বড় খবর


বিধানসভার প্রার্থী পদেও এবার ভূমিপুত্র দাবি

বিধানসভা প্রার্থীপদে ভূমিপুত্রের এই পোস্টারকে পাত্তা দিতে রাজি নয় তৃণমূল-বিজেপি।

দাদার অনুগামীর পর এবার ভূমিপুত্র বিধায়কের দাবি। বহিরাগত তত্বের পর ভূমিপুত্র। এই নতুন দাবি নিয়ে পোস্টার পড়েছে বর্ধমানের ভাতাড় বিধানসভা এলাকায়। এই নিয়ে রীতিমতো শোরগোল পড়েছে রাজনীতিতে। যদিও রাজ্যের বিভিন্ন বিধানসভা এলাকায় এই দাবি থাকলেও দলীয় শাস্তির কোপের ভয়ে স্থানীয় কোনও নেতৃত্বই প্রকাশ্যে খুলতে সাহস পান না।

শুভেন্দু অধিকারী, রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায়, প্রবীর ঘোষালরা বিজেপিতে যোগ দেওয়ার আগে পর্যন্ত নানা জায়গায় দাদার অনুগামীর নামে পোস্টার, ব্যানার দেখা গিয়েছে। এই পোস্টার বা ব্যানার সবই লাগানো হতো রাতের অন্ধকারে। এবার পূর্ব বর্ধমানের ভাতাড়ের নানা জায়গায় পোস্টার পড়েছে ভূমিপুত্র বিধায়ক প্রার্থীর দাবিতে। বাংলার রাজনীতিতে বিজেপির সঙ্গে তৃণমূলের লড়াই চলছে বহিরাগত তত্ব নিয়ে। সেক্ষেত্রে স্থানীয় স্তরেও বিধানসভা এলাকার বাইরের প্রার্থীরা বহিরাগত বলে মনে করে অনেকেই।

তবে বিধানসভা প্রার্থীপদে ভূমিপুত্রের এই পোস্টারকে পাত্তা দিতে রাজি নয় তৃণমূল-বিজেপি। পূর্ব বর্ধমান জেলা তৃণমূল কংগ্রেসের মুখপাত্র প্রসেনজিৎ দাস বলেন, “দাবি উঠতেই পারে। আমাদের নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্য়ায় সেন্টিমেন্ট জানেন। এমনই মানুষকে প্রার্থী করবেন যিনি মানুষের জন্য কাজ করবেন। মমতা বন্দ্যোপাধ্য়ায় যাকেই প্রর্থী করবেন তাঁকে সবাই মেনে নেবেন।” বিজেপির জেলা সভাপতি সন্দীপ নন্দীর বক্তব্য, “রাতের অন্ধকারে যাঁরা এমন পোস্টার দেয় তা নিয়ে কোনও মন্তব্য করব না।”

রাজনৈতিক মহলের বক্তব্য, ভূমিপুত্রদের দাবি নিয়েই এখন সোচ্চার সকলেই। রাজ্য-রাজনীতিতে বাংলার বাইরে থেকে প্রচারে আসা বিজেপি নেতৃত্বকে বহিরাগত তকমা দিচ্ছে তৃণমূল কংগ্রেস। রীতিমতো তা নিয়ে বাকযুদ্ধ চলছে দুই দলের শীর্ষ নেতৃত্বের মধ্যে। অন্যদিকে বাংলা পক্ষের মতো সংগঠন দাবি করে আসছে বাংলায় চাকরির ক্ষেত্রে অবিলম্বে ভূমিপুত্র সংরক্ষণ করতে হবে। এবার দাবি উঠতে শুরু করল একেবারে স্থানীয় স্তরে। প্রার্থী চাই ভূমিপুত্র।

অভিজ্ঞ মহলের মতে, সাধারণত স্থানীয় নেতৃত্বের বিরোধে ভোট বাক্সে যেন প্রভাব না পড়ে তা এড়াতেই বাইরে থেকে প্রার্থী করা হয়। ২০১৬-এর বিধানসভা নির্বাচন পর্যবেক্ষণ করলে দেখা যাবে রাজ্যের অগুনতি আসনেই সেই বিধনসভা এলাকার বাইরে থেকে প্রার্থী দাঁড়ি করিয়েছিল তৃণমূল কংগ্রেস। শুধু বর্ধমানের মঙ্গলকোট নয়, এমন রাজ্যের বহু বিধানসভা রয়েছে যেখানে বিধায়করা মাসের পর মাস নিজের নির্বাচনী কেন্দ্রেই যাননি। স্বাভাবিকভাবে এই নিয়েও মানুষের মধ্যে ক্ষোভ দানা বেধেছে। জানা গিয়েছে, বহিরাগত বিধায়ক নিয়ে অসন্তোষ রয়েছে তৃণমূলের অভ্যন্তরে। শুধু পূর্ব বর্ধমান নয়, সারা রাজ্যেই এই বিরোধ মাথাচাড়া দিয়ে উঠেছে। সূত্রের খবর, ইতিমধ্যেই বিধানসভা স্তরের নেতৃত্বের একাংশ স্থানীয় প্রার্থী করার জন্য হুঁশিয়ারিও দিয়েছে।

ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস বাংলা এখন টেলিগ্রামে, পড়তে থাকুন

Web Title: Son of the soil candidate demanded bangal assembly election 2021

Next Story
‘আমারও দুঃখ হয়েছে’, মৃত বাম কর্মীর পরিবারকে চাকরির আশ্বাস মমতার
The moderation of comments is automated and not cleared manually by bengali.indianexpress.com