বড় খবর

রান্নাঘরে অলিভ অয়েল আছে তো? তাহলে বানিয়ে ফেলুন সুস্বাদু খাবার চটজলদি!

অলিভ অয়েল কোলেস্টেরল কমাতে, হার্ট ভালও রাখতে, ইমিউনিটি বাড়াতে এবং যাতে সহজে হজম হয় সেই দিকেও সাহায্য করে।

অলিভ অয়েল কোলেস্টেরল কমাতে, হার্ট ভালও রাখতে, ইমিউনিটি বাড়াতে এবং যাতে সহজে হজম হয় সেই দিকেও সাহায্য করে।

গত দুই বছর ধরে বাড়ি বসেই দিন কাটছে সবার। খাওয়াদাওয়ায় লাগাম পড়েছে কিনা জানা নেই, তবে প্রতিদিনের রুটিনে দাড়ি কমা অবশ্যই পড়েছে। রাস্তায় বেরনো প্রায় বন্ধ। তার সঙ্গে বডি অ্যাক্টিভিটি মর্নিং ওয়াক সবেতেই ছেদ পড়েছে। অতিরিক্ত তেল ঝাল যুক্ত খাবারে এখন বেশিরভাগ মানুষের অম্বল, হজমে সমস্যা লেগেই আছে।

তবে, প্রতিদিনের সর্ষের তেল আর সাদা তেল ছেড়ে অলিভ ওয়েল ট্রাই করলে কিন্তু তা শরীরের পক্ষে বেশ ভালও। আগে সাধারণত অলিভ ওয়েল কেক বানাতে, নানান রকম স্যালাড বানাতে এবং কন্টিনেন্টাল খাবার বানাতে ব্যবহার করা হত তবে এখন কিন্তু প্রতিদিনের খাবারে এটি অবশ্যই ব্যবহার করা উচিত। শুধু তাই নয়, অলিভ অয়েল কোলেস্টেরল কমাতে, হার্ট ভালও রাখতে, ইমিউনিটি বাড়াতে এবং যাতে সহজে হজম হয় সেই দিকেও সাহায্য করে। অলিভ অয়েল কী কী ভাবে শরীরের সুস্থতায় সহায়ক সেই নিয়ে তথ্যের অনেক অভাব আছে। এটি ভীষণ সুন্দর গন্ধযুক্ত এবং ওজনও বেশ হালকা। খুব বেশি মাত্রায় তাপ এটি সহ্য করতে পারে না, সেই কারণেই মূলত শীতকালীন সময়েই এর জন্য এক্কেবারে পারফেক্ট। এটি কাঁচা ব্যবহার করলে সবথেকে বেশি মাত্রায় উপযুক্ত।

জলপাই থেকে তেল বের করার পর যে অংশটি অবশিষ্ট থাকে তাকে অলিভ পোমেস বলে। যদিও বা এই অলিভ পোমেস নিয়ে অনেক ধরনের গল্পকথা বেশ কিছু রান্নাঘরে ঘুরে বেড়াতে দেখা যায়, তার মধ্যে কয়েকটি;

আরও পড়ুন একঘেয়েমি ছেড়ে বৃষ্টির মরশুমে কিছু হেলদি খাবার হয়ে যাক? ঝটপট জেনে নিন রেসিপি

১. অলিভ পোমেস অয়েল স্বাস্থ্যকর নয়? আদৌ এটি সত্যি? এটি ৮০% মনোঅনস্যাচুরেটেড যা কোলেস্টেরলের মাত্রা কমাতে পারে। মনোঅনস্যাচুরেটেড ফ্যাট হল অ্যাভোকাডো এবং নির্দিষ্ট বাদামে পাওয়া অন্যান্য জলপাই তেলের মতো ফ্যাটি অ্যাসিড যা একটি স্বাস্থ্যকর চর্বি হিসেবে কাজ করে। এটি অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট সমৃদ্ধ যা হৃদরোগের উন্নতি করে এবং জীবনযাত্রার অনেক রোগ প্রতিরোধ করে। আজকের উন্নত কৌশলগুলিকে কাজে লাগিয়ে অলিভ পোমেস অয়েল হাড়ের ঘনত্ব এবং স্বাস্থ্যের জন্য ভিটামিন কে-র মাধ্যমে ভাল অনাক্রম্যতা এবং টিস্যু মেরামতের জন্য ভিটামিন ই-র অতিরিক্ত সুবিধা নিয়ে আসে।

২. অলিভ পোমেস তেল তাপ সহ্য করতে পারে না? এই প্রসঙ্গে বলতে গেলে এক্সট্রা ভার্জিন অলিভ অয়েল এমন একটি বৈকল্পিক যা তাপ সহ্য করতে পারে না। তবে জলপাই পোমেস তেলের ( অলিভ পোমেস অয়েল ) উচ্চ তাপ সহনশীলতা রয়েছে এবং এটি সত্ত্বেও এর কোনও পুষ্টি হারায় না। অতএব, এটি সমস্ত রান্নার উদ্দেশ্যে আদর্শ।

৩. ভাজাভুজি রান্নায় এর ব্যবহার করা উচিত নয়? শুধু ভাজাভুজি নয়, এর মধ্যে বেশ স্মোকি একটা ফ্লেভার আছে, যেটি সহজেই ফ্রাই করার ক্ষেত্রে উপযুক্ত তার সঙ্গে এটি পরিমাণে কম লাগে এবং স্বাস্থের পক্ষেও ক্ষতিকর নয়।

৪. অলিভ পোমেস অয়েল স্বাদে ভালও নয়? এক্সট্রা ভার্জিন অলিভ অয়েল স্বাদে খুব একটা স্বতন্ত্র নয় বা এর গন্ধও অনেকের সহ্য হয় না। কিন্তু অলিভ পোমেস অয়েল স্বাদে বেশ নিরপেক্ষ এবং অন্যান্য তেলের মত খাবারের স্বাদ পরিবর্তন করে না।

তাই অলিভ অয়েল কিন্তু আপনার রান্নাঘরে থাকা অবশ্যই উচিত। নিজেকে সুস্থ রাখতে আর হেলদি খাবার খেতে কিচেন সেলফে অলিভ অয়েল মাস্ট।

ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস বাংলা এখন টেলিগ্রামে, পড়তে থাকুন

Get the latest Bengali news and Lifestyle news here. You can also read all the Lifestyle news by following us on Twitter, Facebook and Telegram.

Web Title: Heres why indian kitchens need olive pomace oil

Next Story
মুখগহ্বরের সমস্যায় ডায়াবেটিস কি ভীষণ মাত্রায় ক্ষতিকর? উপকার পাবেন কী করে!
The moderation of comments is automated and not cleared manually by bengali.indianexpress.com