তৃতীয় ঢেউয়ে মোট মৃতের ৬০ শতাংশই টিকাহীন, গবেষণায় উঠে এল চাঞ্চল্যকর তথ্য

করোনা তৃতীয় ঢেউকালে যে সকল মানুষ প্রাণ হারিয়েছেন, তাঁদের মধ্যে ৬০ শতাংশের বেশি ছিলেন টিকাহীন অথবা একটি মাত্র ডোজ নিয়েছিলেন।

টিকাহীনদের মৃত্যুর সংখ্যাই প্রায় ৬০%, গবেষনায় উঠে এল চাঞ্চল্যকর তথ্য

দেশে রোজই পাল্লা দিয়ে বেড়ে চলেছে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা। সেই সঙ্গে বাড়ছে  হাসপাতালে ভর্তির সংখ্যা সঙ্গে মৃত্যুও। তবে স্বাস্থ্য মন্ত্রকের তথ্য অনুসারে করোনা দ্বিতীয় ঢেউয়ের তুলনায় হাসপাতালে ভর্তি এবং মৃত্যুর সংখ্যা তৃতীয় ঢেউয়ে অনেক কম। এবার গবেষণায় উঠে এসেছে ভয়ঙ্কর তথ্য। জানানো হয়েছে করোনা তৃতীয় ঢেউকালে যে সকল মানুষ প্রাণ হারিয়েছেন, তাঁদের মধ্যে ৬০ শতাংশের বেশি ছিলেন টিকাহীন অথবা একটি মাত্র ডোজ নিয়েছিলেন।

রাজধানী দিল্লির একটি বেসরকারি হাসপাতালের গবেষণায় এমন তথ্যই সামনে এসেছে। ম্যাক্স হেলথ কেয়ারের বিশেষজ্ঞদের আরও দাবি, অধিকাংশ ক্ষেত্রে মৃত্যু হয়েছে ৭০ বছরের বেশি বয়সি ব্যক্তিদের। যাঁদের কিডনি, হৃদরোগ, ডায়বেটিস, ক্যানসারের মতো কঠিন কো-মর্বিডিটি রয়েছে। দিল্লির এই হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ বিবৃতি দিয়ে জানিয়েছে, “আমাদের এখানে সবরকম সবরকম চেষ্টার পরেও ৮২ জন রোগীর মৃত্যু হয়েছে। এদের মধ্যে ৬০ শতাংশের হয় একটি টিকা নেওয়া ছিল অথবা তাঁরা একটি টিকাও নেননি।”

এদিকে দিল্লির স্বাস্থ্য মন্ত্রী সত্যেন্দ্র জৈন জানিয়েছেন, মৃতদের মধ্যে অধিকাংশই কোমর্বিডিটির স্বীকার। গবেষণা থেকে আরও জানা গিয়েছে, দ্বিতীয় ঢেউয়ে ৭৪ শতাংশ রোগীর অক্সিজেন লেগেছিল। আর তৃতীয় ঢেউয়ে মাত্র ২৩.৪ শতাংশ রোগীর অক্সিজেনের প্রয়োজন পড়ছে। এর সঙ্গে গবেষণা থেকে জানা গিয়েছে মোট আক্রান্তের মধ্যে হাসপাতালে ভর্তির সংখ্যা অন্যান্য দুটি ঢেউয়ের তুলনায় অনেক কম। শনিবার রাজ্যের দৈনিক করোনা সংক্রমণ সামান্য বাড়লেও নিম্নমুখী পজিটিভিটি রেট। রাজ্য স্বাস্থ্যদপ্তরের শনিবার সন্ধের রিপোর্ট বলছে, গত ২৪ ঘণ্টায় বাংলায় করোনা  আক্রান্ত হয়েছেন ৯ হাজার ১৯১ জন। সেই সঙ্গে চিন্তা বাড়িয়েছে মৃত্যুর সংখ্যা। রাজ্যে এদিন ২৪ ঘণ্টায় করোনার বলি হয়েছেন ৩৭ জন।  

Stay updated with the latest news headlines and all the latest General news download Indian Express Bengali App.

Web Title: Over 60 covid deaths in third wave among partially or completely unvaccinated

Next Story
দেশের কোভিড-গ্রাফ নিম্নমুখী, কয়েকটি রাজ্যের পরিস্থিতি নিয়ে উদ্বিগ্ন কেন্দ্র