ফিচার খবর

শোভাবাজার রাজবাড়ি: ভারতে ব্রিটিশ শাসনের এক অন্যতম স্তম্ভ

শোভাবাজার রাজবাড়ি: ভারতে ব্রিটিশ শাসনের এক অন্যতম স্তম্ভ

এই রাজবাড়ি নির্মাণের মূলে যিনি, সেই নবকৃষ্ণ দেব কিন্তু নিজেকে ব্রিটিশদের কাছে একরকম বিকিয়েই দিয়েছিলেন, কোম্পানির কর্তাদের সঙ্গে যেচে ঘনিষ্ঠতা করেছিলেন সম্পত্তি এবং অর্থের লোভে। 

মকর সংক্রান্তি, রাঢ় বাংলার প্রাণের নতুন বছর

মকর সংক্রান্তি, রাঢ় বাংলার প্রাণের নতুন বছর

ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস বাংলায় শুরু হলো আনন্দ পুরস্কার এবং বঙ্কিম পুরস্কারে সম্মানিত সাহিত্যিক স্বপ্নময় চক্রবর্তীর পাক্ষিক কলাম। আজ প্রথম কিস্তি, রইল রাঢ় বাংলার মকর সংক্রান্তি এবং টুসু নিয়ে কিছু কথা।

প্রকাশিত হল সুন্দরবনের প্রথম মানচিত্র

প্রকাশিত হল সুন্দরবনের প্রথম মানচিত্র

"আমাদের দেশে জেলাভিত্তিক মানচিত্র রয়েছে। কিন্তু সুন্দরবন যেহেতু উত্তর ২৪ পরগণা এবং দক্ষিণ ২৪ পরগণা, দুই জেলার বেশ খানিকটা অংশ জুড়েই বিস্তৃত, তাই আলাদা করে সুন্দরবনের মানচিত্র এতদিন ছিল না"।

২০০ বছর ধরে একটানা কাঠের উনুনে তৈরি সুখাদ্য, কলকাতাতেই

২০০ বছর ধরে একটানা কাঠের উনুনে তৈরি সুখাদ্য, কলকাতাতেই

"ব্রিটিশরা যখন দেশ শাসন করত, তখন তারা এখানকার বাকরখানি খেত। অ্যাংলো ইন্ডিয়ানরা এখান থেকে ব্রিটিশদের জন্য বাকরখানি নিয়ে যেত।"

তিন শতকের শহরে দু’শতকের ফুলের মেলা

তিন শতকের শহরে দু’শতকের ফুলের মেলা

কলকাতা আর আশেপাশের মফঃস্বল থেকেই ফুলগাছ প্রেমীরা প্রতি বছর ফুল পাঠায় এখানে। প্রতিযোগিতাও হয়। তবে ফুলে ফুলে বোধহয় প্রতিদ্বন্দিতা হয় না কোনও দিন। নামেই প্রতিযোগী ওঁরা।

ত্রিপুরার পর্তুগিজদের পদবী ছাড়া হারাবার আর কিছু নেই

ত্রিপুরার পর্তুগিজদের পদবী ছাড়া হারাবার আর কিছু নেই

ত্রিপুরার রাজপরিবারের ইতিবৃত্ত ত্রিপুরা রাজমালায় প্রথম জমিপত্তনের বিস্তারিত বিবরণ থাকার কথা। কিন্তু রাজ পরিবারের ইতিবৃত্তের বহু সংস্করণ।

শেষ হয়েও হয় না শহরের অ্যাংলো-ইন্ডিয়ানদের গল্প

শেষ হয়েও হয় না শহরের অ্যাংলো-ইন্ডিয়ানদের গল্প

কেন্দ্রীয় আইন মন্ত্রী রবিশঙ্কর প্রসাদের দাবি, ভারতে মাত্র ২৯৬ জন অ্যাংলো-ইন্ডিয়ান বর্তমানে জীবিত রয়েছেন। অ্যাংলো-ইন্ডিয়ান সমাজ এই পরিসংখ্যানের সত্যতা অস্বীকার করেছে।

টেরিটি বাজার: কলকাতার প্রথম চিনে পাড়া কেমন আছে?

টেরিটি বাজার: কলকাতার প্রথম চিনে পাড়া কেমন আছে?

দীর্ঘদিন ধরেই টেরিটি বাজার শহরের একমাত্র চায়নাটাউন ছিল। কিন্তু ১৯৫০-এ পরিস্থিতি বদলাতে শুরু করে।

ট্যাংরা- নামই যথেষ্ট

ট্যাংরা- নামই যথেষ্ট

দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর কাঁচা চামড়ার চাহিদা তুঙ্গে ওঠে, যার ফলে ভাগ্য পাল্টে যায় ট্যাংরার চিনা বাসিন্দাদের। ব্যবসায় বিপুল লাভের আশায় ক্রমশ বাড়তে থাকে চিনা বাসিন্দা এবং চামড়ার কারখানার সংখ্যা।

কলকাতার মেসবাড়ি, অতীত বর্তমানের আলো-আঁধারি

কলকাতার মেসবাড়ি, অতীত বর্তমানের আলো-আঁধারি

ঠনঠনিয়া কালিবাড়ির রাস্তায় এসে, যে কোনও কাউকে শিবরাম চক্রবর্তীর মেসবাড়ি জিজ্ঞেস করলেই সোৎসাহে দোতলার একটি ঘর দেখিয়ে দেন।

কোথায় গেল সেই মাছ, যার নামে ‘তোপসিয়া’?

কোথায় গেল সেই মাছ, যার নামে ‘তোপসিয়া’?

কলকাতার সঙ্গে তোপসিয়ার যোগ আজকের নয়। ফিরে যেতে হবে সেই ১৭১৭ সালে, যখন মুঘল সম্রাট ফারুখসিয়ারের কাছ থেকে কলকাতার আশেপাশে ৩৮টি গ্রামের ইজারা নেয় ব্রিটিশ ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানি।

সকাল থেকে রাত পর্যন্ত সঙ্গী ঢোল, নিজের দুনিয়ায় মগ্ন ছ’বছরের রাঘব

সকাল থেকে রাত পর্যন্ত সঙ্গী ঢোল, নিজের দুনিয়ায় মগ্ন ছ’বছরের রাঘব

দাদু ব্যান্ড পার্টিতে ঢোল বাজান। রাঘবকে দু'বছর বয়স থেকে একটু ভালোমন্দ খাওয়ানোর জন্যে সঙ্গে করে নিয়ে যেতেন বিভিন্ন অনুষ্ঠানে। বাড়ি ফিরে দুটো কাঠি নিয়ে ভাঙ্গা টিনের বাক্সে ঢোল বাজানোর চেষ্টা করতো ছোট্ট রাঘব।

মাত্র পাঁচ দিনে হয়ে উঠুন ‘তেজস্বিনী’, সৌজন্যে কলকাতা পুলিশ

মাত্র পাঁচ দিনে হয়ে উঠুন ‘তেজস্বিনী’, সৌজন্যে কলকাতা পুলিশ

শহরের পথেঘাটে মহিলারা যাতে শারীরিক হেনস্থার বিরুদ্ধে প্রাথমিকভাবে রুখে দাঁড়াতে পারেন, সেই লক্ষ্যে কলকাতা পুলিশের বিশেষ উদ্যোগ 'তেজস্বিনী'।

বেনারস হিন্দু বিশ্ববিদ্যালয় যা নিয়ে উত্তপ্ত, বেলুড় মঠে তাই ‘স্বাভাবিক’

বেনারস হিন্দু বিশ্ববিদ্যালয় যা নিয়ে উত্তপ্ত, বেলুড় মঠে তাই ‘স্বাভাবিক’

সংস্কৃতে ডক্টরেট ফিরোজ খানকে নিয়ে যখন উত্তাল বিএইচইউ, ঠিক সেই সময়ই বেলুড় মঠের প্রতিষ্ঠানে সংস্কৃত পড়ানোর নিয়োগপত্র পৌঁছে যায় রমজান আলির হাতে।

কলকাতার অধিকাংশ দোকানে এই গ্রাম থেকেই আসে রাবড়ি

কলকাতার অধিকাংশ দোকানে এই গ্রাম থেকেই আসে রাবড়ি

আঁইয়া গ্রাম। লোকের মুখে মুখে আঁইয়া এখন রাবড়িগ্রাম। বাইরে থেকে দেখতে শান্ত, ছিমছাম। কে বলবে, পরের সকালে কলকাতার ওলি-গলির সব মিষ্টির দোকানে রাবড়ি পৌঁছে দেবে এই গ্রাম?

ঝাঁসির রানির জন্মদিন, সিপাই বিদ্রোহ এবং কলকাতার হুতোমরা

ঝাঁসির রানির জন্মদিন, সিপাই বিদ্রোহ এবং কলকাতার হুতোমরা

হুতোম লিখছেন, এই সময়ে কলকাতায় গুজব রটে, বিদ্যাসাগরের উদ্যোগে বিধবা বিবাহ আইন পাস হয়েছে বলেই ‘সেপাইরা খেপেছে’।

গোরস্থান কা রাস্তা থেকে পার্ক স্ট্রিট থেকে মাদার টেরেজা সরণি, নাম বদলের ইতিবৃত্ত

গোরস্থান কা রাস্তা থেকে পার্ক স্ট্রিট থেকে মাদার টেরেজা সরণি, নাম বদলের ইতিবৃত্ত

পার্ক স্ট্রিট যে পার্ক স্ট্রিটই রয়ে গেছে, তা তো আমরা সকলেই জানি। ব্রিটিশ আমলের ইতিহাসের মতোই জাঁকিয়ে বসে গেছে শহরের অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ এই রাজপথটির নামও।

Advertisement

BREAKING
X