বড় খবর

ক্যাপ্টেন রাহানেই আসল বাজিগর, পন্টিং-ম্যাকগ্রাথের প্রশংসায় চাপ কোহলির উপরেই

ওয়েড আক্রমণাত্মক শট খেলতে গিয়ে উইকেট ছুড়ে দিয়ে আসেন। অন্যদিকে, ফাঁদ পেতে লেগ গালিতে স্মিথকে শিকার করেন অশ্বিন।

কোহলি চলে গিয়েছেন। তবে রাহানে কোহলির শূন্যস্থান পূরণ করেই দারুণ সফল। অধিনায়ক হিসেবে মেলবোর্নের প্রথম দিনেই লেটার মার্কস নিয়ে উত্তীর্ণ তিনি। ক্রিকেট বিশেষজ্ঞরা এমনটাই বলছেন। গ্লেন ম্যাকগ্রাথই যেমন। উচ্ছ্বসিত প্রশংসা করে গেলেন অধিনায়ক রাহানের। সকালের সেশনে বিশেষ করে যেভাবে রাহানে বোলারদের বুদ্ধিমত্তার সঙ্গে ব্যবহার করলেন, তা নজর কেড়ে নিয়েছে।

প্রথম সেশনের শেষেই ভারত ছিল চালকের আসনে। অস্ট্রেলীয়দের ৬৫/৩ করে ফেলেছিল ভারত। জসপ্রীত বুমরা পঞ্চম ওভারেই ফিরিয়ে দিয়েছিলেন ওপেনার জো বার্নসকে।

আরও পড়ুন: ১৯৫ রানে অজিদের গুটিয়ে দিল ভারত! বুমরা-অশ্বিনের ভেলকি এমসিজিতে

এমসিজির পিচে যথেষ্ট বাউন্স রয়েছে। হালকা টার্নও করছে। তা বুঝেই রাহানে প্রথম পরিবর্ত বোলার হিসাবে অভিষেককারী সিরাজ নন, নিয়ে আসেন অশ্বিনকে। ১১ ওভারেই অফস্পিনারকে আক্রমণে নিয়ে আসেন রাহানে। আর অশ্বিন এসেই ধামাকা মাচিয়ে দেন।

আর রাহানের ভরসার প্রতিশ্রুতি দিয়েই অশ্বিন পরপর আউট করে দেন স্টিভ স্মিথ এবং ম্যাথু ওয়েডকে। ওয়েড আক্রমণাত্মক শট খেলতে গিয়ে উইকেট ছুড়ে দিয়ে আসেন। অন্যদিকে, ফাঁদ পেতে লেগ গালিতে স্মিথকে শিকার করেন অশ্বিন। মর্নিং সেশনের ২৭ ওভারের মধ্যে ১৩ ওভারই রাহানে স্পিনারদের দিয়ে বোলিং করান। অশ্বিনের পার্টনার হিসাবে আক্রমণে নিয়ে আসেন জাদেজাকেও। অশ্বিন সকালের সেশনের শেষ ওভারেও লাবুশানেকে ফিরিয়ে দিতে পারতেন। তবে সেক্ষেত্রে ডিআরএস নিয়ে বাঁচেন লাবুশানে।

আর এমন অধিনায়কত্ব দেখেই গ্লেন ম্যাকগ্রাথ সোনি সিক্স নেটওয়ার্ককে বলে দিয়েছেন, “রাহানে বোলারদের নিয়ে দারুণভাবে নেতৃত্ব দিল। একসময় চারটে স্লিপ এবং একজন গালিতে দাঁড় করিয়ে বোলিং করলো। স্মিথ আসতেই বুমরাকে আক্রমণে এনে চাপ বজায় রেখে গেল। দারুণ নেতৃত্ব দিয়ে গেল ও, কোনো সন্দেহই নেই।”

ক্রিকেট বিশ্বের অন্যতম সেরা ক্যাপ্টেন রিকি পন্টিং আবার দিনের শেষেই বলে দিয়েছেন, “এডিলেডে হারের পর ভারত কীভাবে নিজেদের তুলে ধরবে তা নিয়ে আমাদের মধ্যেও উদ্বেগ ছিল। তবে রাহানের নেতৃত্বে দারুণভাবে লড়ল ওঁরা। রাহানের নেতৃত্বে টিম ইন্ডিয়াকে আরো শক্তিশালী মনে হয়েছে। রাহানের ফিল্ড প্লেসমেন্ট, বোলিং চেঞ্জ, সবকিছুই এদিন নজর কেড়েছে। অধিনায়কের সিদ্ধান্তের সঙ্গেই বোলার, ফিল্ডারদের ঠিকমত প্রয়োগ ক্ষমতা প্রদর্শন করতে হয়। এদিন ভারত সবকিছুই ঠিকঠাক করেছে।”

রাহানেকে প্রশংসায় ভরিয়ে দিয়েছেন অজয় জাদেজাও। তিনি বলে দিয়েছেন, “ও যে বুমরাকে দিয়ে আক্রমণ শুরু করবে, তা আগে থেকেই ঠিক ছিল। অশ্বিন যখন স্মিথকে ফেরাল, তার পরেও ও আক্রমণ জারি রেখে গেল। সাধারণত ভারতীয় বোলিংয়ের নির্দিষ্ট প্যাটার্ন থাকে। এদিন কিন্তু কোনো নির্দিষ্ট প্যাটার্ন না মেনেই বোলিং চেঞ্জ করেছে রাহানে। সাধারণত, কোনো টেস্ট ম্যাচের প্রথম দিনে ৯ ওভারের বেশি স্পিনারদের ব্যবহার করা হয় না। এদিন দুই প্রান্ত থেকেই স্পিনারদের দিয়ে বোলিং করিয়ে গেল ও। আসলে পিচের যে আদ্রতা রয়েছে সেটা লাঞ্চের ব্যবহার করতে চেয়েছিল। রাহানের এই সিদ্ধান্ত পুরোপুরি খেটে গিয়েছে।”

এদিকে, এলান বর্ডারও বলে দিলেন, এডিলেডে যেভাবে বিধ্বস্ত হয়েছে ভারত। সেখান থেকে ঘুরে দাঁড়িয়ে ভারত দারুণ ফাইটব্যাক করেছে।

ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস বাংলা এখন টেলিগ্রামে, পড়তে থাকুন

Get the latest Bengali news and Sports news here. You can also read all the Sports news by following us on Twitter, Facebook and Telegram.

Web Title: India vs australia rahanes captaincy has drawn widespread acclaim

Next Story
অন্যায় আবদারে না, সরাসরি পদত্যাগ আইএফএ সচিবের, ক্রীড়ামন্ত্রীর অনুরোধেও চিড়ে ভিজল না
The moderation of comments is automated and not cleared manually by bengali.indianexpress.com