scorecardresearch

বড় খবর

সাইরাস মিস্ত্রির প্রাণহাণি থেকে শিক্ষা, গাড়ি নির্মাণে বিশেষ পদক্ষেপের নির্দেশ কেন্দ্রের

পিছনের আসনের যাত্রীদের সিট বেল্ট না পরার জন্য জরিমানা করার একটি বিধান ইতিমধ্যেই মোটর যান আইন, ২০১৯-এ রয়েছে৷

সাইরাস মিস্ত্রির প্রাণহাণি থেকে শিক্ষা, গাড়ি নির্মাণে বিশেষ পদক্ষেপের নির্দেশ কেন্দ্রের
গাড়ি নির্মাণে বিশেষ নির্দেশের পথে কেন্দ্র।

গত রবিবার সড়ক দুর্ঘটনার নিহত হয়েছেন শিল্পপতি সাইরাজ মিস্ত্রি। যার থেকে শিক্ষা নিয়ে নয়া পদক্ষেপের পথে সড়ক পরিবহণ মন্ত্রক। মন্ত্রী নীতীন গড়করি জানিয়েছেন, এবার থেকে নতুন প্রত্যেক গাড়ির পিছনের আসনের জন্য সিট বেল্ট অ্যালার্ম বাধ্যতামূলক করা হচ্ছে। শীঘ্রই জারি হবে খসড়া বিজ্ঞপ্তি। নির্দেশ কার্যকরে গাড়ি প্রস্তুত সংস্থাগুলিকে নির্দিষ্ট সময় দেওয়া হবে বলে জানানো হয়েছে।

গড়করি বলেছেন, ‘সাইরাসের ঘটনার কারণে, আমরা সিদ্ধান্ত নিয়েছি যে সমস্ত গাড়িতে পিছনের আসনে সিট বেল্টের জন্য অ্যালার্ম থাকতে হবে। আগামী কয়েক দিনের মধ্যে আদেশ জারি করা হবে’

সিট বেল্ট না পরার জন্য পিছনের আসনের যাত্রীদের জরিমানা করার একটি বিধান ইতিমধ্যেই মোটর যান আইন, ২০১৯-এ রয়েছে৷ বিশেষজ্ঞদের মতে, অ্যালার্মের নিয়মটি গাড়ির পিছনের আসনের যাত্রীদের সিট বেল্ট উপেক্ষা করা অসুবিধাজনক করে তুলবে৷ গাড়ির সেন্সরগুলি এমনভাবে ইনস্টল করা হবে যাতে সিট বেল্ট ক্লিপ বা বাকল না বাঁধা পর্যান্ত অ্যালার্ম বাজতেই থাকবে।

গড়করির মতে, আ্যালার্মে কারচুপি করার জন্য অনেকে বেল্ট ছাড়া বাইরে থেকে কেনা ক্লিপটি সংযুক্ত করে। ‘উপভোক্তা বিষয়ক মন্ত্রক কর্তৃক বেআইনি ঘোষণা করা সেই ক্লিপগুলির উৎপাদন এবং বিক্রয় বন্ধে পদক্ষেপ করা হচ্ছে।’ বলে দাবি কেন্দ্রীয় সড়ক ও পরিবহণ মন্ত্রীর।

চলতি বছরের ১লা অক্টোবরের পরে তৈরি করা গাড়িগুলিতে আট আসনের গাড়ির জন্য কমপক্ষে ছয়টি এয়ারব্যাগ থাকা বাধ্যতামূলক করার লক্ষ্যমাত্রা নেওয়া হয়েছে । এরই মধ্যে জানুয়ারিতে এ সংক্রান্ত একটি খসড়া জারি করা হয়েছে। যাত্রীরা তাদের সিট বেল্ট বেঁধে রাখলে এয়ারব্যাগ বেশি কার্যকর।

গড়করি 8 সেপ্টেম্বর বেঙ্গালুরুতে পরিবহন উন্নয়ন কাউন্সিলের একটি সভায় সভাপতিত্ব করবেন, যেখানে সমস্ত রাজ্যের প্রতিনিধিত্ব থাকবেন। মন্ত্রী বলেছেন, ‘আমি সেখানে গতি সীমা এবং অন্যান্য প্রয়োগের বিষয়গুলি উত্থাপন করব। গাড়ির হর্নের পরিমাণ ৭০ ডেসিবেলে সীমাবদ্ধ করার বিষয়টিও উত্থাপন করব।’

সড়ক নিরাপত্তা কর্মীরা পিছনের সিট বেল্ট অ্যালার্মের পদক্ষেপকে স্বাগত জানিয়েছেন। এনজিও সেভলাইফ ফাউন্ডেশনের পীযূষ তেওয়ারি বলেছেন, ‘দুর্ঘটনাজনিত মৃত্যুর প্রায় ৩৫ শতাংশের ক্ষেত্রে, আমরা যে কারণটি খুঁজে পাই তা হল সিট বেল্ট, বিশেষ করে পিছনের সিট বেল্ট ব্যবহার না করা। অ্যালার্মটি একটি স্বাগত পদক্ষেপ, কারণ সিট বেল্টগুলি গাড়ির অভ্যন্তরের মধ্যে যাত্রীদের সংঘর্ষ বন্ধ করে এবং দুর্ঘটনার ক্ষেত্রে পারস্পরিক ইজেকশনও বন্ধ করে দেয়। আমরা আশাবাদী যে অটোমোবাইল শিল্পও এই পদক্ষেপকে স্বাগত জানাবে।’

Stay updated with the latest news headlines and all the latest General news download Indian Express Bengali App.

Web Title: After cyrus incident cars to have alarm for rear seat belts nitin gadkari