UN নিরাপত্তা পরিষদের সভাপতিত্ব পেয়েই 'গণতন্ত্র' প্রসঙ্গে শক্তিশালী জবাব ভারতের :We don’t need to be told what to do on democracy: India’s Permanent Representative to the UN Amb Kamboj | Indian Express Bangla

গণতন্ত্রে কী করা দরকার, তা আমাদের জানা! রাষ্ট্রসংঘে সাফ জবাব ভারতের

UN নিরাপত্তা পরিষদের সভাপতিত্ব পেয়েই ‘গণতন্ত্র’ প্রসঙ্গে শক্তিশালী জবাব ভারতের

গণতন্ত্রে কী করা দরকার, তা আমাদের জানা! রাষ্ট্রসংঘে সাফ জবাব ভারতের

একমাসের জন্য জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদের বৈঠকে সভাপতিত্ব করার দায়িত্ব পেল ভারত। যেখানে ভারতের প্রথম অগ্রাধিকার হবে সন্ত্রাসবাদের বিরুদ্ধে লড়াই এবং বহুপাক্ষিকতাকে উন্নীত করা। এই উপলক্ষ্যে জাতিসংঘে ভারতের স্থায়ী রাষ্ট্রদূত রুচিরা কাম্বোজ জানিয়েছেন ভারত কোন কোন বিষয়ে এগিয়ে যেতে চায়।

তিনি বলেন, গণতন্ত্র নিয়ে ভারতকে কী করতে হবে তা কারও কাছ থেকে শেখার দরকার নেই। পুরো ডিসেম্বর মাসের জন্য রুচিরা কম্বোজ ইউএনএসসির চেয়ারম্যানের দায়িত্ব নেবেন। রুচিরা বৃহস্পতিবার সাংবাদিক বৈঠকও করেন। সেখানেই তাকে ভারতের গণতন্ত্র, সংবাদমাধ্যমের স্বাধীনতা নিয়ে প্রশ্ন করা হয়।

রুচিরা বলেন, ”আমাদের গণতন্ত্র নিয়ে কিছু বলার দরকার নেই। ভারত বিশ্বের অন্যতম প্রাচীন গণতান্ত্রিক দেশ। আমরা বরাবর গণতন্ত্রে বিশ্বাস রেখেছি। ভারতে্র গণতন্ত্রের শিকড় আড়াই হাজার বছরের পুরনো।” রুচিরার দাবি, ”ভারতে গণতন্ত্রের সবকটি স্তম্ভ অটুট। আইনসভা, প্রশাসন, বিচারবিভাগ ও সংবাদমাধ্যম সকলেই স্বাধীনভাবে কাজ করে। সেই সঙ্গে আমাদের একটা শক্তিশালী সামাজিক মাধ্যম আছে।” রুচিরা জানিয়েছেন, ”প্রতি পাঁচ বছরে আমরা বিশ্বের সবচেয়ে বড় ভোটপর্ব সাফল্যের সঙ্গে আয়োজন করি। প্রত্যেকে তাদের ইচ্ছেমতো মতপ্রকাশের সুযোগ পান। এভাবেই আমাদের গণতন্ত্র চলে। এটা আমার আমার কথা নয়, অন্যরা বলছেন।”

গণতন্ত্র এবং বাকস্বাধীনতা সম্পর্কে উত্তর
দায়িত্ব গ্রহণের প্রথম দিনে জাতিসংঘ সদর দফতরে সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলেন রুচিরা কম্বোজ। যেখানে তিনি জানান আগামী এক মাসে ভারত কীভাবে কাজ করবে এবং ভারতের মূল এজেন্ডা কী হবে। এই সময় কাম্বোজকে ভারতে গণতন্ত্র এবং বাকস্বাধীনতা সম্পর্কে জিজ্ঞাসা করা হলে তিনি বলেন, “গণতন্ত্র কীভাবে পরিচালনা করা উচিৎ , তা ভারতের অন্য কারুর কাছ থেকে শেখার দরকার নেই।” তিনি আরও বলেন, “আপনারা সবাই জানেন যে ভারত বিশ্বের অন্যতম প্রাচীন সভ্যতা। ভারতে গণতন্ত্রের শিকড় ছিল আড়াই হাজার বছর আগে। আমরা যদি বর্তমান যুগের কথা বলি, তাহলে আমাদের গণতন্ত্রের সবকটি স্তম্ভ শক্তভাবে দাঁড়িয়ে আছে। যার মধ্যে আইনসভা, প্রশাসন বিভাগ, বিচার বিভাগ এবং চতুর্থ স্তম্ভ হল মিডিয়া। এর বাইরে সোশ্যাল মিডিয়া তো আছেই। এই কারণেই ভারত বিশ্বের বৃহত্তম গণতন্ত্র।

ভারতীয় রাষ্ট্রদূত আরও বলেন, ভারত সর্বদা বিশ্বকে সাহায্য করার জন্য পাশে থেকেছে। তিনি বলেন, গত ২ বছরে যখন বিশ্ব একটি সংকটের মধ্য দিয়ে যাচ্ছিল, ভারত সর্বদা সাহায্য এবং সমাধানের পথ খোঁজার চেষ্টা করেছে। ভারত যেমন অতিমারী পরিস্থিতিতে গোটা বিশ্বকে সাহায্য’র হাত বাড়িয়ে দিয়েছেল ঠিক একইভাবে ভারত অন্যান্য বিষয়েও বিশ্বের শীর্ষ আসনে নিজের জায়গা তৈরি করতে প্রস্তুত।

এক মাসের জন্য ভারতের সভাপতিত্ব
ভারত ইউএনএসসির চেয়ারম্যান পদ পাওয়ার বিষয়ে, বিদেশ মন্ত্রক এক বিবৃতিতে বলেছে, “ভারত আজ এক মাসের জন্য ইউএনএসসির সভাপতিত্ব গ্রহণ করেছে। দুই বছরের মধ্যে এই দ্বিতীয়বার ভারত ইউএনএসসির মাসিক সভাপতিত্ব পেল। শেষবার ভারত ২০২১ সালের আগস্টে রাষ্ট্রসংঘের নিরাপত্তা পরিষদের মাসিক সভাপতিত্ব পেয়েছিল।”

Stay updated with the latest news headlines and all the latest General news download Indian Express Bengali App.

Web Title: We dont need to be told what to do on democracy indias permanent representative to the un amb kamboj

Next Story
জালে ‘মাস্টারমাইন্ড’! আমেরিকায় আটক গোল্ডি ব্রার, সিধু মুসেওয়ালা খুনে বিরাট সাফল্য