে যা সম্পূর্ণরূপে কৃষিক্ষেত্রের উপর নির্ভরশীল”। তিনি আরও উল্লেখ করেছিলেন যে, গতকাল এপ্রিল-মে মাসে অতিমারী ছড়িয়ে পড়ার সময় অপরিশোধিত তেলের দাম ২০ ডলারে নেমে আসায় সরকার কৃষকদের লুটপাট করছে। গত অক্টোবর অবধি প্রায় ৫ মাস ধরে ব্যারেল প্রতি ৪০ মার্কিন ডলারে দাঁড়িয়েছে তবে আন্তর্জাতিক বাজারে অপরিশোধিত তেলের হার অনুযায়ী খুচরা তেলের দাম কখনই কমায়নি সরকার।

গত বছরের তুলনায় পাঞ্জাবে ডিজেল ও পেট্রোলের বর্তমান দাম কত?

বুধবারের পেট্রোল এবং ডিজেলের দাম ছিল প্রতি লিটারে ৯০.৫১ টাকা এবং ৮১.৬৪ টাকা প্রতি লিটার। গত বছর ১৮ ফেব্রুয়ারি পেট্রোল ও ডিজেলের দাম ছিল ৭১.৮৩ টাকা প্রতি লিটার এবং ৬৩.৬২ টাকা প্রতি লিটার। এই পরিসংখ্যান অনুসারে এক বছরে রাজ্যে যথাক্রমে ২৮ শতাংশ এবং ডিজেল ও পেট্রোলের দাম বেড়েছে ২৬ শতাংশ।

কেন্দ্র সরকার যখন ২০২২ সালের মধ্যে কৃষির আয় দ্বিগুণ করার ঘোষণা দিয়েছিল, তখন ডিজেলের হার কীভাবে ২০১৭ সাল থেকে বেড়েছে?

যদিও পেট্রোল এবং ডিজেলের দাম কেন্দ্র কর্তৃক নির্ধারিত হয় তবে রাজ্য সরকারগুলি সর্বদা মূল্য সংযোজন কর (ভ্যাট) কম করতে পারে। প্রতিবেশী রাজ্যের সঙ্গে দামে সামঞ্জস্যতা বজায় রাখতে এই ভ্যাটের কম বেশি হয়। ২০১৭ সালে পাঞ্জাবের ডিজেলের দাম ছিল লিটারের দাম প্রায় ৫৬ টাকা, ভ্যাটের উপর ২৮ শতাংশ ভ্যাট ১০ শতাংশ অতিরিক্ত ট্যাক্স-সহ। আর এখন তা প্রতি লিটারে ৮১.৮৩ টাকায় দাঁড়িয়েছে, প্রতি লিটারে ২৫.৬৮ টাকা বেড়েছে। অর্থাৎ গত চার বছরে ৪৫.৮ শতাংশ বেড়েছে।

এখন বিষয়টি হল চাষের ক্ষেত্রে যত মূল্যবৃদ্ধি হবে, সেই দাম পড়বে কৃষিজ পণ্যের উপরই। শেষ পর্যন্ত মূল্য চোকাতে হবে মধ্যবিত্তকেই।

ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস বাংলা এখন টেলিগ্রামে, পড়তে থাকুন

Web Title: Escalating fuel prices will hit input cost of farm operations

Next Story
সেনার হাতে ‘ঘাতক’ অর্জুন Mk-1A ট্যাঙ্ক তুলে দিলেন মোদী, জানুন এর ক্ষমতা
The moderation of comments is automated and not cleared manually by bengali.indianexpress.com