scorecardresearch

বড় খবর

প্রজাতন্ত্র দিবসের অনুষ্ঠানে বিশেষ আমন্ত্রিতের তালিকায় সাফাইকর্মী থেকে স্বাস্থ্যকর্মী

করোনা যোদ্ধাদের বিশেষ সম্মান!

সাধারণতন্ত্র দিবসের কুচকাওয়াজের অনুষ্ঠানে বিশেষ আমন্ত্রিতের তালিকায় রয়েছেন, সাফাই কর্মী থেকে স্বাস্থ্যকর্মী

প্রজাতন্ত্র দিবস উপলক্ষে রাজধানীতে নিরাপত্তা আঁটসাঁট করা হয়েছে। এবছর করোনা আবহে সংক্ষিপ্ত করা হয়েছে প্রজাতন্ত্র দিবসের কুচকাওয়াজ অনুষ্ঠান। দেশজুড়ে ৪৮০ জন শিল্পী এদিন রাজপথে নৃত্য-সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান পরিবেশন করবেন। কাটছাঁট করা হয়েছে ট্যাবলো প্রদর্শনীতে। এবছর ২১টি ট্যাবলো প্রদর্শিত হবে। সেই সঙ্গে বাড়তি আকর্ষণ, ভারতীয় বায়ুসেনার ৭৫টি বিমানের ফ্লাইপাস্ট। এই বছর সাধারণতন্ত্র দিবসের কুচকাওয়াজের ৫৬৫ জন বিশেষ আমন্ত্রিতদের মধ্যে রয়েছেন ২৫০ জন নির্মাণ শ্রমিক, ১১৫ জন সাফাই কর্মচারী, ১০০ জন অটোরিকশা চালক এবং ১০০ জন স্বাস্থ্যকর্মী।

অশোক কুমার, সাফাই কর্মচারী

৫২ বছর বয়সী এই আশক প্রায় ২৫ বছর ধরে নতুন দিল্লি মিউনিসিপাল কাউন্সিলের (NDMC)  একজন সাফাই কর্মচারী হিসাবে নিজের দায়িত্ব পালন করেছেন। স্ত্রী এবং তিন সন্তানের সঙ্গে তিনি গাজিয়াবাদে থাকেন, কনট প্লেসই তার কাজের স্থায়ী ঠিকানা। এর আগে কখনো প্রজাতন্ত্র দিবসের প্যারেড দেখেননি। তাঁর কথায় “আমরা কোভিড তরঙ্গের মধ্য দিয়ে কঠোর পরিশ্রম করেছি, এবং আমাদের দায়িত্ব পালন করেছি যেমন আমাদের বলা হয়েছিল… আমরা সবসময় কোভিডের মধ্যেও যথাসম্ভব এলাকা পরিষ্কার রেখেছি, অবিরাম কাজ করে গেছি।  গড়ে প্রতিদিন, আট ঘণ্টা নিরলস কাজ করে গেছেন, করোনাকালে। তিনি আরও বলেন, ভগবানের কৃপায় সুস্থ শরীরে এখনও কাজ করে চলেছি। কোভিড আমাকে ছুঁতে পারেনি। ইশ্বরকে ধন্যবাদ!

অক্ষয় তাঁতি, নির্মাণ শ্রমিক

বাংলার মালদা থেকে অক্ষয় তাঁতি জাতীয় রাজধানীতে সেন্ট্রাল ভিস্তা নির্মাণ সাইটে একজন হেল্পার হিসেবে কাজ করেন। তিনি জানান, “আমি এখন প্রায় 50 দিন ধরে সাইটে কাজ করছি। তার আগে, আমি ভাদোদরায় একটি ভিন্ন কোম্পানির সঙ্গে কাজ করছিলাম”।

করোনার প্রথম লকডাউন কালে কার্যত কোন কাজ ছিলনা। মালদার বাড়িতে পরিবারের সঙ্গে কোনমতে দিন কাটিয়েছেন তিনি। তার কথায় “আমাদের বাইরে যেতে দেওয়া হয়নি।  কখনও কখনও কাজ ছিল আবার কখনও ছিল না, রোজ খাওয়াও জুটত না।বৃষ্টি হলে কাজ পাওয়া মুশকিল”  তিনি সাইটে অদ্ভুত কাজ করেন, যখন প্রয়োজন হয় তখন পরিষ্কার করেন। মালদার বাড়িতে তার দুটি সন্তান আছে।

রেনু নাগর, স্বাস্থ্যকর্মী

দ্য ট্রেনড নার্সেস অ্যাসোসিয়েশন অফ ইন্ডিয়ার সঙ্গে কাজ চলেছেন তিনি,  এটি এমন একটি সংস্থা যেটি নার্সদের কল্যাণে ফোকাস করে৷তিনি করোনা কালের স্মৃতিচারণ করে বলেন “এটি একটি কঠিন সময় ছিল। নার্সরা আমাদের কাছে পৌঁছাবে, পিপিই চাইবে। আমরা নার্সদের কাছ থেকে অভিযোগগুলি পরিচালনা করার জন্য একটি অভিযোগ সেল স্থাপন করেছি এবং পারিশ্রমিক, পিপিই কিটগুলির প্রাপ্যতা এবং তারা যে সমস্যার মুখোমুখি হয়েছিল সেগুলির ক্ষেত্রে অনেকগুলি পেয়েছি। আমি অভিযোগ কল গ্রহণ করতাম, এবং নার্সরা এত আতঙ্কিত এবং উদ্বিগ্ন ছিল। আমি তাদের অভিযোগের কথা ম্যানেজমেন্টের কাছে তুলে ধরতাম”।

সংঘমিত্রা সাওয়ান্ত, নার্স

সংঘমিত্রা যিনি ভারতের প্রশিক্ষিত নার্স অ্যাসোসিয়েশনের সহকারী মহাসচিব। তিনি জানিয়েছেন, গত দুই বছর নার্সদের জন্য কঠিন ছিল, তিনি বলেছিলেন যে মহামারী চলাকালীন তাদের অনেক সমস্যার মুখোমুখি হতে হয়েছিল যেমন “চাকরির অস্থিতিশীলতা, কাজের পরিস্থিতি, নার্সদের কোয়ারেন্টাইনে থাকাকালীন আবাসনের সমস্যা, পরিবার থেকে দূরে থাকা, মানসিক সমস্যা”। “আমরা চাই নার্সরা তাদের প্রচেষ্টার জন্য সম্মানিত হোক। তাঁর কথায় এই বছর সাধারণতন্ত্র দিবসের কুচকাওয়াজে আমন্ত্রন পাওয়া বিশেষ সম্মানের ব্যাপার”।

Stay updated with the latest news headlines and all the latest General news download Indian Express Bengali App.

Web Title: Among invitee to republic day nurse safai karmacharis and autorikshow drivers