বড় খবর


দু-একজন জোয়ারে আসে-ভাটায় চলে যায়: মমতা

উত্তরবঙ্গ সফরের তৃতীয় দিনে আজ কোচবিহারের রাসমেলা মাঠে রাজনৈতিক সভা করেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। প্রথম থেকেই গেরুয়া শিবিরকে সেখানে নিশানা করেন তিনি।

উত্তরবঙ্গ সফরের তৃতীয় দিনে আজ কোচবিহারের রাসমেলা মাঠে রাজনৈতিক সভা করেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। প্রথম থেকেই গেরুয়া শিবিরকে সেখানে নিশানা করেন তিনি। টাকা দিয়ে ভোটে জেতার অভিযোগ থেকে পরিযায়ী ইস্যুতে বিজেপির বিরুদ্ধে তোপ দেহেছেন তৃণমূল নেত্রী। বার্তা দিয়েছেন দলের ‘বিক্ষুব্ধ’দেরও।

একনজরের মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের বক্তব্য…

* ‘মিথ্যা প্রতিশ্রুতি দিয়ে লোকসভায় জিতেই শান্ত কোচবিহারকে অশান্ত করছে বিজেপি। মানুষের মধ্যে ভাগাভাগির রাজনীতি করি না। আমরা যাঁকে দল থেকে তাড়িয়ে দিয়েছিলান তাঁকেই বিজেপি দলে নিয়েছে। বিজেপি শুধু হিংসার রাজনীতি করে।’

* ‘টাকা ছড়িয়ে ভোটে জিতেছে বিজেপি। এসব আর চলবে না। এবার জবাব দেওয়ার সময় এসেছে।’

* ‘আদর্শ বদলানো যায় না। যাঁরা প্রথম থেকে মন দিয়ে তৃণমূলের সঙ্গে ছিলেন তাঁরা রয়ে গিয়েছেন। দু-একটা জোয়ারে আসে, ভাটায় চলে যায়।’

* ‘আমাদের রাজ্যে কন্যাশ্রী, স্বাস্থ্যসাথী, বিনামূল্যে রেশন আছে। কৃষির খাজনা মুকুব করা হয়েছে। ২কোটির বেশি পড়ুয়া স্কলারশিপ পাচ্ছেন। বাংলার সব পরিবার সরকারি প্রকল্পের সুবিধা পাচ্ছে।’

* ‘পরিযায়ী শ্রমিকদের সঙ্গে বঞ্চনা করেছে বিজেপি সরকার। রাজ্য সরকার ট্রেনের ভাড়া দিয়ে পরিযায়ীদের ঘরে ফিরিয়েছে। লকডাউনের সময় কী করেছে ওরা?’

* ‘জেলে যাব কিন্তু আমি বিজেপি-সিপিএম-কংগ্রেসের কাছে ভয় পেয়ে মাথা নত করব না।’

* ‘আমি আরএসএস-এর হিন্দু ধর্মে বিশ্বাস করি না, আমরা বিশ্বাস করি ”যত মত তত পথ”।

* ‘এত বড় স্পর্ধা যে আমার দলের রাজ্য সভাপতিকে ফোন করছে বিজেপি। দিল্লি থেকে ফোন করে বসতে বলা হচ্ছে। অনুব্রতকেও ফোন করেছিল। ও বলেছে আরে আমিতো মমতা ব্যানার্জীর পার্টি করি, তাহলে তোমাদের সঙ্গে কেন বসব। শুধু ফোনই নয়, এখন আবার ফর্ম বিলি করছে।’

* ‘বিজেপির প্রতিশ্রুতি মানেই ভাঁওতাবাজি। কটা চাকরি দিয়েছো? কেন এখনও ১৫ লক্ষ করে সবার ব্যাংক অ্যাকাউন্টে জমা পড়ল না?’

* ‘একমাত্র রাজ্য বাংলা যেখানে এনপিআর করতে দিনি। দেবও না। এনপিআর-এনআরসির নামে আপনাদের নাম বাদ দেওয়া হবে।’

* ‘বাংলার সংস্কৃতি সম্বন্ধে জ্ঞান নেই, তারাই বলছে বাংলা দখল করবে। যাঁরা ওপার থেকে এসেছিলেন এ দেশে তাঁরা ভয় পাবেন না।’

* ‘বিজেপির বহিরাগত গুন্ডারা এসে ভয় দেখালে যে হাতা-খুন্তি দিয়ে রান্না করেন সেগুলো দিয়ে পাল্টা রুখে দাঁড়াবেন। বাড়ির মা-বোনেরাই পারবে এদের জবাব দিতে।’

* ‘জোট বাঁধুন তৈরি হোন। ২১-মে যে সরকার আসবে সে ভারতকে দিশা দেখানোর সরকার হবে।’

* ‘ঊেদাভেদ নয়, ঐক্য চাই দলের সবাই একযোগে কাজ করুন। কর্মীরাই আমার সম্পদ।’

ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস বাংলা এখন টেলিগ্রামে, পড়তে থাকুন

Web Title: Mamata banerjee speech highlights in coochbehar

Next Story
“ভাড়াটে সৈন্য দিয়ে কখনও যুদ্ধ জেতা যায় না!”, ফের ‘বেসুরো’ তৃণমূল সাংসদ
The moderation of comments is automated and not cleared manually by bengali.indianexpress.com