scorecardresearch

বড় খবর

বিশ্লেষণ: কুর্দ কারা, সিরিয়ায় তাদের উপর হামলাই বা চালাচ্ছে কেন তুর্কি?

যথেষ্ট সংখ্যা, নির্দিষ্ট সংস্কৃতি এবং পরিচিতি থাকা সত্ত্বেও কুর্দিশ জনগণের কখনও কোনও স্বাধীন স্বরাট নিজ দেশ হয়নি।

বিশ্লেষণ: কুর্দ কারা, সিরিয়ায় তাদের উপর হামলাই বা চালাচ্ছে কেন তুর্কি?
এ মাসের গোড়ায় ট্রাম্প সিরিয়া থেকে বাহিনী প্রত্যাহারের সিদ্ধান্ত নেন

গত রবিবার কুর্দিশ বাহিনী দামাস্কাসের সঙ্গে চুক্তিবদ্ধ হয়েছে। দামাস্কাসের পিছনে রয়েছে এই এলাকায় আমেরিকার দুই অন্যতম প্রতিদ্বন্দ্বী মস্কো এবং তেহরান। অথচ এই কদিন আগে পর্যন্তও কুর্দিশরা ছিল ইসলামিক স্টেট এবং সিরিয়ার প্রেসিডেন্ট বাশার আল-আসাদের বিরুদ্ধে আমেরিকার মিত্র। মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প হঠাৎই সিরিয়া থেকে সেনাবাহিনী প্রত্যাহার করে নেওয়ার কারণেই এই ঘটনা ঘটেছে। এর ফলে তুর্কির প্রেসিডেন্ট এরদোগান সীমান্ত পেরিয়ে সিরিয়ায় ঢুকে পড়ে কুর্দিশদের এলাকা দখল করে নিতে পেরেছেন।

এর ফলে সিরিয়ার দীর্ঘদিনের সংঘর্ষ নতুন এক মাত্রা পেয়েছে। ২০২০ সালের ভোটে পুনর্নির্বাচিত হওয়ার আকাঙ্ক্ষায় ট্রাম্প সিরিয়া থেকে সেনা সরিয়েছেন। এতে সুবিধে হয়েছে তুর্কি, আসাদ, রাশিয়া ও ইরানের তো বটেই, এমনকি আপাত-পরাভূত কিন্তু ক্ষমতাসম্পন্ন ইসলামিক স্টেটেরও। মার্কিনরা না থাকায় ক্রেমলিন এবার কুর্দ, আসাদ এবং এরদোগানের সঙ্গে আলোচনা চালাতে পারছে।

আরও পড়ুন, বিশ্লেষণ: বিশ্ব ক্ষুধা সূচকে ভারতের অবস্থান গুরুতর, কী ভাবে মাপা হয় এই সূচক?

তুর্কিরা সিরিয়ার কুর্দদের আক্রমণ করছে কেন! কুর্দরাই বা করা, এই জটিল যুদ্ধে তারা এত গুরুত্বপূর্ণই বা কেন!

প্রাচীন সংস্কৃতি, রাষ্ট্রহারা মানুষ

কুর্দরা বিশ্বের বৃহত্তম রাষ্ট্রহীন জনজাতি। তাদের সংখ্যা ২৫ থেকে ৩৫ মিলিয়ন, যার সঙ্গে তুলনা করা যেতে পারে আসাম, ঝাড়খণ্ড, কেরালা এবং তেলেঙ্গানার জনসংখ্যার। তুলনা হতে পারে কানাডা বা অস্ট্রেলিয়ারও। এঁদের বাস দক্ষিণ ও পূর্ব তুর্কিতে, উত্তর পূর্ব সিরিয়ায়, উত্তর পশ্চিম ইরানে, দক্ষিণ আমেরিকার কিছু অংশে। এ সব দেশগুলিতেই তাঁরা সংখ্যালঘু। জর্জিয়া, কাজাকাস্তান, লেবানন এবং পূর্ব ইরানেও অল্প সংখ্যায় তাঁদের বাস।

কুর্দিশ জাতীয়তাবাদীরা দাবি করেন তাঁদের ইতিহাস ২৫০০ বছরের পুরনো। তবে তাঁদের চিহ্নিত করা হয় সপ্তম শতকের একটি নির্দিষ্ট সম্প্রদায় হিসেবে, যখন ওই এলাকার অধিকাংশ জনজাতিরাই ইসলাম ধর্মাবলম্বন করছিলেন। কুর্দিশ জনগণের একটি বড় অংশই আজ সুন্নি মুসলিম, কিন্তু তাঁদের মধ্যে সুফি সহ অন্যান্য মিস্টিক মতবাদের মানুষও রয়েছেন।

এঁদের ভাষা হল পারসি ও পাশতো, যদিও স্থানীয় ভাষায় তফাৎ রয়েছে। তুর্কির অধিকাংশ কুর্দরা কুরমানজি ভাষায় কথা বলেন, লেখার জন্য ব্যবহার করেন লাতিন হরফ। অন্যরা মূলত কুর্দিশ স্থানীয় ভাষা সোরানি ব্যবহার করেন, যার হরফ আরবী। কুর্দরা দীর্ঘকাল ধরে নির্ভীক যোদ্ধা হিসেবে পরিচিত এবং বহু শতক ধরে বিভিন্ন সেনার ভাড়াটে যোদ্ধা হিসেবে খেটে আসেন তাঁরা। মধ্যযুগের যোদ্ধা সালাদিন, যিনি মিশরে ফতিমিদসকে সরিয়ে আয়ুবিদ সাম্রাজ্য প্রতিষ্ঠা করেন এবং দ্বাদশ ও ত্রয়োদশ শতাব্দীতে মধ্যপ্রাচ্যের অধিকাংশ জায়গায় শাসনকার্য চালান, তিনি ছিলেন কুর্দিশ জনজাতির।

অধরা নিজভূমের সন্ধান

যথেষ্ট সংখ্যা, নির্দিষ্ট সংস্কৃতি এবং পরিচয় থাকা সত্ত্বেও কুর্দিশ জনগণের কখনও কোনও স্বাধীন স্বরাট নিজ দেশ হয়নি। প্রথম বিশ্বযুদ্ধের পর ভার্সেই শান্তি সম্মেলনে কুর্দিশ অটোমান কূটনীতিবিদ মেহমেট শরিফ পাশা নতুন কুর্দিস্তান সীমান্তের প্রস্তাব দেন, যাতে ছিল তুর্কি, ইরাক এবং ইরানের অংশ। কিন্তু ১৯২০ সালের সেভ্রে চুক্তিতে তাঁদের অনেক ক্ষুদ্রতর একটি এলাকা দেওয়া হয়, যার পুরোটাই এখন তুর্কির অভ্যন্তরে। তুর্কিরা মিত্রশক্তির সঙ্গে আলোচনা চালাতে থাকে এবং ১৯২৩ সালে লুজানে চুক্তিবলে সেভ্রে চুক্তিকে নাকচ হয়ে যায় এবং স্বায়ত্তশাসিত কুর্দিস্তানের ধারণার সমাপ্তি ঘটে।

পরবর্তী দশকগুলিতে কুর্দরা একটি প্রকৃত কুর্দিস্তান প্রতিষ্ঠার চেষ্টা চালাতে থাকে এবং তার জেরে তুর্কিদের ব্যাপক আক্রমণের মুখোমুখি হয়। তার মধ্যে ছিল কুর্দিশ ভাষা, নাম, গান ও পোশাকের উপর নিষেধাজ্ঞা। সাদ্দাম হুসেনের ইরাকে কেমিক্যাল আলি তাদের উপর রাসায়নিক হামলা চালায় এবং এরানে ১৯৮০ ও ১৯৯০-এ তাদের অভ্যুত্থান গুঁড়িয়ে দেওয়া হয়।

Kurd, Syria, Turkey
মধ্যপ্রাচ্যের কুর্দ এলাকা

১৯৭৮ সালে মার্ক্সবাদী বিপ্লবী আবদুল্লা ওচালান কুর্দিশ ওয়ার্কার্স পার্টি (পিকেকে) প্রতিষ্ঠা করেন। তাঁর লক্ষ্য ছিল স্বাধীন কুর্দিস্তান প্রতিষ্ঠা। পিকেকে গেরিলারা ১৯৮৪ সাল থেকে তুর্কি সেনাবাহিনীর সঙ্গে যুদ্ধ চালিয়ে যেতে থাকে। ১৯৯৯ সালে ওচালানের ধরা পড়া পর্যন্ত এই যুদ্ধ চলে। এই সময়ের মধ্যে প্রায় ৪০ হাজার অসামরিক কুর্দ মারা যান। ২০১৩ সালে পিকেকে যুদ্ধবিরতি ঘোষণা না করা পর্যন্ত বিক্ষিপ্ত সংঘর্ষের ঘটনা চলতেই থাকে। ২০১৫ সালে তুর্কি ইসলামিক স্টেটের বিরুদ্ধে যুদ্ধ শুরু করার পর তারা ইরাকের পিকেকে ঘাঁটিতে বোমা মারতে শুরু করে।

আরও পড়ুন, বিশ্লেষণ: অযোধ্যা মামলায় মোড়- কাকে বলে ওয়াকফ?

ইসলামিক স্টেট, আসাদ এবং আমেরিকা

সিরিয়া এবং ইরাক জুড়ে ইসলামিক স্টেট ছড়িয়ে পড়ার পর তাদের প্রতিরোধ করছিল কেবল সিরিয়ার কুর্দ গেরিলারা। তারা ওয়াইপিজি নামে পরিচিত। কুর্দরা অধিকাংশেরই বাস সিরিয়া-তুর্কি সীমান্তে। নিজেদের এলাকায় তারা সশস্ত্র প্রতিরোধ শুরু করে ২০১১-১২ সালে। ২০১৪ সালে আমেরিকা ডায়েশদের সঙ্গে যুদ্ধে যোগ দেওয়ার পর বুঝতে পারে ওয়াইপিজি এই এলাকায় তাদের মিত্রশক্তি। মার্কিন দৃষ্টিভঙ্গি থেকে দেখলে কুর্দরাও ইরান ও রাশিয়ার সঙ্গে সামরিক যুদ্ধে সাহায্য করছিল। এতে আমেরিকার ভবিষ্যতে যুদ্ধ শেষ করার সুবিধা মিলছিল।

এদিকে আমেরিকার সাহায্য পাওয়ার পর কুর্দরা ডায়েশদের উত্তর সিরিয়া থেকে তাড়িয়ে দেয় এবং সিরিয়া-তুর্কি সীমান্ত অঞ্চলের দখল নেয়। এই এলাকাই ছিল মূলবাসী কুর্দ, আরব ও অন্যান্য গোষ্ঠীর নিজস্ব ভূমি। ওয়াই পি জি-র সঙ্গে ঘনিষ্ঠ যোগাযোগ ছিল পিকেকে-র। এরদোগানের পক্ষে যা নিরাপত্তার ক্ষেত্রে গুরুতর হয়ে উঠছিল। আমেরিকার সমস্যা ছিল তাদের নিজেদের দুই মিত্রশক্তির মধ্যেকার পুরনো দ্বন্দ্বের ভারসাম্য রক্ষা। একদিকে তুর্কি ন্যাটোর অংশ এবং আসাদের বিরুদ্ধে মিত্রশক্তি, অন্যদিকে কুর্দরা তাদের ১১০০ যোদ্ধার জীবনের বিনিময়ে চাইছিল ইসলামিক স্টেটকে পরাজিত করতে।

ওবামা সরকারের চাপে সিরিয়ার কুর্দিশ গেরিলারা তুর্কির গেরিলাদের সঙ্গে তাদের যোগাযোগ চাপা দিতে শুরু করে, তাদের নামের বদল ঘটিয়ে পরিচিত হয় সিরিয়ান ডেমোক্র্যাটিক ফোর্স নামে। একই সঙ্গে তারা নিজেদের দলে নিতে থাকে এমন যোদ্ধাদের যারা কুর্দ নয়। আমেরিকাও তুর্কি সীমান্তে শান্তি বজায় রাখার জন্য একই সঙ্গে নিজেরা এবং তুর্কি সেনার সঙ্গে যৌথভাবে পাহারা দিতে শুরু করে।

আরও পড়ুন, বিশ্লেষণ: মহারাষ্ট্র বিজেপির নির্বাচনী ইস্তেহারে কেন সাভারকরের ভারতরত্ন প্রসঙ্গ

কিন্তু এ মাসের গোড়ায় ট্রাম্প সিরিয়া থেকে বাহিনী প্রত্যাহারের সিদ্ধান্ত নেন। ২০১৮ সালেও তিনি একথা ভেবেছিলেন, কিন্তু সে পরিকল্পনা বাস্তবায়িত হয়নি। গত ৬ অক্টোবর, তিনি এরদোগানকে এ ব্যাপারে জানান, এবং তার তিন দিন পরেই ৯ অক্টোবর তুর্কি এবং সিরিয়া তাদের মিত্র আরবরা যৌথভাবে সিরিয়ার কুর্দিশ এলাকায় হামলা চালায়।

Read the Full Story in English

Stay updated with the latest news headlines and all the latest Explained news download Indian Express Bengali App.

Web Title: Why turkey is attacking kurds in syria