জমি বিতর্কে অমিত শাহ, মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সভা

জমির মালিকদের বক্তব্য, এমনটা যে হবে তা প্রশাসন আগে থেকে জানায়নি। তবে তাঁদের ক্ষতিপূরণ দেওয়া হবে বলে স্থানীয় স্তরে আশ্বাস দেওয়া হয়েছে বলে খবর।

By: Kolkata  Updated: January 29, 2019, 11:04:27 AM

রাজ্য রাজনীতিতে এক নয়া ইস্যু সামনে এসেছে। জমি ইস্যু। রাজনীতিকদের পায়ের তলার জমি। তবে এ কোনও আলঙ্কারিক অর্থে নয়, আক্ষরিক অর্থেই।

ইস্যুটা সামনে এসেছিল মালদায় অমিত শাহের সভার আয়োজন নিয়ে। অমিত শাহের সভার জমি দিয়েছিলেন এক সিপিএম কর্মী। সে নিয়ে রাম-বাম জোটের অভিযোগ তুলেছিল তৃণমূল কংগ্রেস। শেষ পর্যন্ত টালবাহানা হলেও সভা হয়েছিল ঠিকই।

আরও পড়ুন, মৌসম বদল, হাত ছেড়ে জোড়াফুলে গণিখানের ভাগনি

কিন্তু কাঁথিতে অমিত শাহের সভা নিয়ে ফের টানাপোড়েন। সে সভাও হওয়ার কথা ছিল কৃষকদের দেওয়া জমিতে। কিন্তু বৈঠকের আগে কৃষকরা বেঁকে বসেন।

অমিত শাহের জনসভার জন্য কাঁথি রেলস্টেশন সংলগ্ন একটি চাষের জমি নির্বাচন করেন বিজেপি-র জেলা নেতৃত্ব। ওই জমিতে জনসভা করার জন্য চাষিদের নির্দিষ্ট ক্ষতিপূরণ দিয়ে অনুমতি গ্রহণ করে বিজেপি নেতৃত্ব। চাষিদের কাছ থেকে অনুমতি গ্রহণের পর প্রস্তুতিপর্ব সব ঠিকঠাকই চলছিল। কিন্তু রবিবার রাতে চিত্রটার কিছুটা বদল হয়। কৃষকদের মধ্যে কয়েকজন জমি দেওয়ার কথা অস্বীকার করতে থাকেন।

এই ঘটনায় তৃণমূল শিবিরের দিকে অভিযোগের আঙুল তুলেছেন বিজেপি নেতৃত্ব। বিজেপি নেতা সায়ন্তন বসুর বক্তব্য, “যে জমিতে সভা হচ্ছে, সে জমির মালিকদের কোনও আপত্তিই নেই। পাশের জমির কৃষকরা এসে আপত্তি তুলেছেন।” তাঁর অভিযোগ, “তৃণমূল নেতারাই কৃষকদের ওপর জোর খাটিয়ে এসব বলতে বাধ্য করেছেন।” সোমবার এই নিয়েই পূর্ব মেদিনীপুর জেলা জুড়ে চলতে থাকে ব্যাপক রাজনৈতিক চাপানউতোর।

তবে বিজেপি-অমিত শাহকে নিয়েই কেবল জমি সংকট, তেমনটা কিন্তু নয়। রাজ্যের শাসক দলও জমি রাজনীতির মুখে পড়েছে। বীরভূমের রামপুরহাটে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের  পরিষেবা প্রদানকারী সভা কৃষিজমির ওপর হচ্ছে বলে খবর। এ জন্য ৩০ একর কৃষিজমি নেওয়া হয়েছে।

rampurhat mamata meeting রামপুরহাটে মুখ্যমন্ত্রীর পরিষেবা প্রদানের সভার প্রস্তুতি চলছে পুরোদমে

অভিযোগ, সর্ষে খেত, ধানের বীজতলা – এসবই মেশিন দিয়ে উপড়ে দেওয়া হয়েছে। বালি ছিটিয়ে, রোলার চালিয়ে কৃষিজমিকে ক্রিকেট পিচের রূপ দেওয়া হয়েছে। জমির মালিকদের বক্তব্য, এমনটা যে হবে তা প্রশাসন আগে থেকে জানায়নি। তাঁদের ক্ষতিপূরণ দেওয়া হবে বলে স্থানীয় স্তরে আশ্বাস দেওয়া হয়েছে বলে খবর। কিন্তু সে আশ্বাস নিতান্তই মৌখিক হওয়ায় আশঙ্কা কাটছে না জমি মালিকদের।

রামপুরহাটে কৃষিজমির ওপর মুখ্যমন্ত্রীর সভা নিয়ে প্রতিবাদ জানিয়েছে সিপিআই (এম)। দলের নেতা সুজন চক্রবর্তী এ নিয়ে মুখ্যমন্ত্রীকে একটি চিঠি দিয়েছেন। ওই চিঠিতে অভিযোগ করা হয়েছে, এই সভার আয়োজনের ফলে, চাষের জমির চরিত্রগত পরিবর্তন ঘটানো হচ্ছে, যা বেআইনি। এ নিয়ে প্রশ্ন করা হলে সুজন চক্রবর্তী ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস বাংলা-কে জানান, “যারা চাষের জমি রক্ষা করার নাম করে কারখানা হতে দিল না, বাংলার সর্বনাশ করল, তারাই আজ কৃষিজমির সর্বনাশ করছে।” এ ব্যাপারে অভিযোগ জানিয়ে রামপুরহাটের মহকুমা শাসককে জমির মালিকদের তরফ থেকে চিঠি দেওয়া হয়েছে বলে জানা গিয়েছে। রাজ্যের পঞ্চায়েত মন্ত্রী সুব্রত মুখোপাধ্যায় অবশ্য এ সব অভিযোগ উড়িয়ে দিয়েছেন।

Get all the Latest Bengali News and West Bengal News at Indian Express Bangla. You can also catch all the Politics News in Bangla by following us on Twitter and Facebook

Web Title:

Land politics69450

The moderation of comments is automated and not cleared manually by bengali.indianexpress.com.
Advertisement

ট্রেন্ডিং
করোনা আপডেট
X