বড় খবর

১৮-র জবাব ১৯-য়ে, খেজুরিতে তৃণমূলের পাল্টা সভার ডাক শুভেন্দুর

‘২০০ আসন নিয়ে সরকার গড়বে বিজেপি’ নন্দীগ্রামে দাঁড়িয়ে দাবি রাজ্য বিজেপি সভাপতির।

শুভেন্দু অধিকারী বিজেপিতে যোগদানের পর নন্দীগ্রামে প্রথন সভা হল বিজেপির। উপস্থিত ছিলেন শুভেন্দু অধিকারী, রাজ্য বিজেপি-র সভাপতি দিলীপ ঘোষ, এ রাজ্যে বিজেপির কেন্দ্রীয় পর্যবেক্ষক কৈলাস বিজয়বর্গীয় এবং সর্বভারতীয় বিজেপির সহ-সভাপতি মুকুল রায়। সভায় জনসমাগম ছিল চোখে পড়ার মতো। একদা বাম দূর্গ বছর পনেরো আগেই জোড়া-ফুলের পাশে দাঁড়িয়েছিলো। এবার জমি আন্দোলনের অন্যতম স্থান নন্দীগ্রামেই পদ্ম পতাকায় ছয়লাপ। তাহলে কী পালাবদলের ইঙ্গিত দিচ্ছে নন্দীগ্রাম? প্রশ্নটা উঠেই গেল।

তৃণমূলকে নিশানা করতে গিয়ে এ দিন নন্দীগ্রামের প্রাক্তন বিধায়ক বলেছেন, ‘আমাদের সভা ঢুকে আজ ঢিল ছুড়েছে তৃণমূল। কিন্তু সিপিএম ক্ষমতায় থাকালীন অন্তত তৃণমূলের সভায় ঢুকে এ কাজ করেনি।’

এক নজরে শুভেন্দু অধিকারীর বক্তব্য…

* ‘সভা আমি ডেকেছিলাম। আপনাদের সবাইকে ধন্যবাদ। কিন্তু আমাদের কর্মীদের উপর সভায় ঢুকে আক্রমণ হয়েছে। যাতে সভা ভণ্ডুল হয়ে যায় তাই এই কাজ করা হয়েছে। আমি সিপিএম-এর বিরুদ্ধে লড়েছি। সিপিএম কিন্তু কখনও তৃমমূলের মিছিলে ঢিল ছোড়েনি। চাইবো সূর্যের আলো থাকতে থাকতে আপনারা বাড়ি ফিরে যান।’

* ‘৭ তারিখে তৃণমূলের সভা হয়নি। ওরা আবার ১৮ জানুয়ারি সভা করবো বলেছে। আমি রাজ্য সভাপতির অনুমতি নিয়েছি। আগামী ১৯ জানুয়ারি খেজুরিতে পাল্টা সভা হবে।’

নন্দীগ্রামের সভায় বিজেপি নেতৃত্ব।

নন্দীগ্রামে দিলীপ ঘোষের ভাষণ…

* ‘আমি আজ অতিথি শিল্পী, আসল নায়ক তো শুভেন্দু অধিকারী।’

* ‘নতুন বছর, নতুন আশা, নতুন সরকার নিয়ে এগোবে বাংলা’

* ‘করোনার চেয়েও ভয়ঙ্কর ভাইরাস তৃণমূল। তারা কবে যাবে বলে দিচ্ছি। তৃমমূলের ভ্যাকসিনও তৈরি করে ফেলেছি আমরা। মে মাসের ২০ তারিখের পরই তারা চলে যাবে। ২০০ আসন নিয়ে আমাদের মুখ্যমন্ত্রী ক্ষমতায় বসবেন। আমরা সোনার বাংলা গড়ব’

* ‘নন্দীগ্রামের সেই ভঙ্কর দিনগুলোয় রাত জেগে যাঁরা পরিবর্তন এনেছিলেন, আজ তাঁরাই অবহেলিত। রক্ত দিয়ে ঘাম ঝরিয়ে যাঁরা তৃণমূলকে গড়েছিলেন আজ তাঁরা বিজেপির পাশে।’

* ‘বাংলাদেশের সিমি, জামাত, আলকায়দা এখন এ বাংলায় ঘাঁটি গেড়েছে। এই বাংলা আমরা চাইনি। মেয়েদের বাড়ি না ফেরা পর্যন্ত দুঃশ্চিন্তা হয়। এই দুশ্চিন্তা করার জন্যই কী দিদিকে মুখ্যমন্ত্রী বানানো হয়েছিলো?’

* ‘কেন্দ্র এবং রাজ্য, দু’জায়গায় বিজেপির সরকার থাকলে তবেই সমস্ত দাবিদাওয়া পূরণ হবে।’

* ‘দিদি বলছেন, আমরা দল ভাঙছি। আর আপনি যেদিন সিপিএম-এর লোকদের জোর করে দলে শামিল করেছিলেন। কংগ্রেসের সঙ্গেও বিশ্বাসঘাতকতা করে বেরিয়ে এসেছিলেন?’

কী বললেন কৈলাস বিজয়বর্গীয়?

* ‘নন্দীগ্রামের মাটি মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে মুখ্যমন্ত্রী বানিয়েছে। সেই নন্দীগ্রামের সঙ্গে বিশ্বাসঘাতকতা করেছেন দিদি। এনডিএ-র সঙ্গেও বিশ্বাসঘাতকতা করেছেন মমতা। বিশ্বাসঘাতককে ধাক্কা দেওয়ার সময় এসেছে। এই বিধানসভা নির্বাচনই সেই সুযোগ।’

* ‘গরু মাফিয়া কে? কয়লা মাফিয়া কে? বিনয় মিশ্রর সঙ্গে বিদেশ গিয়েছিলেন ভাইপো। কে এই বিনয় মিশ্র? সিবিআই চেপে ধরলেই জেলে যেতে হবে ভাইপোকে।’

* ‘মাফিয়াদের সরকার কি থাকা উচিত বাংলায়? যে নিয়ে মাফিয়া গিরি করে, সে দিলীপদাকে গুন্ডা বলে। দিলীপদা গুন্ডা? ভোটের দিন এর জবাব দিন সকলে মিলে। বুঝিয়ে দিন, কে গুন্ডা, কে মাফিয়া।’

মুকুল রায়ের কী বলেছেন?

* ‘আমি নন্দীগ্রাম আন্দোলন খুব কাছ থেকে দেখেছি। কে কি করেছেন আমি সব জানি। এটুকুই শুধু বলতে পারি যে নন্দীগ্রামে নেতৃত্ব দিয়েছিলেন শুভেন্দু অধিকারীই।’

* ‘এ বার পরিবর্তনের হাওয়া উঠেছে। বাংলায় আর একটা পরিবর্তন দেখতে চাই। বিজেপির হাত ধরেই সোনার বাংলা গড়ে উঠবে।’

* ‘সিঙ্গুরের জমি আন্দোলনের সঙ্গে নন্দীগ্রামের আন্দোলনের পার্থক্য রয়েছে। সেদিন সিঙ্গুরে আন্দোলন করা ভুল ছিল বলেই মনে করি। টাটাদের সিঙ্গুরে ফেরাতে সবাই মিলে অনুরোধ জানাব প্রধানমন্ত্রীকে।’

ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস বাংলা এখন টেলিগ্রামে, পড়তে থাকুন

Web Title: Suvendu adhikari bjp meeting at nandigram

Next Story
ক্ষমতায় এলে বাংলাতেও ‘লাভ জিহাদ’ আইন! বিজেপি নেতার মন্তব্যে শোরগোল
The moderation of comments is automated and not cleared manually by bengali.indianexpress.com