scorecardresearch

বড় খবর

গরিব কল্যাণ রোজগার অভিযান নিয়ে অকারণ রাজনীতি করছে তৃণমূল: দিলীপ

“বাংলার ২৩ টা জেলার মধ্য ২০টা জেলা রয়েছে যেখানে ২৫ হাজারের বেশি পরিযায়ী শ্রমিক লকডাউনের কারণে নিজেদের জেলায় ফেরত এসেছেন।”

দেশের ৬ রাজ্য়ের ১১৬টি জেলার পরিযায়ী শ্রমিকদের জন্য গরিব কল্যাণ রোজগার অভিযান প্রকল্প ঘোষণা করেছে কেন্দ্র। উত্তর প্রদেশ, বিহার, মধ্যপ্রদেশ, ওড়িশা, ঝাড়খন্ড ও রাজস্থানে রয়েছে এই জেলাগুলি। যে জেলাগুলিতে ২৫ হাজার শ্রমিক ফেরত গিয়েছেন সেই সব জেলাগুলিকে এই প্রকল্পে রাখা হয়েছে। কিন্তু কেন্দ্রীয় সরকারের এই প্রকল্পে এ রাজ্যের কোনও জেলার নাম নেই। তৃণমূল যুবর সর্বভারতীয় সভাপতি অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের অভিযোগ, “এর ফলে রাজ্যের ২০টি জেলার পরিযায়ী শ্রমকিরা বঞ্চিত হবেন।” যদিও বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ ফের বলেন, “রাজ্য কোনও তালিকা কেন্দ্রকে দেয়নি, তাই কোনও জেলার নাম আসেনি ওই প্রকল্পে। এর দায় সম্পূর্ণ রাজ্য সরকারের।”

আরও পড়ুন: ত্রাণ দুর্নীতির অভিযোগে তোলপাড় দক্ষিণ ২৪ পরগনা, ক্ষোভের আগুনে ফুঁসছে ক্ষতিগ্রস্তরা

গরিব কল্যাণ রোজগার অভিযানে ৬টি রাজ্যের ১১৬টি জেলার নাম রয়েছে। তৃণমূল সাংসদ অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় ভিডিও কনফারেন্সে অভিযোগ করেছেন, মূলত এই তালিকায় ৯০ শতাংশ জেলার নাম রয়েছে বিজেপি শাসিত বা প্রভাবিত তিন রাজ্যের। অভিষেক বলেন, “উত্তরপ্রদেশ, মধ্যপ্রদেশ ও বিহার, এই তিন রাজ্যে রয়েছে ওই ৯০ শতাংশ জেলা। আর ঝাড়খন্ডে ৫, ওড়িশায় ৩ ও রাজস্থানে ৫-৬টা জেলা। বাংলার ২৩টা জেলার মধ্য ২০টা জেলা রয়েছে যেখানে ২৫হাজারের বেশি পরিযায়ী শ্রমিক লকডাউনের কারণে নিজেদের জেলায় ফেরত এসেছেন। তবু ২০টা জেলার একটাকেও এর আওতায় আনা যায়নি।”

আরও পড়ুন: দিলীপ-মুকুলের পরস্পর বিরোধী অবস্থান কি বাংলায় পদ্ম ফোটাতে বাধা?

বিজেপির রাজ্য সভাপতি আগেই বলেছিলেন রাজ্য কোনও তালিকা পাঠায়নি কেন্দ্রে। তাঁদের কাছে পরিযায়ী শ্রমিকদের কোনও তালিকাই নেই। এ বিষয়ে অভিষেক বলেন, “দুদিন আগে বিজেপির রাজ্য সভাপতি বলেছেন কেন্দ্রীয় সরকার চিঠি লিখে রাজ্যের কাছে জেলার নাম ও ডিটেইলস চেয়েছে। রাজ্য পাঠায়নি। এটা সম্পূর্ণ মিথ্যা। বিভ্রান্তি ছড়ানো হচ্ছে। তাঁরা যদি তথ্য নেই বলে তাহলে এক ঘন্টার মধ্যে আমি তথ্য দিয়ে দেব।” একই সঙ্গে ডায়মন্ড হারবারের সাংসদের আরও দাবি, “রেলের কাছে চার-পাঁচ লাখ পরিযায়ী শ্রমিকের তালিকা তো রয়েছে। অন্য রাজ্যেও সেই তালিকা রয়েছে।”

আরও পড়ুন: বিজেপি-তৃণমূলকে চ্যালেঞ্জ, ২০২১-এ জোট গড়তে একসঙ্গে পথে বাম-কংগ্রেস

এদিক মেদিনীপুরের বিজেপি সাংসদ তৃণমূল যুব সভাপতির অভিযোগ উড়িয়ে দিয়েছেন। দিলীপ ঘোষ বলেন, “বাকি সব রাজ্য পরিযায়ী শ্রমিকের তালিকা দিয়েছে। তালিকা কি বাড়িতে রাখার জন্য? কোথায় লিস্ট করেছে বলুক। লিস্ট দিন, সরকার সহযোগিতা করবে। সরকার যখন প্রকল্প ঘোষণা করল, তখন প্রতিবাদ করেননি কেন? সর্বদলীয় বৈঠকের দিন লিস্ট পাঠিয়েছে। তালিকা পাঠালেই প্রকল্প দেবে। শুধু শুধু রাজনীতি করছেন কেন?” বঙ্গ বিজেপি সভাপতির স্পষ্ট কথা, “এ রাজ্যে দেড় লক্ষের বেশি লোক ট্রেনে আসেনি। সাড়ে আট লক্ষ মানুষের জন্য ১ হাজার ট্রেন চাই।”

ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস বাংলা এখন টেলিগ্রামে, পড়তে থাকুন

Stay updated with the latest news headlines and all the latest Politics news download Indian Express Bengali App.

Web Title: Politics with migrant workers west bengal dilip ghosh abhishek banerjee