বড় খবর

দেশদ্রোহিতার মামলায় বিপাকে কানহাইয়া, আদালতে হাজিরার নির্দেশ

২০১৬ সালের মামলায় জহরলাল নেহেরু বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাক্তন ছাত্র নেতাকে সমন পাঠাল দিল্লির পাতিয়ালা হাউস কোর্ট।

কানহাইয়া কুমার। ফাইল ছবি

জেএনইউ দেশদ্রোহিতা মামলায় ফের বিপাকে সিপিআই নেতা কানহাইয়া কুমার। ২০১৬ সালের মামলায় জহরলাল নেহেরু বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাক্তন ছাত্র নেতাকে সমন পাঠাল দিল্লির পাতিয়ালা হাউস কোর্ট। সোমবারই দিল্লি পুলিশের চার্জশিটের উপর ভিত্তি করে আগামী ১৫ মার্চের মধ্যে হাজির হওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে কানহাইয়া-সহ ১০ জনকে।

প্রসঙ্গত, একবছর আগে দিল্লি পুলিশ এই মামলায় কানহাইয়ার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার অনুমতি পায়। চার্জশিটে পুলিশ দাবি করেছে, বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে কানহাইয়া এবং বাকি অভিযুক্তরা দেশবিরোধী স্লোগান দেন। ২০১৬ সালের ৯ ফেব্রুয়ারি, পার্লামেন্টে হামলায় দোষী সাব্যস্ত আফজল গুরুর ফাঁসির প্রতিবাদে মিছিলও হয় ক্যাম্পাসে। বিচারক পঙ্কজ শর্মা চার্জশিটের প্রাপ্তিস্বীকার করেছেন।

এই মামলায় কানহাইয়ার সঙ্গে বাকি অভিযুক্তরা হলেন সইদ উমর খালিদ, অনির্বাণ ভট্টাচার্য, আকিব হোসেন, মুজিব হোসেন গাট্টু, মুনিব হোসেন গাট্টু, উমর গুল, রইস রাসুল, বাশারাত আলি এবং খালিদ বশির ভাট। বিচারক জানিয়েছেন, দিল্লি সরকারের স্বরাষ্ট্র দফতরের তরফে এদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার অনুমতি দেওয়া হয়েছে। গত বছর ২৭ ফেব্রুয়ারি অনুমতি দিয়েছে কেজরিওয়াল সরকার। এদের ট্রায়ালের জন্য আগামী ১৫ মার্চ আদালতে হাজির হওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে ভারতীয় দণ্ডবিধির ১২৪এ (দেশদ্রোহিতা), ৩২৩ (আঘাত করা), ৪৬৫ (জালিয়াতি), ৪৭১ (জাল নথি ব্যবহার), ১৪৩, ১৪৯ (অবৈধ জমায়েত), ১৪৭ (দাঙ্গা) এবং ১২০বি (অপরাধমূলক ষড়যন্ত্র) ধারায় মামলা রুজু করেছে পুলিশ।

ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস বাংলা এখন টেলিগ্রামে, পড়তে থাকুন

Web Title: Kanhaiya others to face trial in 2016 jnu sedition case summoned on march 15

Next Story
‘ওরা পূজনীয়, ওদের ট্যুইটের তদন্ত হবে না’, লতা-শচিন ট্যুইট বিতর্কে মন্তব্য মহারাষ্ট্রের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রীর
The moderation of comments is automated and not cleared manually by bengali.indianexpress.com