বড় খবর


‘ওরা পূজনীয়, ওদের ট্যুইটের তদন্ত হবে না’, লতা-শচিন ট্যুইট বিতর্কে মন্তব্য মহারাষ্ট্রের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রীর

‘এই ট্যুইটগুলোর পিছনে বিজেপির আইটি সেল প্রধান কিংবা ১২ জন প্রভাবশালীর ভুমিকা আছে কিনা, দেখা হবে। এদের ভুমিকা খতিয়ে দেখতে চলবে তদন্ত।’

সেলিব্রিটিদের ট্যুইটের কোনও তদন্ত হবে না। সেই ট্যুইটের নেপথ্য বিজেপির আইটি সেল কিংবা অন্য কোনও প্রভাবশালী কিনা, খতিয়ে তদন্ত করা হবে। সোমবার জানালেন মহারাষ্ট্র স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী অনিল দেশমুখ। সম্প্রতি কোভিড আক্রান্ত হয়েছিলেন স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী। সুস্থ হয়ে এদিন সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়েছিলেন অনিল দেশমুখ। তিনি বলেন, ‘আমার আগের মন্তব্যের অপব্যাখ্যা করা হয়েছে। লতা মঙ্গেশকর, শচিন তেন্ডুলকর এরা গোটা দেশে পূজনীয়। এদের ট্যুইট নিয়ে তদন্ত কখনই করা হবে না। বরং এই ট্যুইটগুলোর পিছনে বিজেপির আইটি সেল প্রধান কিংবা ১২ জন প্রভাবশালীর ভুমিকা আছে কিনা, দেখা হবে। এদের ভুমিকা খতিয়ে দেখতে চলবে তদন্ত।‘

এদিকে,কৃষক আন্দোলনের সমর্থনে টুলকিট ডকুমেন্ট তৈরি করেছিলেন নিকিতা জ্যাকব, দিশা রবি আর শান্তনু। সোমবার এমন গুরুতর অভিযোগ তুলেছে দিল্লি পুলিশ। সুত্রের খবর, এদের তৈরি করা টুলকিট ট্যুইটারে শেয়ার করে বিতর্ক বাড়িয়েছেন কিশোরী পরিবেশকর্মী গ্রেটা থুনবার্গ। যদিও তাঁর বিরুদ্ধেও। এদিন দিশা রবির গ্রেফতারি বিষয়ে সাংবাদিক বৈঠক করেন দিল্লি পুলিশের সিপি (সাইবার সেল) প্রেম নাথ। তিনি অভিযোগ করেন, ‘দিশা-সহ অন্যদের লক্ষ্য ছিল দেশের ভাবমূর্তি খারাপ করা। ধৃত দিশাই গ্রেটা থুনবার্গকে টেলিগ্রামে সেই টুলকিট পাঠিয়েছিল।‘ এমনকি, ওই তরুণী পরিবেশকর্মী দিশা রবি একটা হোয়াটস গ্রুপ ডিলিট করেছিল। যেটা সে নিজের হাতে বানিয়েছিল। তদন্তে এমনটা উঠে এসেছে। এদিন দাবি করেন প্রেম নাথ।  

এমনকি, প্রাথমিক তদন্তে এই গোটা বিষয়ের সঙ্গে খালিস্তানি যোগ খুঁজে পাওয়া গিয়েছে। ১১ ফেব্রুয়ারি নিকিতার বাড়িতে তল্লাশি চালিয়েছে পুলিশ। তারপরের দিন গা ঢাকা দেন নিকিতা। এমনটাও দাবি করেন ওই পুলিশকর্তা। তিনি জানিয়েছেন, খলিস্তান-পন্থী সংগঠন পিজেএফ-এর এক সদস্যা পুনিতের সঙ্গে ১১ জানুয়ারি জুম মিটিং করেন নিকিতা, দিশা আর শান্তনু। এই পুনিত কানাডায় থাকেন।  

দিশার গ্রেফতারির পাশাপাশি নিকিতা আর শান্তনুর বিরুদ্ধে জামিন অযোগ্য গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করেছে দিল্লি পুলিশ।

এদিকে, কৃষক আন্দোলন নিয়ে গ্রেটা থুনবার্গের টুইট রীতিমতো অস্বস্তিতে পড়েছিল ভারত। কিন্তু পরবর্তীতে গ্রেটা থুনবার্গ ও ‘টুলকিট’ বিরুদ্ধে দিল্লি পুলিশের এফআইআর নিয়ে জলঘোলাও হয়। কিন্তু এবার গ্রেটার শেয়ার করা বিতর্কিত টুলকিটটি সম্পাদনা করে নেটমাধ্যমে ছড়িয়ে দিয়েছেন এই অপরাধে বেঙ্গালুরুর এক পরিবেশ কর্মী দিশা রবিকে গ্রেফতার করা হল।

‘ফ্রাইডে ফর ফিউচার’ হয়ে কাজ করেন দিশা রবি। গ্রেটার পোস্ট করা টুলকিটের বিরুদ্ধে একটি অভিযোগ জমা পড়ে দিল্লি পুলিশের কাছে। মামলা করা হয় ওই টুলকিট যাঁরা তৈরি করেছেন, তাঁদের বিরুদ্ধেও। টুলকিট নির্মাতাদের সঙ্গে খলিস্তানপন্থীদের যোগসাজস রয়েছে, এমন অভিযোগও করা হয়। বেঙ্গালুরুর পরিবেশবিদ দিশা টুলকিট সম্পাদনা করছেন ও ছড়িয়ে দিচ্ছেন এই অভিযোগ ওঠে।

শনিবার সোলাদেভানাহাল্লি-র বাড়ি থেকেতাঁকে গ্রেফতার করে পুলিশ। যদিও দিশা পুলিশি জিজ্ঞাসাবাদের সময় এই সমস্ত অভিযোগ অস্বীকার করেছেন।

দিল্লি পুলিশের পক্ষ থেকে বলা হয়, ‘‘এই টুলকিটে অর্থনৈতিক, সামাজিক, সাংস্কৃতিক ও ধর্মীয় লড়াই বাঁধিয়ে দেওয়ার ইন্ধন দেওয়া হয়েছে। পাশাপাশি, ভারত সরকারের বিরুদ্ধে মত ছড়ানোর জন্য এটিকে ব্যবহার করা হয়েছে।

Web Title: No inquiry over celebrities tweet says maharastras home minister national

Next Story
‘দিশাদের সঙ্গে খলিস্তানি যোগ রয়েছে’, চাঞ্চল্যকর অভিযোগ দিল্লি পুলিশের
The moderation of comments is automated and not cleared manually by bengali.indianexpress.com