বিজেপির উভয়সংকট: ভারত আপাতত কংগ্রেস-মুক্ত… এরপর কী?

ক্রমশ ক্ষীণ হতে থাকা বিরোধী দলগুলির ক্ষমতার কথা পর্যবেক্ষণ করলে একথা সহজেই অনুমান করা যায় যে এদেশকে 'বিজেপি-যুক্ত' করতে প্রধানমন্ত্রী  নরেন্দ্র মোদিকে খুব একটা বেগ পেতে হবেনা।

By : IE Bangla Web Desk | New Delhi Updated: May 15, 2018, 19:15:21 PM

নন্দগোপাল রাজন

কংগ্রেস মুক্ত ভারতে, বা বলা ভাল প্রায় কংগ্রেস মুক্ত ভারতে আপনাদের স্বাগত। এই মুহূর্তে মাত্র তিনটি রাজ্যে ক্ষমতায় রয়েছে কংগ্রেস, যার মধ্যে দুটি রাজ্যে তাদের  আধিপত্য অতি ক্ষীণ। বৃহৎ ও প্রাচীন দলটির পক্ষে এ অবস্থা মোটেই সুখকর নয়।

মোটের উপর এখনকার যা পরিস্থিতি, তাতে প্রায় গোটা ভারতই বিজেপিশাসিত, বা এমন দলের শাসনাধীনে রয়েছে, যারা কোনও পক্ষেই নেই। যেমন তৃণমূল কংগ্রেস এবং বিজু জনতা দল। এই পার্টিগুলি নিজেদের রাজ্য ছেড়ে অন্যত্র ক্ষমতাপ্রতিষ্ঠা করবে তেমন কোনও সম্ভাবনাও নেই, যদি না উত্তরপ্রদেশে একটি আসনে জেতা তৃণমূল সে রাজ্যে ক্ষমতায় আসার স্বপ্ন দেখে। ফলে আপাতত আমরা একটা ডেভিড ও গোলিয়াথ পরিস্থিতির মধ্যে আছি, যেখানে কেবলমাত্র দুটি পার্টিই একাধিক রাজ্য শাসন করতে পারে। সিপিএমকে এখন আর হিসেবের মধ্যে না আনাই ভাল।

কিন্তু এরপর? বিজেপি’র কাছে কী অর্থ দাঁড়াবে ‘কংগ্রেস-মুক্ত’ ভারতের? প্রথম কয়েকটি নির্বাচনী প্রচারে তাঁদের পক্ষে এ স্লোগানটি ম্যাজিকের মত কাজ করেছিল। কিন্তু এরপর? পরবর্তী মধ্যপ্রদেশ, রাজস্থান এবং ছত্তিশগড়ের নির্বাচনে তাদের কাছে প্রতিষ্ঠান বিরোধী হাওয়ার মোকাবিলা করা যথেষ্ট কঠিন হবে। উল্লেখ্য, এই মূহূর্তে এদেশের কথা বলতে হলে ‘কংগ্রেস-মুক্ত’এর চেয়ে ‘বিজেপি-যুক্ত’ শব্দবন্ধই বেশি খাটে। সে কারণেই পরবর্তী রাজ্যগুলির বিধানসভা ভোটগুলিতেও প্রত্যাশা থাকবে বিরোধীদের আক্রমণ করবার চেয়ে তাঁরা তাঁদের সফল প্রকল্পগুলিকেই ভোটজয়ের স্লোগান হিসাবে তুলে ধরবেন।

দীর্ঘ পাঁচ বছরের শাসনের পর ভবিষ্যতে বিজেপির মুখ্য ভীতি হতে পারে বাড়তে থাকা গণতন্ত্রের নিয়ম মেনেই বাড়তে থাকা প্রতিষ্ঠান বিরোধী আবহাওয়া। একারণেই আগামী সমস্ত ভোটে বিজেপির বর্তমান মুখ্যমন্ত্রীদের গদি টিকিয়ে রাখবার জন্য উন্নয়নের উপযুক্ত খতিয়ান দর্শাতে হবে। তাই গত কয়েক বছরে একনাগাড়ে ভারতকে ‘কংগ্রেস-মুক্ত’ করবার ‘নির্বাচনী প্রচার’ মোডে থাকবার পর এবার তাঁদের ভাবতে হবে কি উপায়ে এদেশকে ‘বিজেপি-যুক্ত’ করা সম্ভব হবে! কিন্তু ক্রমশ ক্ষীণ হতে থাকা বিরোধী দলগুলির ক্ষমতার কথা পর্যবেক্ষণ করলে একথা সহজেই অনুমান করা যায় যে এদেশকে ‘বিজেপি-যুক্ত’ করতে প্রধানমন্ত্রী  নরেন্দ্র মোদিকে খুব একটা বেগ পেতে হবেনা।

এবার বিজেপি কবে তাঁদের ‘কংগ্রেস-মুক্ত’ স্লোগানটি বদলে ‘বিজেপি-যুক্ত’ করে ফেলে, তার জন্য আপাতত সমগ্র দেশবাসী অপেক্ষায় রয়েছেন। আশাকরি এই বিষয়ে অন্তত নেহেরুর পদক্ষেপ অবলম্বন করতে বিজেপি পিছপা হবেনা।