জঙ্গীপুরে অভিষেকের উপস্থিতিতে তৃণমূলে ৫ বারের কংগ্রেস বিধায়ক

কংগ্রেস গড় হিসেবে পরিচিত মুর্শিদাবাদ এবং মালদা একুশের বিধানসভা ভোটে এবার হাত শিবিরকে হতাশ করেছে।

Moinul Hak in TMC
ফাইল ছবি।

Bengal Poll 2021: দিন কয়েক আগেই সনিয়া গান্ধি আর অধীর চৌধুরীকে চিঠি দিয়ে দল থেকে ইস্তফা দিয়েছেন মইনুল হক। ফারাক্কার ৫ বারের বিধায়কের এই আচরণে খানিকটা অবাক হয়েছিল হাত শিবির। বরাবর অধীর ঘনিষ্ঠ নেতা হিসেবে পরিচিত মইনুল হক এবার যোগ দিলেন তৃণমূলে। বৃহস্পতিবার দলের সাংসদ অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের উপস্থিতিতে জঙ্গিপুরে ঘাসফুলে যোগ দেন ফারক্কার প্রাক্তন বিধায়ক। সেই অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন এলাকার প্রাক্তন সাংসদ তথা প্রণব-পুত্র অভিজিৎ মুখোপাধ্যায়ও।

কংগ্রেস গড় হিসেবে পরিচিত মুর্শিদাবাদ এবং মালদা একুশের বিধানসভা ভোটে এবার হাত শিবিরকে হতাশ করেছে। এই দুই জেলায় খাতা খুলতে পারেনি অধীর চৌধুরীর দল। ফলে ৫ বারের বিধায়ক হয়েও একুশের ভোটে ফারাক্কায় হেরেছেন মইনুল হক। এদিন জঙ্গিপুর বিধানসভা আসনের ভোট প্রচারে এসে সেই প্রসঙ্গ উত্থাপন করেছেন তৃণমূলের সর্বভারতীয় সাধারণ সম্পাদক।

জঙ্গীপুরে ভোট প্রচারে তৃণমূল প্রার্থীর সমর্থনে তিনি বলেছেন, ‘মানুষের আশীর্বাদে ভাঙা পায়ে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ১৩টি আসন পেয়েছে। বাংলা থেকে বহিরাগতদের দিল্লি পাঠানো হয়েছে। অগ্রণী ভূমিকা পালন করেছে মালদা এবং মুর্শিদাবাদ। বাঁকি দুটি আসন সামশেরগঞ্জ এবং জঙ্গিপুরে লক্ষাধিক আসনে জেতাতে হবে তৃণমূল প্রার্থীদের তাহলেই ষোল কলা পূর্ণ হবে।‘

এদিন সিপিএম-কংগ্রেস জোটকে কটাক্ষ করেছেন অভিষেক। তিনি বলেন, ‘কী অবস্থা দুটি দল শূন্য হয়ে গিয়েছে। ২০১৬ সালে নীতি-আদর্শ বিসর্জন দিয়ে একবার জোট করেছিল। আর এবার যখন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বিজেপির সঙ্গে লড়ছে তখন বিজেপিকে সুবিধা করে দিয়ে ভোট কাটতে একটা সাম্প্রদায়িক দলের সঙ্গে জোট গড়ল তারা। মানুষ যোগ্য জবাব দিয়ে শূন্য করে দিয়েছে।‘  

এদিকে, এরাজ্যে বিধানসভা নির্বাচনের ফল বেরনোর পর তৃণমূলে যোগ দিয়েছেন বিজেপির সর্বভারতীয় সহ-সভাপতি ও কৃষ্ণনগর উত্তরের বিধায়ক মুকুল রায়। তারপর একে একে আরও তিন বিধায়ক বিজেপি ছেড়ে ঘাসফুল শিবিরে ভিড়েছেন। সম্প্রতি সবাইকে অবাক করে আসানসোলের সাংসদ বাবুল সুপ্রিয়ও তৃণমূল কংগ্রেসে যোগ দিয়েছেন। বৃহস্পতিবার মুর্শিদাবাদের সামসেরগঞ্জে দলীয় প্রার্থী আমিরুল ইসলামের প্রচারে গিয়ে তৃণমূলের সর্বভারতীয় সাধারণ সম্পাদক অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, ‘দরজা বন্ধ করে রেখেছি। তা নাহলে এরাজ্য থেকে বিজেপি পার্টিটাই উঠে যেত।’

ভবানীপুর কেন্দ্রে উপনির্বাচনের সঙ্গে এরাজ্যে বাকি থাকা দুই বিধানসভা কেন্দ্রেও ৩০ সেপ্টেম্বর নির্বাচন হবে। এদিন সামসেরগঞ্জে নির্বাচনী জনসভায় অভিষেক স্পষ্ট জানিয়ে দেন, বিজেপির সঙ্গে একমাত্র তৃণমূল কংগ্রেসই লড়াই করে জিততে পারে।

ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস বাংলা এখন টেলিগ্রামে, পড়তে থাকুন

Get the latest Bengali news and Politics news here. You can also read all the Politics news by following us on Twitter, Facebook and Telegram.

Web Title: 5 times congress mla joins tmc in presence of mp abhishek banerjee state

Next Story
‘দরজা খোলা রাখলে রাজ্য থেকে বিজেপি দলটাই উঠে যাবে’, হুঁশিয়ারি অভিষেকের
Show comments