scorecardresearch

সেরার সেরা ‘অগ্নিপথ’, মোদীর ভূয়সী প্রশংসায় দেশের শীর্ষ শিল্পপতি

অগ্নিপথ প্রকল্পের প্রতিবাদে দেশজুড়ে চলা বিক্ষোভকে দুর্ভাগ্যজনক বলে মনে করেন বিশিষ্ট এই শিল্পপতি।

সেরার সেরা ‘অগ্নিপথ’, মোদীর ভূয়সী প্রশংসায় দেশের শীর্ষ শিল্পপতি
প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী

অগ্নিপথ প্রকল্পকে ঢালাও সমর্থন দেশের তাবড় এই শিল্পপতির। বরং প্রকল্পের প্রতিবাদে দেশজুড়ে চলা বিক্ষোভকে দুর্ভাগ্যজনক বলে মনে করেন বিশিষ্ট শিল্পপতি আনন্দ মাহীন্দ্রা। কেন্দ্রের এই নয়া প্রকল্প দিনে-দিনে অগ্নিবীরদের শৃঙ্খলাবদ্ধ ও দক্ষ করে তুলবে বলে আশাবাদী বিশিষ্ট শিল্পপতি আনন্দ মাহীন্দ্রা।

দেশজুড়ে অগ্নিপথ প্রকল্পের প্রতিবাদে পথে নেমে সোচ্চার যুব সমাজ। বিজেপি বিরোধী প্রায় সব দলই কেন্দ্রের এই নয়া প্রকল্পের প্রতিবাদে সরব হয়েছে। অবিলম্বে এই প্রকল্প বাতিলের দাবি তুলেছে কংগ্রেসও। কৃষি আইনের মতো অগ্নিপথ প্রকল্পও কেন্দ্র বাধ্য হবে প্রত্যাহার করে নিতে, এমনই দাবি রাহুল গান্ধীর। ঠিক এই আবহে অগ্নিপথ নিয়ে এবার মোদী সরকারের পাশে দাঁড়ালেন দেশের বিশিষ্ট শিল্পপতি আনন্দ মাহীন্দ্রা।

টুইটে আনন্দ লিখেছেন, ”অগ্নিপথ প্রকল্পের প্রতিবাদে যে হিংসাত্মক ঘটনা ঘটছে সেটা দুঃখজনক। গত বছর প্রকল্পটির প্রসঙ্গ উঠেছিল। তখনই বলেছিলাম, অগ্নিবীরদের শৃঙ্খলা এবং দক্ষতা অর্জনই তাঁদের বিশিষ্টভাবে নিয়োগযোগ্য করে তুলবে। মাহিন্দ্রা গ্রুপ এই ধরনের প্রশিক্ষিত, সক্ষম যুবকদের (SIC) নিয়োগের সুযোগকে স্বাগত জানায়।”

অগ্নিপথ প্রকল্পে নিয়োগ পাওয়া যুবকরা আগামী দিনে দেশের সম্পদ হয়ে উঠতে পারে বলে আশাবাদী আনন্দ মাহীন্দ্রা। তাঁর কথায়, ”কর্পোরেট সেক্টরে অগ্নিবীরদের কাজের বড় সুযোগ হতে পারে। তাঁদের শক্তি, দলবদ্ধ কাজ এবং শারীরিক অনুশীলনের মতো গুণাবলী গুলি ইন্ডাস্ট্রির সহায়ক হবে।”

এদিকে, অগ্নিপথ আঁচে তপ্ত দেশ। দেশজুড়ে উত্তপ্ত আবহ। প্রকল্প বাতিলের দাবিতে কোথাও ভাঙচুর তো কোথাও আগুন ধরাচ্ছেন বিক্ষোভকারীদের একাংশ। সোশ্যাল মিডিয়ার মাধ্যমে আজ একাধিক সংগঠন কেন্দ্রের নয়া এই প্রকল্পের প্রতিবাদে ভারত বনধের ডাক দিয়েছে। বনধের এই হুঁণশিয়ারিকে তৎপরতার সঙ্গে মেকাাবিলায় সচেষ্ট প্রশাসনও। রাজ্যে-রাজ্যে সজাগ পুলিশ ও প্রশাসন।

আরও পড়ুন- অগ্নিপথ আঁচে উত্তাল দেশ, প্রকল্প বাতিলের দাবিতে আজ ভারত বনধ

উল্লেখ্য, অগ্নিপথ প্রকল্পের আওতায় বছরে প্রায় ৪৫ হাজার থেকে ৫০ হাজার সেনা নিয়োগ করা হবে। তবে এঁদের অধিকাংশই মাত্র চার বছরের মধ্যে চাকরি ছেড়ে যাবেন। কেন্দ্রের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী বছরে মোট নিয়োগের মাত্র ২৫ শতাংশ স্থায়ী কমিশনের অধীনে আরও ১৫ বছর চাকরির অনুমতি পাবেন।

দেশের সুরক্ষা বাহিনীতে চুক্তির ভিত্তিতে এই নিয়োগে অশনি সংকেত দেখছেন বিরোধীরা। মোদী সরকারের এই সিদ্ধান্ত দেশের সুরক্ষা ব্যবস্থাকে ভঙ্গুর করে দেবে বলে আশঙ্কা করছেন তাঁরা। এমনকী প্রাক্তন সেনাকর্তাদের একটি বড় অংশই কেন্দ্রীয় সরকারের অগ্নিপথ প্রকল্পের বিরুদ্ধে মুখ খুলেছেন।

Stay updated with the latest news headlines and all the latest General news download Indian Express Bengali App.

Web Title: Mahindra group welcomes opportunity to recruit agniveers