scorecardresearch

বড় খবর

Explained: সাইরাস মিস্ত্রির মৃত্যুর আসল কারণ খুঁজে পেল পুলিশ, কী সেই কারণ?

সামনের আসনের দুই আরোহী গুরুতর চোট পেলেও প্রাণে বেঁচে গিয়েছেন।

Explained: সাইরাস মিস্ত্রির মৃত্যুর আসল কারণ খুঁজে পেল পুলিশ, কী সেই কারণ?

রবিবার, ৪ সেপ্টেম্বরই মহারাষ্ট্রের পালঘরে পথদুর্ঘটনায় মৃত্যু হয়েছে টাটা সন্সের প্রাক্তন চেয়ারম্যান সাইরাস মিস্ত্রির। কী কারণে এই মৃত্যু, সময় যত এগোচ্ছে, ততই দুর্ঘটনার কারণ হিসেবে উঠে আসছে নিত্যনতুন তথ্য। তার মধ্যেই নতুন তথ্য সামনে আনলেন তদন্তকারীরা। জানা গিয়েছে, দুর্ঘটনার সময় গাড়ির পিছনের আসনে থাকা কোনও যাত্রীরই সিটবেল্ট পরা ছিল না। যাঁদের মধ্যেই ছিলেন টাটা সন্সের প্রাক্তন চেয়ারম্যান সাইরাস মিস্ত্রি। তাঁর সঙ্গেই মার্সেডিজের পিছনের আসনে ছিলেন তাঁর বন্ধু জাহাঙ্গির পানডোলে। তিনিও দুর্ঘটনায় মারা গিয়েছেন।

পালঘরে ৪৮ নম্বর জাতীয় সড়কে দুর্ঘটনাটি ঘটেছে। জাতীয় সড়ক, সেই সময় তাই গাড়ির গতিও তুঙ্গে ছিল। গাড়ির সামনে আসনে বসেছিলেন দারিয়াস পানডোলে। আর গাড়ি চালাচ্ছিলেন তাঁর স্ত্রী ডা. অনহিতা পানডোলে। গাড়ি সামনের অংশ ডিভাইডারে গিয়ে ধাক্কা মেরেছে। কিন্তু, সামনের আসনের দুই আরোহী গুরুতর চোট পেলেও প্রাণে বেঁচে গিয়েছেন। এজন্য, তাঁদের সিটবেল্ট পরে থাকাকেই কৃতিত্ব দিচ্ছেন তদন্তকারীরা।

সিটবেল্ট না-পরলে দুর্ঘটনায় মৃত্যু বা আহত হওয়া কতটা স্বাভাবিক?
এটা খুব সাধারণ ব্যাপার। এমনকী, ২০২০ সালে যখন করোনার জন্য সর্বত্র লকডাউন। রাস্তায় তেমন একটা গাড়ির দেখা নেই, সেই সময়ও দুর্ঘটনায় ৪১ জনের মৃত্যু হয়েছিল। তার মধ্যেই প্রতিদিন ২০ জন চালক আর সমসংখ্যক যাত্রীর মৃত্যু হত। এই তথ্য কোনও আষাঢ়ে গল্প নয়। এই তথ্য কেন্দ্রীয় সড়ক ও পরিবহণ মন্ত্রকের। ২০২০ সালে দেশে পথদুর্ঘটনায় ১৫,১৪৬ জনের মৃত্যু হয়েছিল। কারণ, সেই সিট বেল্ট না-পরা। এর মধ্যে ৭,৮১০ জন চালক। যাত্রী ৭,৩৩৬ জন। ওই বছর, অর্থাৎ ২০২০ সালে পথদুর্ঘটনায় মোট মৃত্যু হয়েছিল ১,৩১,৭১৪ জনের। তার আগের বছর, ২০১৯ সালে শুধুমাত্র সিটবেল্ট না-পরায় পথদুর্ঘটনায় ২০,৮৮৫ জনের মৃত্যু হয়েছিল। যা ছিল ওই বছর পথদুর্ঘটনায় মৃত্যুর সংখ্যার ১৪ শতাংশ।

আরও পড়ুন- মোদীর চাপে আত্মহত্যা করতে বাধ্য হয়েছেন সিবিআই আধিকারিক, ভয়ংকর অভিযোগ সিসোদিয়ার

যাঁরা সিটবেল্ট পরেননি, তাঁদের কী পরিণতি হয়েছে?
বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার চলতি বছরের রিপোর্ট বলছে, ‘সিটবেল্ট পরলে গাড়িচালক এবং গাড়ির প্রথম আসনে থাকা ব্যক্তির মৃত্যুর ঝুঁকি ৪৫ থেকে ৫০ শতাংশ কমে যায়। পিছনের আসনে থাকা ব্যক্তিদের মৃত্যুর সংখ্যা ২৫ শতাংশ কমে যায়।’ স্বেচ্ছাসেবী সংস্থা সেভ লাইভ ফাউন্ডেশন পুলিশের হয়ে দেশজুড়ে পথদুর্ঘটনায় মৃত্যুর কারণ খতিয়ে দেখেছে। সংস্থার তরফে পীযূষ তিওয়ারি জানান, ‘পথদুর্ঘটনায় মৃত্যুর এক তৃতীয়াংশ ঘটনারই কারণ সিটবেল্ট পরে না-থাকা।’

Read full story in English

Stay updated with the latest news headlines and all the latest Explained news download Indian Express Bengali App.

Web Title: How not wearing a seat belt killed cyrus mistry