বড় খবর


ভাবনার বদলই দেশিয় পণ্যের চাহিদা বাড়িয়েছে-আত্মনির্ভরতার পথে দেশ: মোদী

নতুন বছরে স্থানীয় পণ্য ব্যবহারের জন্য দেশবাসীকে সংকল্প নেওয়ার আহ্বান জানান প্রধানমন্ত্রী।

প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। ফাইল চিত্র

বছর শেষের ‘মন কি বাত’ অনুষ্ঠানেও আত্মনির্ভর ভারতের পক্ষে সওয়াল করলেন প্রধানমন্ত্রী মোদী। নতুন বছরে স্থানীয় পণ্য ব্যবহারের জন্য দেশবাসীকে সংকল্প নেওয়ার আহ্বান জানান প্রধানমন্ত্রী। একই সঙ্গে শিল্পপতিদের কাছে দেশিয় পণ্যের সঠিক গুণমান বজায় রাখারও আর্জি জানিয়েছেন তিনি। একই সঙ্গে একক ব্যবহার্য প্লাসটিক মুক্ত ভারত গড়ে তোলার ডাক দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী।

৭২তম ‘মন কি বাত’ অনুষ্ঠানে মোদীর বার্তা…

* ‘করোনার জন্য দুনিয়ায় অনেক বাধা এসেছে। কিন্তু আমরা সব পেরিয়েছি। নতুন সংকল্প নিয়েছি। এর নাম আত্মনির্ভরতা।’

* ‘দিল্লির বাসিন্দা অভিনব বন্দ্যোপাধ্যায় জানান, ওনার আত্মীয়রে শিশুদের খেলনা কিনতে গিয়েছিলেন। আগে দিল্লির ওই এলাকায় দামি খেলনা বিক্রি হত। এখন সেখানকার দোকানকাররাই বলছেন মেড ইন ইন্ডিয়া খেলনা অনেক সস্তায় ও ভালো। এক বছরের মধ্যে এতটা পরিবর্তন ভাবা যায় না। স্পষ্ট যে ভারতীয়দের ভাবনায় বদল এসেছে’

* ‘দেশিয় পণ্যের গুণগত মানের সঙ্গে যেন আপোস করা না হয়। এতে আমাদের উদ্যোমী বন্ধুদের আগে আসতে হবে। শিল্পকর্তাদের কাছে এই আর্জি জানাচ্ছি। মানুষের বিশ্বাস ও আস্থার মর্যাদা দিতে হবে।’

* ‘তামিলনাড়ুর কোয়েম্বাটুরে একটি ভিডিও দেখেছি। আমরা হুইলচেয়াল দেখেছি। কিন্তু ওখানকার এক নাবালিকা পোষ্য কুকুরের জন্য হুইলচেয়ার বানিয়েছে। প্রাণীদের প্রতি গভীর ভালোবাসা না থাকলে এটা হতে পারে না।’

* ‘ প্রতি বিভিন্ন এলাকায় শীতের মধ্যে অনেকে খাবারও দেয়। এমন প্রয়াস উত্তরপ্রদেশেও হচ্ছে। ওখানে জেলে বন্দিরা গরুদের জন্য কাপড় বানাচ্ছে। যা প্রশংসনীয় উদ্যোগ।’

* ‘আগ্রাহ থাকলেই নতুন কিছু শেখা যায়। তামিলনাড়ুর ৯২ বছরের এক ব্যক্তি কম্পিউটার নিজের বই লিখেছেন। ওনার কলেজের সময়েও কম্পিউটার ছিল না। কিন্তু ওনার মধ্যে চেষ্টা ছিল। তাই উনি সেটা শিখে নিয়েছেন। উনি ৮৬ বছর বয়সে কম্পিউটার শিখেছেন। জরুরি সফটওয়্যারের কাজ শিখেছেন।’

* ‘গুরুগাঁওয়ের এক যুবক এক দল যুবক ৃহিমালয়ের চারপাশে পর্যটকদের ফেলে দেওয়া আবর্জনা পরিস্কার করেন। কর্ণাটকের অনুদীপ ও মনুষা বিয়ে করে সমুদ্রতটের ময়লা পরিস্কার করার সংকল্প নিয়েছে। এরা প্রায় সোমেশ্বর সৈকত থেকে ৮০০ টনের বেশি ময়লা সাফ করেছে। আমাদের দেশ স্বচ্ছ রাখার সংকল্প নেওয়া উচিত।’

* ‘২০১৪ সাল থেকে ২০১৮ সালের মধ্যে লেপার্ডের সংখ্যা ৬০ শতাংশ বৃদ্ধি পেয়েছে। ২০১৪ সালে সংখ্যাটা ছিল ৭,৯০০। ২০১৮ সালে তা ১২,৮৫২ হয়ে গিয়েছে। বিশেষত মধ্য ভারতে সেই সংখ্যা বৃদ্ধি পেয়েছে। সারা বিশ্বকে পথ দেখাচ্ছে ভারত।’

Read in English

ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস বাংলা এখন টেলিগ্রামে, পড়তে থাকুন

Web Title: Nation developed aatmanirbharta during the coronavirus crisis modi said in mann ki baat

Next Story
স্বস্তি, জুনের পর দেশের দৈনিক করোনা আক্রান্তের সংখ্যা সর্বনিম্ন
The moderation of comments is automated and not cleared manually by bengali.indianexpress.com