scorecardresearch

বড় খবর

দুর্গারও ঋতুস্রাব, অনিকেতের ছবির বিরুদ্ধে পুলিশে নালিশ

“নিজের বাড়িতে স্ত্রীকে তো বলছি কে কি বলবে জানি না, তোমার মন যা সায় দেবে তাই করবে। কামাক্ষ্যায় যেখানে মায়ের ঋতুমতী হওয়া উদযাপন করা হয়, সেই দেশেই এই উলট পুরাণ?”

অনিকেত মিত্রর বিরুদ্ধে অভিযোগ জানানো হয় কলকাতা পুলিশের ফেসবুক পেজে
মেনস্ট্রুয়েসন, নারীর জীবনে আশীর্বাদ ও অভিশাপ একই সঙ্গে। এমনটাই বলছে এ সমাজের নিয়ম। আর সেখানে পুজো বা আচার বিচার পালনের প্রশ্ন হলে তো কথাই নেই। পিরিয়ডস হলে ব্রাত্য মহিলারা, এটাই সমাজ, এটাই ধর্মাচরণ। আর এই মিথকেই নিজের সৃষ্টির মাধ্যমে ভাঙতে চেয়েছিলেন শিল্পী অনিকেত মিত্র। স্যানিটারি ন্যাপকিনের ওপর লাল পদ্ম ও রক্তের দাগ এঁকে একটি বিশেষ বার্তা দিতে চেয়েছিলেন তিনি।

তবে সোশাল মিডিয়ায় তা দেওয়ার পর থেকেই আলোড়ন তৈরি হয়। একদল মানুষ ঝাঁপিয়ে পড়ে সমালোচনা শুরু করেন। বহু বিশিষ্ট জনও সামিল সেই তালিকায়। তেমনই কিছু প্রগতিশীল মানুষ এগিয়েও এসেছিলেন। কিন্তু গোল বাঁধল পুলিশি অভিযোগে। অনিকেত মিত্রর বিরুদ্ধে অভিযোগ জানানো হয় কলকাতা পুলিশের ফেসবুক পেজে। ধর্মীয় ভাবাবেগে নাকি আঘাত হেনেছে অনিকেতের সৃষ্টি এই ছবি। আর অভিযোগ জানানোর ২৪ ঘন্টার মধ্যেই ফেসবুক থেকে তুলে নেওয়া হল সেই ছবি। তবে এরকমও অনেক ছবি এঁকেছেন অনিকেত।

অনিকেতের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, “কলকাতা পুলিশের তরফ থেকে আমার সঙ্গে কোনরকম যোগাযোগ করা হয়নি। তবে এটা আর্শ্চযের, যে নেটিজেনরা যাঁরা আমায় আক্রমণ করেছেন, তাদের বেশিরভাগই নারী। তাহলে আমি কাদের জন্য লড়াই করছি? নিজের বাড়িতে স্ত্রীকে তো বলছি, কে কি বলবে জানি না তোমার মন যা সায় দেবে তাই করবে। কামাক্ষ্যায় যেখানে মায়ের ঋতুমতী হওয়া উদযাপন করা হয়, সেই দেশেই এই উলট পুরাণ?”

তবে ফেসবুক থেকে সরাসরি ছবিটি তুলে নেওয়া হলেও কিছু মানুষ আবারও কপি পেস্ট করছেন সেই ছবি। বলা যায়, রীতিমতো ভাইরাল এই ছবি। আর অনিকেতের কথায়, “যে যাই বলুক, আমার যা কাজ এবং যা বলার, সেটা আমার সৃষ্টি বলবেই।”

Stay updated with the latest news headlines and all the latest General news download Indian Express Bengali App.

Web Title: Goddess durga bleeds aniket mitras creation with a sanitary napkin