বড় খবর

নিজামের শহরকে জেতাল সান্তানার জোড়া, ইস্টবেঙ্গলের সান্ত্বনা মাঘোমা

আগের ম্যাচেই পয়েন্টের খাতা খুলেছিল ইস্টবেঙ্গল। এটিকেএমবিকে আগের ম্যাচে রুখে দেওয়া হায়দরাবাদ এফসির বিরুদ্ধে এদিন ফাউলারের ফল কেমন পারফর্ম করে, সেদিকেই ছিল নজর।

ইস্টবেঙ্গল: ২
(জ্যাক মাঘোমা-২)
হায়দরাবাদ এফসি: ৩ (সান্তানা-২, নার্জারী)

আগের ম্যাচে আইএসএলে প্রথম পয়েন্ট ঘরে তুলেছিল ইস্টবেঙ্গল। ঠিক তার পরের ম্যাচে হায়দরাবাদ এফসির বিপক্ষে টুর্নামেন্টে লাল হলুদ জার্সিতে প্রথম গোলও করে যান জ্যাক মাঘোমা। তবে স্মরণীয় সেই ম্যাচই ফাউলার বাহিনীর কাছে হতাশার হয়ে থাকল। চলতি টুর্নামেন্টে ইস্টবেঙ্গলের পারফরম্যান্সের মতোই। ২-৩ গোলে ইস্টবেঙ্গল বিধ্বস্ত হল নিজামের শহরের ক্লাবের কাছে।

তারকা স্ট্রাইকার সান্তানা জোড়া গোল করে লাল হলুদের প্রথম জয়ের স্বপ্নে জল ঢালেন। শেষ পেরেক পোঁতেন হলিচরন নার্জরি। দ্বিতীয়ার্ধে ঝোড়ো এক স্পেলে ইস্টবেঙ্গলকে শেষ করে দিল হায়দরাবাদ। মাঝে দুই অর্ধে জোড়া গোল করে ম্যাচ জমিয়ে দেন মাঘোমা।

অথচ প্রথম গোল করে এদিন ইস্টবেঙ্গলকে রীতিমতো জয়ের স্বপ্ন দেখিয়েছিলেন জ্যাক মাঘোমা। দিনের শুরুটা অন্যরকম হয়েছিল এদিন। পিকলিংটনের স্টেইনম্যানকে নিখুঁত পাস বাড়িয়েছিলেন। সেখান থেকে বল পেয়ে দুরন্ত ফিনিশ করেন কঙ্গোলিজ মিডফিল্ডার।

দাপট ছিল হায়দরাবাদের। একের পর এক আক্রমণে ইস্টবেঙ্গলকে ম্যাচের শুরু থেকেই কোণঠাসা করে ফেলেছিল হায়দরাবাদ। খেলার গতির বিরুদ্ধেই কিছুটা গোল পেয়ে যায় ইস্টবেঙ্গল। এর পরে বিরতির ঠিক আগেই ইস্টবেঙ্গলকে গোল হজম করে ফেলতে পারত। সমতা ফেরানোর সুযোগ পায় হায়দরাবাদ। বক্সের মধ্যে শেহনাজ সিং ইয়াসিরকে ফাউল করেন।পেনাল্টি থেকে অবশ্য সুবিধা করতে পারেনি হায়দরাবাদ। সন্তানের স্পট কিক রুখে দেন দেবজিত।

প্রথমার্ধের খেলা দেখে যখন ইস্টবেঙ্গলের জয় নিয়ে অনেকেই আশাবাদী তখন দ্বিতীয়ার্ধে সান্তানা এন্ড কোং ঝড় তোলে। মাত্র এক মিনিটের ব্যবধানে জোড়া গোল করে যান সান্তানা। প্রথমার্ধের পেনাল্টি মিসের পাপস্খলন করে। প্রথমে ইয়াশিরের ফ্রি কিক থেকে নিখুঁত নিশানায় বল জালে রাখেন। সেই গোলের রেশ না কাটতেই আরো একটি গোল করে হায়দরাবাদকে ২-১ এ এগিয়ে দেন তিনি।

৬৯ মিনিটে হায়দরাবাদের হয়ে স্কোর ৩-১ করেন হোলিচরণ। তবে গোলের পুরো কৃতিত্বই লেস্টন কোলাসোর। গোয়ান তারকা দুই ইস্টবেঙ্গলের ডিফেন্ডারকে পেরিয়ে একদম মাপা পাস বাড়ান নার্জরিকে লক্ষ্য করে। গোলে বল ঠেলতে নার্জরি বিন্দুমাত্র ভুল করেননি।

ইস্টবেঙ্গল যখন প্রায় খাদের কিনারায় তখন ৮২ মিনিটে ফের একবার গোল করে মাঘোমা ম্যাচের মোড় ঘুরিয়ে দিয়েছিলেন। ডান দিক থেকে পিকলিংটন ক্রস বাড়ান। তা দারুণভাবে গোলে রাখেন মাঘোমা। ম্যাচের তখনও ১০ মিনিট বাকি ছিল। তবে সমতাসূচক গোল আর আসেনি।

এসসি ইস্টবেঙ্গল:
দেবজিত মজুমদার, নারায়ণ দাস, স্কট নেভিল, মহম্মদ ইরশাদ, শেহনাজ সিং (ইয়ামনান), পিকলিংটন, জ্যাক মাঘোমা, মহম্মদ রফিক, ম্যাটি স্টেইনম্যান, সিকে বিনীত, জেজে (সুরচন্দ্র)

হায়দরাবাদ এফসি:
সুব্রত পাল, চিঙ্গেলেসানা সিং, ওডেই অনাইন্ডিয়া, আকাশ মিশ্র, আশিষ রাই, নিখিল পূজারি, হোলিচরণ নার্জরি, হিতেশ শর্মা, মহম্মদ ইয়াসির (সৌভিক চক্রবর্তী), জোয়াও ভিক্টর, আরিদেন সান্তানা

আরো পড়ুন: হার দিয়ে ইনিয়েস্তার ক্লাবে কোচিং শুরু আলে-স্যারের! অবনমনের দিকে দল

ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস বাংলা এখন টেলিগ্রামে, পড়তে থাকুন

Get the latest Bengali news and Sports news here. You can also read all the Sports news by following us on Twitter, Facebook and Telegram.

Web Title: Isl 2020 atk mohun bagan vs hyderabad fc match report and analysis

Next Story
অবসর ভেঙে ফের মাঠে ফিরছেন যুবরাজ, ভারতীয় ক্রিকেটে চাঞ্চল্যকর আপডেট
The moderation of comments is automated and not cleared manually by bengali.indianexpress.com