নারী নিগ্রহের অভিযোগ! বিজেপি নেতার বাড়ি গুঁড়িয়ে দিল যোগী প্রশাসন

প্রত্যক্ষদর্শীদের অভিযোগ, ওই মহিলা ভদ্রভাবে কথা বললেও অভিযুক্ত বিজেপি নেতা বাধা পেয়ে রেগে যান। তিনি ওই মহিলার সঙ্গে চরম দুর্বব্যবহার করেন।

নারী নিগ্রহের অভিযোগ! বিজেপি নেতার বাড়ি গুঁড়িয়ে দিল যোগী প্রশাসন
বিজেপি নেতার বাড়ির ভাঙা অংশ।

উত্তরপ্রদেশের নয়ডায় মহিলাকে হেনস্তা করার অভিযোগে এবার এক বিজেপি নেতার বাড়ি ভেঙে দিল প্রশাসন। অভিযোগ, ওই নেতা বেআইনিভাবে আবাসনের জমি দখলও করেছিলেন। সোশ্যাল মিডিয়ায় নিজেকে বিজেপি নেতা বলে দাবি করা ওই ব্যক্তির নাম শ্রীকান্ত ত্যাগী। নয়ডার গ্র্যান্ড ওমেক্সা সোসাইটির বাসিন্দা ওই বিজেপি কর্মী।

বেআইনিভাবে সোসাইটির জমি দখলের অভিযোগে তাঁকে আগে নোটিসও দেওয়া হয়েছিল। কিন্তু, সেই নোটিস অগ্রাহ্য করে দখল করা জমিতে গাছ লাগানোর উদ্যোগ নিয়েছিলেন। অভিযোগ, এসব দেখে এক প্রতিবাদী মহিলা তাঁকে বাধা দিতে এগিয়ে এসেছিলেন। প্রত্যক্ষদর্শীদের অভিযোগ, ওই মহিলা ভদ্রভাবে কথা বললেও অভিযুক্ত বিজেপি নেতা এই বাধা পেয়ে রেগে যান। তিনি ওই মহিলার সঙ্গে চরম দুর্বব্যবহার করেন। তাঁর প্রতি অশালীন মন্তব্য করেন।

শুধু তাই নয়, ওই মহিলাকে তিনি শারীরিকভাবে নিগ্রহও করেন। সেই অভিযোগ ওই মহিলার বিরুদ্ধে ভারতীয় দণ্ডবিধির ৩৫৪ ধারায় এবং গ্যাংস্টার আইনে মামলা দায়ের করেছে পুলিশ। পাশাপাশি, তাঁর বেআইনিভাবে দখল করা জমির ওপর নির্মিত বাড়ির বর্ধিত অংশ বুলডোজার দিয়ে ভেঙে গুঁড়িয়েও দিয়েছে। ইতিমধ্যেই ঘটনাটি সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হয়েছে। ভিডিওয় দেখা গিয়েছে, পুলিশ বুলডোজার দিয়ে বিজেপি নেতার বাড়ির বর্ধিত অংশ ভেঙে দিচ্ছে। এই ঘটনায় স্থানীয় বাসিন্দারা খুশি বলে জানিয়েছেন।

আরও পড়ুন- ৩২ বছরেরও মিলল না সুবিচার, অভিযুক্ত ব্লক নেতা এখন বিজেপি বিধায়ক, ফের আদালতে ভরত সিং

তাঁরা আবাসন কর্তৃপক্ষ ও মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথকে ধন্যবাদ জানিয়েছেন। স্থানীয় বাসিন্দাদের অভিযোগ, অভিযুক্ত বিজেপি নেতা দীর্ঘদিন ধরেই পার্কের জমি দখল করে রেখেছিলেন। পাশাপাশি, তাঁর আচরণও ছিল ঔদ্ধত্যপূর্ণ। যে কারণে তাঁরা রীতিমতো অতিষ্ঠ ছিলেন। যোগী প্রশাসন ওই ব্যক্তির বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার পরই শ্রীকান্তের মাথার ওপর থেকে হাত তুলে নিয়েছে বিজেপি। তারা দাবি করেছে, ওই ব্যক্তি কোনওভাবেই বিজেপির অংশ ছিলেন না। তবে, স্থানীয় বাসিন্দাদের একাংশ প্রশ্ন তুলছেন, যদি বিজেপি যোগ না-ই থাকে, তবে কেন এতদিন হাত গুটিয়ে বসেছিল উত্তরপ্রদেশ পুলিশ ও প্রশাসন?

২০১৯ সালে তাঁর বিরুদ্ধে বেআইনি নির্মাণের অভিযোগ দায়ের করেছিলেন স্থানীয় বাসিন্দারা। আবাসন কর্তৃ়পক্ষও তাঁকে নোটিস পাঠিয়েছিল। তারপরও প্রশাসন এত দিন অভিযুক্তের বিরুদ্ধে কোনও ব্যবস্থাই নেয়নি। পুলিশ এখন অভিযুক্তকে গ্রেফতার করার চেষ্টা চালাচ্ছে। অভিযুক্তের সমস্ত বেআইনি সম্পত্তির খোঁজও চালাচ্ছেন তদন্তকারীরা।

Read full story in English

Stay updated with the latest news headlines and all the latest General news download Indian Express Bengali App.

Web Title: Bulldozers demolish illegal extensions at home

Next Story
ঘরে ডেকে দুই ছাত্রীকে শ্লীলতাহানি, গ্রেফতার স্কুলের প্রধান শিক্ষক