scorecardresearch

বড় খবর

পিছিয়ে পড়া দেশবাসীর জন্য দুর্বল প্রধানমন্ত্রী ও বহুদলীয় সরকার গড়ুন, আহ্বান ওয়াইসির

মিম নেতার অভিযোগ, একজন শক্তিশালী প্রধানমন্ত্রী কেবলমাত্র ক্ষমতাবানদেরই সাহায্য করেন।

পিছিয়ে পড়া দেশবাসীর জন্য দুর্বল প্রধানমন্ত্রী ও বহুদলীয় সরকার গড়ুন, আহ্বান ওয়াইসির
আসাদউদ্দিন ওয়াইসি

ভারতীয় সমাজে দুর্বল এবং পিছিয়ে পড়া নাগরিকদের উন্নতির জন্য দুর্বল প্রধানমন্ত্রীই চাই। আর দরকার বহুদলীয় সরকার। যাতে সমাজের সর্বস্তরে উন্নতির ছোঁয়া পৌঁছয়। শনিবার এমনটাই জানিয়েছেন অল ইন্ডিয়া মজলিস-ই ইত্তেহাদুল মুসলেমিন (এআইএমআইএম) সংগঠনের প্রধান আসাদউদ্দিন ওয়াইসি। সাংবাদিক বৈঠকে তিনি জানান, একজন শক্তিশালী প্রধানমন্ত্রী ক্ষমতাবানদেরই সাহায্য করেন। তাই দুর্বল প্রধানমন্ত্রীরই বেশি করে দরকার।

বিজেপির পাশাপাশি এআইএমআইএম প্রধান আম আদমি পার্টি (আপ) কেও একহাত নিয়েছেন। ওয়াইসির কথায়, গুজরাটের ক্ষমতাসীন ভারতীয় জনতা পার্টি (বিজেপি) থেকে আপ মোটেও আলাদা নয়। কারণ, বিলকিস বানো মামলায় দোষীদের বিতর্কিত মুক্তির পরও আপ নেতৃত্ব চুপ করে ছিলেন। ডিসেম্বরে হওয়ার কথা গুজরাট বিধানসভা নির্বাচন। সেখানে প্রার্থী দেবে এআইএমআইএম।

প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীকে একহাত নিয়ে এআইএমআইএম প্রধান বলেন, ‘জওহরলাল নেহরুর পরে সবচেয়ে শক্তিশালী প্রধানমন্ত্রী যখন বেকারত্ব, মুদ্রাস্ফীতি, চিনা অনুপ্রবেশ এবং শিল্পপতিদের কর্পোরেট ট্যাক্স ও ব্যাংকঋণ মকুবের বিষয়ে প্রশ্ন করা হয়েছিল, সেই সময় ব্যবস্থাকে দোষারোপ করেছিলেন। তাই আমি বিশ্বাস করি দেশের এখন একজন দুর্বল প্রধানমন্ত্রীই দরকার। আমরা একজন শক্তিশালী প্রধানমন্ত্রী দেখেছি। এখন আমাদের একজন দুর্বল প্রধানমন্ত্রী দরকার, যাতে তিনি দুর্বলদের সাহায্য করতে পারেন। একজন শক্তিশালী প্রধানমন্ত্রী তো কেবল শক্তিশালীদেরকেই সাহায্য করছেন।’

ওয়াইসির মতে, দুর্বল প্রধানমন্ত্রীর জন্য দেশের একটি বহুদলীয় সরকারও দরকার। একটি রংধনু জোটের মত। যেখানে বিভিন্ন শব্দ, ভিন্ন স্বাদের আস্বাদ পাওয়া যাবে। ওয়াইসি বলেন, ‘দুর্বল কেউ প্রধানমন্ত্রী হলে দুর্বলরা উপকৃত হবেন। একজন শক্তিশালী ব্যক্তি প্রধানমন্ত্রী হলে শক্তিশালীদের যেমন লাভ, তেমনই একজন দুর্বল ব্যক্তি প্রধানমন্ত্রী হলে দুর্বলদের লাভ। ২০২৪ সালের নির্বাচনে তাই আমাদের দুর্বল প্রধানমন্ত্রীকে কুর্সিতে বসানোর জন্য চেষ্টা করা উচিত। দেখা যাক, শেষ পর্যন্ত কী হয়।’

আরও পড়ুন- কীভাবে ‘গড সেভ দ্য কিং’ ব্রিটেনের জাতীয় সংগীত হয়ে উঠল?

‘রেবদি’ বা (ফ্রিবি) রাজনীতি প্রসঙ্গে ওয়াইসি বলেন, ‘যাকে অনেকে রেবদি বা ফ্রিবি বলছেন, তা সবাই দিচ্ছে। প্রধানমন্ত্রী শিল্পপতিদের কর্পোরেট ট্যাক্স ও ঋণ মকুব করছেন। আপও বিজেপির থেকে আলাদা নয়। দুজনেই একই কথা বলে। বিলকিস বানোর বিষয়ে আপ একটিও কথা বলেনি।’ বিহারের মুখ্যমন্ত্রী নীতীশ কুমারকে ২০২৪-এর জন্য বিরোধীদের প্রধানমন্ত্রী পদপ্রার্থী হিসাবে অনেকে প্রোজেক্ট করার চেষ্টা করছেন। এই ব্যাপারে ওয়াইসি বলেন, ‘বিরোধীরা কোনও মুখকে সামনে রেখে মোদীর বিরুদ্ধে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করলে, বিজেপিই উপকৃত হবে। বদলে, আমাদের সকলকে একসঙ্গে সমস্ত লোকসভা আসনে বিজেপির বিরুদ্ধে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করতে হবে।’

নীতীশ কুমারের ওপর যে তাঁর বিশেষ ভরসা নেই, সেকথা বুঝিয়ে দেন ওয়াইসি। তিনি বলেন, ‘নীতীশ কুমার ২০০২ সালে গুজরাট দাঙ্গার সময় বিজেপির মিত্র ছিলেন। তিনি গেরুয়া দলের সঙ্গে সরকার গঠন করেছিলেন। এখন তিনি অন্য কারও সঙ্গে হাত মিলিয়েছেন।’ তাই তাঁকে নিয়ে আলাদা করে উচ্ছ্বসিত হওয়ার কিছু নেই।

Read full story in English

Stay updated with the latest news headlines and all the latest Politics news download Indian Express Bengali App.

Web Title: India needs weak pm and khichdi govt