বড় খবর

খিদেতে অজ্ঞান শ্রমিক, খাবার দিয়ে সাহায্যের হাত শামির

এই মুহূর্তে করোনার পাশাপাশি কেন্দ্রীয় ও রাজ্য সরকারের চ্যালেঞ্জ পরিযায়ী শ্রমিকদের কাছে খাবার পৌঁছে দেওয়া।

করোনায় লকডাউনের মেয়াদ বাড়ানো হয়েছে। করোনা মোকাবিলায় এই অস্ত্রেই প্রবল সমস্যায় পড়েছেন শ্রমিক, দিন আনা দিন খাওয়া দরিদ্ররা। এই লকডাইন চলাকালীনই দেশের ক্রিকেটার ও অন্যান্য ক্রীড়াবিদরা এগিয়ে এসেছেন দরিদ্রদের সাহায্যার্থে। এই মুহূর্তে করোনার পাশাপাশি কেন্দ্রীয় ও রাজ্য সরকারের চ্যালেঞ্জ পরিযায়ী শ্রমিকদের কাছে খাবার পৌঁছে দেওয়া। অনেক শ্রমিকই লকডাউনে যানবাহন না থাকায় হাজার হাজার কিমি পথ পাড়ি দিচ্ছেন বেপরোয়া হয়ে। এমনই এক নির্মম ঘটনা তুলে ধরেছেন জাতীয় দলের তারকা পেসার মহাম্মদ শামি।

তিনি জানিয়েছেন কিভাবে এক শ্রমিক তাঁর ঘরের সামনেই অনাহারে অজ্ঞান হয়ে পড়ে কিছুদিন আগে। মঙ্গলবারেই শামি ইনস্টাগ্রামের লাইভ সেশনে এসেছিলেন জাতীয় দলের অন্য এক তারকা যুজবেন্দ্র চাহালের সঙ্গে। সেখানেই তিনি শ্রমিকদের অসহায় অবস্থার এক দৃষ্টান্তের কথা তুলে ধরেন।

শামি বলছিলেন, “একজন রাজস্থান থেকে আসছিলো। গন্তব্য ছিল বিহার। যেটা লখনউ থেকেও অনেক দূরে। ঘরে যাওয়ার অন্য কোনো উপায়ও ছিল না। বাড়ির সিসিটিভি ক্যামেরায় দেখেছিলাম খিদেতে অজ্ঞান হয়ে যায় ও আমার বাড়ির দরজার সামনে। ওকে খাবার দিয়ে সাহায্য করেছিলাম।” জাতীয় দলের তারকা পেসার আরো জানিয়েছেন, “যতটা সম্ভব সাহায্য করার চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি। এখানে অনেক পরিযায়ী শ্রমিক রয়েছে যারা দিন যাপনে সত্যি সমস্যায় পড়েছেন। আমার বাড়ির সামনেই হাইওয়ে। দেখতে পাচ্ছি লোকে কতটা সমস্যার মুখে পড়েছে। এমন সময়ে নিজের সামর্থ্য মতো সাহায্য করার চেষ্টা করছি।” লকডাউনের সময় ঘরবন্দি থেকে কীভাবে সময় কাটাচ্ছেন তাও জানাচ্ছেন শামি। তিনি বলেছেন, “আমি রান্না করতে শিখেছি। রান্নাঘরে মাকে যতটা সম্ভব সাহায্য করছি।”

Get the latest Bengali news and Sports news here. You can also read all the Sports news by following us on Twitter, Facebook and Telegram.

Web Title: Mohammed shami helped hungry person near his home

Next Story
ফের ইংল্যান্ডে ভোগান্তি পোহাক কোহলি, ভারতীয় ক্যাপ্টেনের জন্য এমনটা কে চাইছেন?
The moderation of comments is automated and not cleared manually by bengali.indianexpress.com