বড় খবর

বাংলার পর্বতারোহী দীপঙ্কর ঘোষকে মরণোত্তর সম্মান কেন্দ্রের

গত ৮ এপ্রিল মাকালু অভিযানের উদ্দেশ্যে ঘর ছেড়েছিলেন দীপঙ্কর ঘোষ। গত সেপ্টেম্বরেই তিনি জয় করেন চো ইউ শৃঙ্গ। হাওড়ার বেলানগর নিবাসী দীপঙ্কর ঘোষের এটিই ছিল সপ্তম আট হাজারি শৃঙ্গ জয়।

dipankar ghosh
চো ইউ অভিযানের ছবি। (দীপঙ্কর ঘোষের ফেসবুক থেকে)

মাকালু অভিযানে গিয়ে নিঁখোজ হয়ে গিয়েছিলেন। মিরাকলের আশায় ছিল গোটা দেশ। তবে মিরাকল হয়নি। দীপঙ্কর ঘোষের নিথর দেহ ফিরে এসেছিল হাওড়ার বাড়িতে। তবে মৃত্যুর পরেই আসল স্বীকৃতি মিলল বাঙালি পর্বাতরোহীর। এবছর তেনজিং নোরগের জাতীয় অ্যাডভেঞ্চার পুরস্কার পাচ্ছেন তিনি। বুধবারেই কেন্দ্রীয় সরকারের পক্ষ থেকে জানানো হয় ছয়জন পর্বাতরোহীকে এবছর সম্মানিত করা হবে তেনজিং নোরগে ন্য়াশানাল অ্যাডভেঞ্চার অ্যাওয়ার্ডস-এ।

সেই ছয়জনেরই অন্যতম দীপঙ্কর ঘোষ। স্থল অ্যাডভেঞ্চার ক্যাটেগরিতে তিনি এই পুরস্কার পাচ্ছেন। এই বিভাগেই পুরস্কার পাচ্ছেন অপর্ণা কুমার এবং মনিকান্দন কে। জলে অ্যাডভেঞ্চার বিভাগে পুরস্কার পাচ্ছেন প্রভাত রাজু কোলি এবং বায়ু অ্যাডভেঞ্চারে পুরস্কার প্রাপক রামেশ্বর জাঙ্গরা।

পৃথিবীর পঞ্চম উচ্চতম মাকালু শৃঙ্গ অভিযানে গিয়ে ১৬ মে নিখোঁজ হয়ে যান বাংলার এভারেস্টজয়ী দীপঙ্কর ঘোষ। ১৮ মে বিদেশমন্ত্রী সুষমা স্বরাজ টুইট করে জানিয়েছিলেন তীব্র ঝোড়ো হাওয়া থাকার কারণে হেলিকপ্টারে দীপঙ্করের উদ্ধারকার্য ব্যহত হয়েছে।

আরও পড়ুন ‘মিরাকল’ হল না, মাকালু অভিযানে নিখোঁজ দীপঙ্করের দেহ উদ্ধার

দীপঙ্করের অভিযানের আয়োজক সংস্থা সেভেন সামিটের তরফে ১৭ মে জানানো হয়েছিল মাকালু শৃঙ্গ (৮৪৮৫ মিটার) ছুঁয়ে নীচে নামার পথে ৮০০০ মিটার উচ্চতায় ৪ নম্বর ক্যাম্পের কাছাকাছি নিখোঁজ হন দীপঙ্কর (৫২)। ভারতীয় সেনাবাহিনীর ১৬ অভিযাত্রীর দলের এক সদস্য নারায়ন সিং-এর সঙ্গে দীপঙ্কর এবং তাঁর গাইড বৃহস্পতিবার সন্ধের দিকে ৪ নম্বর ক্যাম্পের কাছাকাছি আটকে যান। তারপরেই তাঁর কোনও খোঁজ পাওয়া যায়নি। বিরূপ পরিবেশের কারণে তাঁর উদ্ধারকার্যও আটকে ছিল। পরে সেভেন সামিট সংস্থার তরফে জানানো হয়, ২৩ মে সাত শেরপার উদ্ধারকারী দল দীপঙ্কর ঘোষের দেহ উদ্ধার করেছে ক্যাম্প ফোরের কাছে।

গত ৮ এপ্রিল মাকালু অভিযানের উদ্দেশ্যে ঘর ছেড়েছিলেন দীপঙ্কর ঘোষ। গত সেপ্টেম্বরেই তিনি জয় করেন চো ইউ শৃঙ্গ । হাওড়ার বেলানগর নিবাসী দীপঙ্কর ঘোষের এটিই ছিল সপ্তম আট হাজারি শৃঙ্গ জয়। এর আগে এভারেস্ট, লোৎসে, কাঞ্চনজঙ্ঘা, মানাসলু এবং ধৌলাগিরি শৃঙ্গ ছুঁয়েছেন তিনি। এছাড়া দেশের মধ্যে নানা সফল অভিযান করেছেন।

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, ২০১৭ সালের ধৌলাগিরি অভিযানে তুষারক্ষত (ফ্রস্ট বাইট)য় গুরুত্বর জখম হয় দীপঙ্করবাবুর হাতের আঙুল। দু’হাতের ৭টি এবং বাঁ পায়ের বুড়ো আঙুল আংশিক কেটে বাদ দিতে হয়। সেই অবস্থাতেই এক বছর কাটতে না কাটতেই ২০১৮-এর আগস্ট মাসে ফের বেরিয়ে পড়েছিলেন নতুন অভিযানে।

Web Title: Dipankar ghosh receives tenzing norgay national adventure awards

Next Story
মিস্ট্রি স্পিনার অজন্থা মেন্ডিজের অবসর সমস্ত ধরনের ক্রিকেট থেকেajantha mendis
The moderation of comments is automated and not cleared manually by bengali.indianexpress.com