বড় খবর

জিকা ভাইরাস ছড়াচ্ছে, কতটা ভয়ের কারণ এই অসুখ?

Zika Virus Explained: ১৯৫২-৫৩ সালে প্রথম এই ভাইরাসের উপস্থিতি টের পাওয়া যায় ভারতে।

Zika Virus
কেরলে অন্তত পনেরো জন জিকা ভাইরাসে সংক্রমিত।

করোনা একটু থিতিয়েছে। এবার জিকার ভয় কেরলে। কেরলে অন্তত পনেরো জন জিকা ভাইরাসে সংক্রমিত। সে রাজ্যের স্বাস্থ্যমন্ত্রী বীণা জর্জ জানিয়েছেন, এক অন্তঃসত্ত্বা জিকায় আক্রান্ত হন প্রথমে। তার‌ পর আরও ১৪ জনের জিকা ধরা পড়েছে। তবে আক্রান্তদের অবস্থা স্থিতিশীল। সব জেলা প্রশাসনকে বলা হয়েছে, মশার কামড়ে কেউ অসুস্থ হলে, সে দিকে যেন কড়া নজর রাখা হয়।

জিকা ভাইরাস কী?

জিকা হল এক ধরনের ভাইরাল ইনফেকশন। যা ছড়িয়ে দেয় মশা। এডিস ইজিপ্টাই মশার মাধ্যমে এই রোগ ছড়ায়। এই মশা ডেঙ্গি ও চিকুনগুনিয়া মতো রোগ‌ও ছড়ায়। তা ছাড়া জিকা ছড়ায় যৌনাচারের মাধ্যমে। মানে, কারওর যদি জিকা হয়, তিনি যৌনাচারের মাধ্যমে তাঁর পার্টনারের দেহে এই অসুখটির বীজ রোপণ করতে পারেন। উগান্ডায় ১৯৪৭ সালে বাঁদরদের মধ্যে প্রথম মেলে জিকার দেখা। মানুষের মধ্যে জিকা সংক্রমণ-সংবাদ পাওয়া যায় তার পাঁচ বছর পর।

১৯৬০ সালের পর থেকে সারা পৃথিবীতে বিক্ষিপ্ত ভাবে জিকা সংক্রমণের খবর পাওয়া যাচ্ছে। প্রথম জিকা মহামারির আকার নেয় প্রশান্ত মহাসাগরের ইয়াপ দ্বীপে। ২০০৭ সালে। ‌ এর পর ২০১৫ সালে জিকা মহামারি হয় ব্রাজিলে। তখন মাইক্রোসেফালি (Microcephaly) বলে আরেকটা অসুখের সঙ্গে জিকার অঙ্গাঙ্গী সম্পর্ক সামনে এসে যায়। মাইক্রোসেফালিতে ছোট মস্তিষ্ক নিয়ে শিশুর জন্ম হয়, তার ব্রেন অপরিণত অবস্থায় থাকে।

জিকা কতটা মারাত্মক?

কোন‌ও অন্তঃসত্ত্বা মহিলার জিকা হলে তা মারাত্মক, কারণ তাহলে গর্ভস্থ শিশুটির মাইক্রোসেফালি হতে পারে। গর্ভবতী মহিলা ছাড়া জিকা অন্যান্যদের ক্ষেত্রে তেমন ভয়ঙ্কর হয়ে ওঠে না। তবে ব্রাজিলে জিকা মহামারির সময় দেখা যায় গিলান-বারে সিনড্রোম ( Guillain-Barré syndrome) জিকা বাড়িয়ে তুলছে। গিলান-বারে সিনড্রোমের ফলে প্যারালাইসিস হতে পারে। যা ডেকে আনতে পারে মৃত্যু। ১৯১৬ সালে গিলান ও বারে নামে দুই নিউরোলজিস্ট এই অসুখটিকে চিহ্নিত করেন বলে ওই দুই চিকিৎসকের নামে এটির নামকরণ।

২০১৭ সালে ব্রাজিলে জিকা সংক্রমিত মধ্যে একটি গবেষণা চালিয়ে দেখা যায় এই অসুখে মৃত্যুর হার ৮.৩ শতাংশ। গবেষণাটি করে ইউএস ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অফ হেলথ। তবে সব ক্ষেত্রে এমনটা না-ও হতে পারে।

আরও পড়ুন কোভিডে উদাসীন বিভিন্ন দেশ, নতুন ভয়ে কাঁটা হু, কেন তাদের ধারাবাহিক সতর্কতা?

জিকা সংক্রমণের উপসর্গগুলি কী?

বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই জিকা হলে কোনও উপসর্গ দেখা যায় না। কিছু ক্ষেত্রে অবশ্য উপসর্গের বহিঃপ্রকাশ ঘটে। ফ্লু বা‌ জ্বরের উপসর্গের মতোই যা। মানে আপনার জিকা হলে জ্বর কিংবা মাথাব্যথা হতে পারে। কোনও ক্ষেত্রে Rash বেরোতে পারে। যেমন ডেঙ্গুর ক্ষেত্রে হয়। আবার কার‌ওর হতে পারে কনজাংটিভাইটিস। পরিস্থিতি বেগতিক হয়ে উঠলে চিকিৎসার প্রয়োজন হয়। জিকা সংক্রমণ হলে উপসর্গ আসতে (যাকে ইনকিউবেশন পিরিওড বলা হয়ে থাকে) ৩ থেকে ১৪ দিন লাগতে পারে।

জিকার চিকিৎসা কী?

জিকার কোন‌ও ভ্যাকসিন নেই কিংবা কোনও ওষুধ নেই। উপসর্গ সাধারণত মৃদু। বেশি পরিমাণে জল খাওয়ার প্রয়োজন জিকা হলে। এবং গা-ব্যথা আর জ্বরের জন্য দরকার বিশ্রাম। এমনই বলছে হু।

জিকার ইতিহাস এ দেশে

১৯৫২-৫৩ সালে প্রথম এই ভাইরাসের উপস্থিতি টের পাওয়া যায় ভারতে। ২০১৮ সালের সেপ্টেম্বর-অক্টোবরে রাজস্থানে ৮০ জন জিকা সংক্রমিত হন। এর আগে ২০১৭‌-র মে মাসে গুজরাতের বাপুনগর এলাকায় তিনজনের জিকা সংক্রমণ হয়। ওই বছরের জুলাইতে তামিলনাড়ুর কৃষ্ণগিরি জেলায় একজন আক্রান্ত হন এই অসুখে।

আরও পড়ুন করোনার ল্যাম্বডা প্রজাতির ভয় কতটা, কী ভাবে হামলা করতে পারে এই ভ্যারিয়েন্ট?

জিকা নিয়ে সরকারের প্রোটোকল কী?

মশা মারার বিভিন্ন পদক্ষেপ সরকার নিয়ে থাকে এই ধরনের অসুখ যাতে না ছড়ায়, সে জন্য। যেহেতু যৌনাচারও এটি ছড়ানোর একটা কারণ, তাই গর্ভনিরোধক পদ্ধতি গুরুত্বপূর্ণ হয়ে ওঠে (আগেই বলেছি, জিকা গর্ভস্থ শিশুর বিরাট বড় বিপদ ডেকে আনতে পারে)। এই অসুখ যখন কোনও এলাকায় ছড়ায়, তখন এ ব্যাপারে সরকারি ভাবে মানুষকে সচেতন করা অত্যন্ত প্রয়োজন, বলছে হু।

আপাত ভাবে নিরীহ অসুখ। কখনও তা-ই প্রাণঘাতী। জিকার বার্তা এমনই।‌ তাই সাধু সাবধান! করোনাকালে জিকা যাতে কোন বড় খেলা দেখাতে না পারে, সে জন্য সতর্কতায় তৃণসম খামতি দেখানো‌ও বারণ।

ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস বাংলা এখন টেলিগ্রামে, পড়তে থাকুন

Get the latest Bengali news and Explained news here. You can also read all the Explained news by following us on Twitter, Facebook and Telegram.

Web Title: Zika virus kerala explained

Next Story
ব্র্যান্ড মোদী বাঁচাতেই কি খোলনলচে বদল মন্ত্রিসভারmodi cabinet, modi new cabinet minister
The moderation of comments is automated and not cleared manually by bengali.indianexpress.com