scorecardresearch

বড় খবর

রুকমা দাক্ষীর রান্না বিলাস: চিন দেশের ভিন স্বাদ

ছোট থেকে বড়, সকলেরই পছন্দের খাবার চাইনিজ। তাই এবার আপনাদের জন্য রাখলাম প্রতিবেশী দেশের চেনা কুইজিন থেকে কিছু অচেনা স্বাদ।

রুকমা দাক্ষীর রান্না বিলাস: চিন দেশের ভিন স্বাদ
প্রতীকী ছবি। অলঙ্করণ: অভিজিৎ বিশ্বাস

ইলেকট্রনিক্স হোক অথবা খেলনা, হেয়ার কাট কিংবা খাবার – চিনদেশের প্রভাব কিন্তু বাঙালির রন্ধ্রে রন্ধ্রে। বিশেষ করে চিনা খাবার স্বাদে দারুণ অথচ তেলমশলা কম। ছোট থেকে বড়, সকলেরই পছন্দের খাবার চাইনিজ। তাই এবার আপনাদের জন্য রাখলাম প্রতিবেশী দেশের চেনা কুইজিন থেকে কিছু অচেনা স্বাদ।

চিকেন ইন ব্ল্য়াক বিন সস

চিকেন তো অনেক ধরনের উপকরণ দিয়েই রান্না করা যায়। এই রেসিপি স্পেশাল ব্ল্যাক বিন সসের জন্যেই। এই সসটি বাড়িতেও তৈরি করা যায়, কিন্তু বাজারে এখন এই ধরনের সব সসই পাওয়া যায় যথেষ্ট কম দামে। তাই আজকের গতিময় জীবনে বাড়িতে এই সস বানানোর ঝক্কি না নিয়ে কিনে নেওয়াই ভাল। এছাড়া চাইনিজ কুকিং ওয়াইন ব্য়বহার করা হয় এই রেসিপিতে। বিভিন্ন ধরনের কুকিং ওয়াইন হয়, তার মধ্য়ে এই ওয়াইনটি তৈরি হয় ভাত থেকেই। চাইনিজ খাবারের স্বাদ যে এত মুখে লেগে থাকে, তার পিছনে কিন্তু এই কুকিং ওয়াইনের একটা বড় ভূমিকা রয়েছে। বেশিরভাগ অথেন্টিক চাইনিজ রেস্তোরাঁই স্টার ফ্রাই সস থেকে স্যুপ ব্রথ, ম্য়ারিনেড থেকে ওয়ানটন, সবকিছুতেই ব্য়বহার করে এই ওয়াইন। এটিও আজকাল যে কোনও বড় সুপারমার্কেটে পাওয়া যায়।

আরও পড়ুন: রুকমা দাক্ষীর রান্না বিলাস: বর্ষা ও খিচুড়ি

উপকরণ

বোনলেস চিকেন স্লাইস – ৬০০ (পায়ের অংশ)
লাল, হলুদ, সবুজ বেল পেপার (ক্যাপসিকাম) – ১ কাপ (কিউব করা)
রসুনকুচি – ২ টেবিল চামচ
কাঁচালঙ্কা কুচি – ২ চা-চামচ
ভেজিটেবল অয়েল – ৩ টেবিল চামচ
ম্য়াগি চিকেন কিউব – ৩ টি
চিনি – ১ চা-চামচ
চাইনিজ কুকিং ওয়াইন – ৪ টেবিল চামচ
নুন – স্বাদমতো
ব্ল্যাক বিন সস – ৩ টেবিল চামচ
কর্নফ্লাওয়ার – ২ চা-চামচ

প্রণালী

কড়াইতে তেল গরম করে চিকেন নরম হওয়া পর্যন্ত সাঁতলে নিন। এইবার চিকেন স্লাইস তুলে নিয়ে ওই তেলেই রসুন, কাঁচালঙ্কা ও বেল পেপার দিন। চাইনিজ ওয়াইন, নুন, চিনি, ব্ল্যাকবিন সস, চিকেন কিউব দিয়ে একটু নাড়াচাড়া করে, স্লাইস করে ভেজে রাখা চিকেন দিন। ইচ্ছা হলে ১ চা-চামচ কর্নফ্লাওয়ার ৪ টেবিল চামচ জলে গুলে মিশিয়ে ঢেলে দিন। বেশ গাঢ় হয়ে এলে সার্ভিং ডিশে ঢেলে সার্ভ করুন।

প্রতীকী ছবি

ল্যানজাউ বাসা

দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ায় খুবই প্রচলিত মাছ বাসা। পশ্চিমী দেশের ‘কড’ (cod) অথবা ‘হ্যাডক’ (haddock) মাছের একটি কমদামী বিকল্প বলা যায়। সেই কারণেই পশ্চিমী দেশগুলিতে এই মাছ প্রচুর পরিমাণে রপতানি করা হয় দক্ষিণ পূর্ব এশিয়ার দেশগুলি থেকে। বাসা হল এক ধরনের ক্য়াটফিশ। মূলত মেকং ও চাও ফ্রায়া নদীতেই এই মাছের ঝাঁক বেশি দেখতে পাওয়া যায়। বাসা মাছে ক্য়ালোরি কম এবং প্রোটিন বেশি। ১২৬ গ্রাম বাসা মাছে থাকে মোট ১৫৮ ক্যালোরি, ২২.৫ গ্রাম প্রোটিন. ৭ গ্রাম ফ্যাট, ২ গ্রাম স্যাচুরেটেড ফ্য়াট, ৭৩ মিলিগ্রাম কোলেস্টেরল এবং ৮৯ গ্রাম সোডিয়াম। লো-ক্যালোরি এবং হাই প্রোটিন থাকার জন্য়েই যাঁরা ডায়েটিং করেন, তাঁদের মধ্য়ে এই মাছ খুবই জনপ্রিয়।

উপকরণ

বাসা মাছ – ২৫০ (স্লাইস করা)
পেঁয়াজ ডাইস করে কাটা – ১ টি
ক্যাপসিকাম ডাইস করা – ৮-১০ টুকরো
কুচোনো পেঁয়াজ কলি (স্প্রিং অনিয়ন) – ২ টেবিল চামচ
কাঁচালঙ্কা কুচি – ২ চা-চামচ
সাদা তেল – ৫০ মিলিলিটার
চিকেন ব্রথ – ৪ টেবিল চামচ
চিলি সস – ১ টেবিল চামচ
অয়েস্টার সস – ২ টেবিল চামচ
লাইট সয়া সস – ১ চা-চামচ
চিনি – ১/২ চা-চামচ
নুন – সামান্য (কারণ সসের মধ্য়ে নুন থাকে)
আদা কুচি – ১ টেবিল চামচ

প্রণালী

মাছ, নুন ও চিকেন ব্রথ দিয়ে ম্য়ারিনেট করে রাখুন। ১০ মিনিট ম্যারিনেট করার পর মাছগুলো ভাল করে ভেজে তুলুন। বাড়তি তেল ঝরিয়ে নিন। এইবার কড়াইতে আদা, পেঁয়াজ, চাইনিজ ওয়াইন ও বাকি মাছগুলো দিন। বেশ মাখো মাখো হলে পেঁয়াজ কলি কুচোনো ছড়িয়ে নামিয়ে নিন।

Stay updated with the latest news headlines and all the latest Lifestyle news download Indian Express Bengali App.

Web Title: Ranna bilas rukma dakshy cookery special chicken black bean sauce basa fish