বড় খবর

“রাতে দু:স্বপ্ন দেখতাম আমি কভার ড্রাইভ মারতে পারছি না”

আগামী মাসেই সংযুক্ত আরব-আমীরশাহীতে শুরু হচ্ছে আইপিএল। পাঁচ মাসের লম্বা গ্যাপের পর কতটা সাবলীল হতে পারবেন ক্রিকেটাররা। কী বললেন ভারতের ওপেনার লোকেশ রাহুল?

লকডাউনে বন্ধ হয়েছে খেলা। বন্ধ হয়েছে প্র্যাকটিস, জিম ট্রেনিং সেশন। ক্রিকেট কেরিয়ারের জন্য যা প্রয়োজন বন্ধ হয়েছিল সবটাই। এদিকে আগামী মাসেই সংযুক্ত আরব-আমীরশাহীতে শুরু হচ্ছে আইপিএল। পাঁচ মাসের লম্বা গ্যাপের পর কতটা সাবলীল হতে পারবেন ক্রিকেটাররা। কী বললেন ভারতের ওপেনার লোকেশ রাহুল?

কীভাবে এই লকডাউন দিনগুলি কাটালেন?

প্রথমদিকে খুব কষ্টসাধ্য ছিল। মনে হচ্ছিল ক্রিকেটের সঙ্গে সব সম্পর্ক শেষ। লকডাউন যত বেড়েছে ট্রেনিং করতে বাইরে যাওয়াও বন্ধ হয়েছে। কিন্তু যখন দেখলাম মানুষের অসুবিধার জায়গাগুলি। তখন আর নিজের কষ্ট, কষ্ট বলে মনে হত না। আমরা পরিবারের সঙ্গে বসে আছি, মাথার উপরে ছাদ, বিলাসবহুল জীবন। কিন্তু কত মানুষকে কত কিছু হারাতে হয়েছে। সেটা দেখে খারাপ লাগত।

সেই সময় নেতিবাচক চিন্তা আসেনি?

ঘরে বসে থাকলে সেই সব চিন্তা তো আসবেই। আমার ভয় হচ্ছিল আমি আরামপ্রিয় না হয়ে পড়ি। পরথম প্রথম ওরকম ভাবেই কাটাতাম সময়। কিন্তু পরে তা পরিবর্তন করি। চিন্তায় অনেক রাত না ঘুমিয়ে কাটিয়েছি। ভয় হত আগের মতো খেলতে যদি না পারি। তবে বেঙ্গালুরুতে প্র্যাক্টিস সেশনে এসে কিছুটা ভাল বোধ করি।

কিংস ইলেভেন পাঞ্জাবের দায়িত্ব আপনার কাঁধে। অধিনায়ক হওয়ার অর্থ কি আপনার কাছে?

আমি নিজেকে অধিনায়কের জায়গায় বসিয়েই সবসময় সেভাবেই ক্রিকেট খেলে যাই। সেই মুহুর্তে ক্যাপ্টেন হলে আমি কী করতাম সেটা ভাবি। তবে হ্যাঁ, ভাবনার থেকে বাস্তবের জায়গাটা আরও বড়। খেলার মাঠে সব কিছু পরিকল্পনা করে হয় না। সেই মুহুর্ত যেটা চাইবে সেটাই দিতে হবে।

লোকেশ রাহুল। ফাইল চিত্র

ধোনি, বিরাট কিংবা রোহিতদের দেখে কিছু শিখেছেন?

হ্যাঁ হ্যাঁ। অনেক কিছু। ধোনির শান্ত স্বভাব। যারা ম্যাচ জেতাতে পারে তাঁদের সবসময় সমর্থন করে আসা। বিরাট-রোহিতের প্যাশন। কীভাবে আরও আরও ভালো খেলা যায়।

ধোনির অবসরের খবর শুনে কী মনে হল?

দেশের সবার মতো আমিও খুব ইমোশনাল হয়ে পড়েছিলাম। আমরা ধোনির সঙ্গে আরও অনেকটা সময় ক্রিকেট খেলতে চেয়েছিলাম। কারণ ওর শান্ত স্বভাব, ড্রেসিং রুমে ওঁর উপস্থিতিটাই অনেকটা সাহায্য করত আমাদের।

এই আইপিএল-এ বড় চ্যালেঞ্জ কি হতে পারে?

এটা কঠিন হতে চলেছে, চ্যালেঞ্জিংও। কারণ অবস্থার বদল হয়েছে। প্র্যাক্টিস সেশনে প্রথম দিন যখন ব্যাট করতে নেমেছিলাম মনে হয়েছিল এটা কী খেলছি। কিন্তু সেটা ভাবার সময় নয়। আমাদের পরিস্থিতির সঙ্গে মানিয়ে নিতে হবে। এখনও তিন সপ্তাহ হাতে সময় আছে ভাল করে ট্রেনিং করার।

Read the full story in English

ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস বাংলা এখন টেলিগ্রামে, পড়তে থাকুন

Get the latest Bengali news and Sports news here. You can also read all the Sports news by following us on Twitter, Facebook and Telegram.

Web Title: Kl rahul spoke about his lockdown fears and hopes for the near future

Next Story
এ বছরেই অস্ট্রেলিয়ায় খেলতে যাবে ভারত, জানিয়ে দিলেন সৌরভ
The moderation of comments is automated and not cleared manually by bengali.indianexpress.com