বড় খবর

IPL রিটেনশন: কত কোটিতে কোন ক্রিকেটারের মূল্য কত হবে, ডেডলাইনের আগেই জানুন

আইপিএলের ফ্র্যাঞ্চাইজিগুলোতে ব্যস্ততা তুঙ্গে। কাকে ছেড়ে কাকে রাখা হবে, তা নিয়ে চুলচেরা বিশ্লেষণ চলছে।

সময় যত এগিয়ে আসছে, ততই ফ্র্যাঞ্চাইজি মহলে তৎপরতা বাড়ছে। ডেডলাইন যে ৩০ নভেম্বর। মঙ্গলবারের মধ্যেই প্রত্যেক ফ্র্যাঞ্চাইজিকে চূড়ান্ত করে ফেলতে হবে কোন তারকাকে তাঁরা রিটেন করবে। কাদেরই বা রিলিজ করা হবে। সেই তালিকা জমা দিতে হবে বোর্ডের কাছে।

সোমবার পর্যন্ত কোনও ফ্র্যাঞ্চাইজিই সরকারিভাবে ঘোষণা করেনি রিটেনশনের লিস্ট। আর মাত্র ২৪ ঘন্টা। তারপরেই অবশ্য জানা যাবে, কোন ফ্র্যাঞ্চাইজি কোন কোন ক্রিকেটারদের রিটেন/রিলিজ করবে। তার আগে দেখে নেওয়া যাক রিটেনশনের যাবতীয় নিয়ম কানুন-

রিটেনশনের নিয়ম:
প্রত্যেক ফ্র্যাঞ্চাইজি সর্বাধিক ৪ জনকে রিটেন করতে পারবে। এর মধ্যে ৩ জনের বেশি ভারতীয় এবং ২ জনের বেশি বিদেশি রিটেন করা যাবে না। সর্বাধিক দুজন আনক্যাপড (জাতীয় দলে এখনও না খেলা) ক্রিকেটার ধরে রাখতে পারে ফ্র্যাঞ্চাইজি।

আরও পড়ুন: Axar নাকি Akshar! তারকা স্পিনারের পরিচয় নিয়ে উত্তাল ক্রিকেট মহল

কত জন ক্রিকেটারকে ধরে রাখা যাবে, সেই বিষয়ে আগের নিয়মে বদল এনেছে বিসিসিআই। ২০১৮-য় মেগা নিলামের আগে প্রত্যেক ফ্র্যাঞ্চাইজির কাছে পাঁচজন করে ক্রিকেটার রিটেন করার অপশন ছিল। এর মধ্যে তিনজনকে সরাসরি ধরে রাখা যেত। বাকি দুজনকে আরটিএম (রাইট টু ম্যাচ) কার্ড ব্যবহার করে নিলামের টেবিল থেকে কিনতে পারত ফ্র্যাঞ্চাইজিরা।

তবে এবার সর্বাধিক চারজনকে ধরে রাখার নিয়ম চালু হয়েছে। কোনও আরটিএম কার্ডও থাকছে না। তাই কোনও ক্রিকেটারকে রিটেন করার বিষয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নিতে হবে নিলামের আগে ডেডলাইনের মধ্যেই।

আরও পড়ুন: সানরাইজার্সের সঙ্গে রশিদ খানের মন কষাকষি তুঙ্গে, দল ছাড়ার মুখে সুপারস্টার

তাছাড়া নতুন দুই দল নিলামের আগেই ফ্র্যাঞ্চাইজিদের রিলিজ করা ক্রিকেটারদের থেকে বেছে নেওয়ার অপশন থাকছে। সেই কারণেই বর্তমানের আট দলের কাছে প্লেয়ার রিটেন করার বিষয়টি মাথা ব্যথা বাড়িয়েছে।

তবে কোনও ফ্র্যাঞ্চাইজি যদি কোনও ক্রিকেটার না রিটেন করতে চায়, সেই অপশনও খোলা রয়েছে। ২০১৪ সালের মেগা নিলামের আগে যেমন দিল্লি ক্যাপিটালস সমস্ত ক্রিকেটারদের রিলিজ করে নতুন করে স্কোয়াড সাজাতে চেয়েছিল।

আরও পড়ুন: IPL-এ বিরাট খবর! নিলামের আগেই নতুন দলের পথে এই পাঁচ তারকা

কত টাকা রিটেন করার জন্য খরচ হবে
রিটেন করার অন্যতম বড় প্রশ্ন আপাতত এটাই। একটি ফ্র্যাঞ্চাইজি নিলাম এবং রিটেনশনের ক্ষেত্রে সবমিলিয়ে ৯০ কোটি টাকা খরচ করতে পারবে। যত টাকার ক্রিকেটার রিটেন করা হবে, সেই টাকা ৯০ কোটি থেকে বাদ যাবে।

যদি এক ফ্র্যাঞ্চাইজি চারজনকে নিয়ম মাফিক রিটেন করে, সেক্ষেত্রে ৯০ কোটির পার্স থেকে ৪২ কোটি টাকা বাদ যাবে। সেক্ষেত্রে সেই ফ্র্যাঞ্চাইজিকে ৪৮ কোটি টাকা দিয়ে নিলামের দল গড়তে হবে।

আরও পড়ুন: সূর্যকুমারকে রিলিজ করছে মুম্বই, তারকাকে পেতে লম্বা হাত বাড়াল দুই ফ্র্যাঞ্চাইজি

নিয়ম অনুযায়ী, প্ৰথম রিটেনশনের ক্ষেত্রে সংশ্লিস্ট ক্রিকেটারকে ১৬ কোটি টাকা দিতে হবে। দ্বিতীয় রিটেনশনের মূল্য ১২ কোটি। তৃতীয় এবং চতুর্থ রিটেনশনের মূল্য যথাক্রমে ৮ এবং ৬ কোটি টাকা।

যদি কোনও ফ্র্যাঞ্চাইজি তিনজনকে রিটেন করতে চায়, সেক্ষেত্রে প্রথম রিটেনশনের মূল্য হবে ১৫ কোটি টাকা। দ্বিতীয় এবং তৃতীয় রিটেনশনকে দিতে হবে যথাক্রমে ১১ এবং ৭ কোটি টাকা।

যদি কোনও ফ্র্যাঞ্চাইজি দুজনকে মাত্র বাছাই করে, সেক্ষেত্রে শীর্ষ বাছাইয়ের মূল্য দাঁড়াবে ১৪ কোটি। দ্বিতীয় বাছাইকে দিতে হবে ১০ কোটি টাকা। একমাত্র ক্রিকেটারকে কোনও দল রিটেন করলে তাঁর দর দাঁড়াবে ১৪ কোটি টাকা। আনক্যাপড ক্রিকেটারদের রিটেন করলে দিতে হবে ৪ কোটি টাকা।

ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস বাংলা এখন টেলিগ্রামে, পড়তে থাকুন

Get the latest Bengali news and Sports news here. You can also read all the Sports news by following us on Twitter, Facebook and Telegram.

Web Title: Ipl auction retention bcci rules policies sum all one needs to know

The moderation of comments is automated and not cleared manually by bengali.indianexpress.com