দূষণ নিয়ন্ত্রণে রাজ্যেগুলোর কার্যকারিতা শূন্য: সুপ্রিম কোর্ট

শীর্ষ আদালতের পরামর্শ,’প্রয়োজনে টাস্ক ফোর্স গঠন করে দূষণ নিয়ন্ত্রণে গৃহীত নির্দেশগুলো কার্যকর করা যেতে পারে।’

Delhi air pollution
দিল্লির বাতাসে বিষ

Delhi Pollution: দিল্লি দূষণ নিয়ে ফের জাতীয় রাজধানী অঞ্চলের রাজ্যগুলোকে কটাক্ষ সুপ্রিম কোর্টের। কেন্দ্রীয় সংস্থাগুলো দূষণ নিয়ন্ত্রণে একাধিক নির্দেশিকা জারি করলেও, কার্যকর শুন্য। সোমবার তিন বিচারপতির বেঞ্চে এই মামলার শুনানি হয়েছে।

পাশাপাশি শীর্ষ আদালতের পরামর্শ,’প্রয়োজনে টাস্ক ফোর্স গঠন করে দূষণ নিয়ন্ত্রণে গৃহীত নির্দেশগুলো কার্যকর করা যেতে পারে।’

বায়ু দূষণের কারণে দিল্লিতে অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ করা হয়েছিল শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। সোমবার অর্থাৎ ২৯ নভেম্বর থেকে সেই রাজ্যে ফের খুলছে স্কুল-কলেজ। বুধবার এই ঘোষণা করেন পরিবেশমন্ত্রী গোপাল রাই। ১৩ নভেম্বর স্কুল-কলেজ-পাঠাগার বন্ধের নির্দেশ দেন মুখ্যমন্ত্রী অরবিন্দ কেজরিওয়াল। তবে চালু ছিল অনলাইন ক্লাস।

কিন্তু দুই সপ্তাহ বাদে ফের স্কুলে ফিরবে পড়ুয়ারা। এদিকে, সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশের পর রাজ্য সরকার কর্মীদের জন্য ওয়ার্ক ফ্রম হোম চালু করেছিল। সোমবার থেকে ফের অফিসে আসতে বলা হয়েছে সরকারি কর্মীদের। তবে সরকারি আবেদন, অফিস কিংবা কর্মক্ষেত্রে যাতায়াতে যত বেশি সম্ভব গণপরিবহণ ব্যবহার করুক দিল্লিবাসী।

প্রায় দুই সপ্তাহ সেই রাজ্যে একাধিক কর্মকাণ্ড বন্ধ থাকলেও, এখনও খারাপ অবস্থায় দূষণ মাত্রা। এমনটাই মৌসম ভবন সূত্রে খবর। এদিকে, দিল্লি দূষণ নিয়ে কেন্দ্রের ঢিমেতাল নীতির সমালোচনায় সরব সুপ্রিম কোর্ট। এদিন ১৭ বছরের এক পড়ুয়া আদিত্য দুবের দায়ের মামলার শুনানি ছিল শীর্ষ আদালতে।

এই শুনানিতে প্রধান বিচারপতি এনভি রামান্নার বেঞ্চ কটাক্ষের সুরে বলেন, ‘দেখুন তো এটা জাতীয় রাজধানী। দূষণ নিয়ে কী বার্তা আমরা পাঠাচ্ছি বিশ্বের কাছে। অনুমান থেকেই আপনারা বায়ু দূষণ রোধে পর্যাপ্ত ব্যবস্থা নিতে পারতেন। বাতাসের অবস্থা যখন খারাপ তখন আপনারা নড়েচড়ে বসলেন।‘ এমন সমালোচনার সুর শোনা গিয়েছে বিচারপতি ডিওয়াই চন্দ্রচূড়ের গলায়।

পাশাপাশি সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশ, ‘মৌসম ভবনের সঙ্গে কথা বলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিন। বাতাসের দূষণ মাত্রা যতক্ষণ না ১০০-র নীচে নামছে, কড়াকড়ি কার্যকর থাকুক দিল্লিতে।‘ অপরদিকে, দিল্লি এবং সংলগ্ন এলাকায় দূষণ রোধে ২১ নভেম্বর পর্যন্ত ডেডলাইন বেঁধে দিয়েছিল সুপ্রিম কোর্ট। তারপর দূষণ রোধে প্রশাসনকে সক্রিয় হতে কড়া পদক্ষেপ নেবে শীর্ষ আদালত। এভাবেই কেন্দ্র এবং দিল্লি সরকারকে হুঁশিয়ারি দিয়েছিল প্রধান বিচারপতির নেতৃত্বাধীন বেঞ্চ। সাম্প্রতিক শুনানিতে সলিসিটর জেনারেল তুষার মেহেতা প্রশ্ন করেন, ‘আমরা কি ২১ নভেম্বর পর্যন্ত অপেক্ষা করতে পারি। এয়ার কোয়ালিটি ম্যানেজমেন্ট পূর্বাভাস দিয়েছে আগামি দু-তিন দিনের মধ্যে হাওয়ার গতি বদলাবে। ততদিনে কিছুটা নিয়ন্ত্রিত হবে দূষণ পরিস্থিতি।‘

ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস বাংলা এখন টেলিগ্রামে, পড়তে থাকুন

Get the latest Bengali news and General news here. You can also read all the General news by following us on Twitter, Facebook and Telegram.

Web Title: Sc snubs ncr states for not implementing pollution measure national

Next Story
হিংসার শিকার হয়েও মুখে কুলুপ দেশের ১১ রাজ্যের ৭০ শতাংশের বেশি মহিলার: সমীক্ষা
Show comments