জাতীয় দলে বাদ, কোহলিকে মাঠেই লাল চোখ সূর্যকুমারের, রইল ভিডিও

বেশ কয়েক মরশুম ধরেই সীমিত ওভারের ক্রিকেটে ধারাবাহিক সূর্যকুমার। ২০১৮ সালে মুম্বই ইন্ডিয়ান্সের সর্বোচ্চ রান সংগ্রাহক ছিলেন। ২০১৯ এ সূর্যকুমারের সংগ্রহে ৪২৪ রান।

জাতীয় দলে সুযোগ মেলেনি ধারাবাহিক পারফরম্যান্স করেও। তাই এবার মাঠেই শীতল দৃষ্টি দেখালেন সূর্যকুমার। তাও আবার অন্য কাউকে নয়, স্বয়ং বিরাট কোহলিকে। যা নিয়েও ম্যাচের পরেও জোর চর্চা।

অস্ট্রেলিয়া সফরে তিন ফরম্যাটেই সূর্যকুমারের সুযোগ না মেলায় একাধিক প্রাক্তন ক্রিকেটার সরব হয়েছেন। সঞ্জয় মঞ্জরেকর, হরভজন সিং থেকে সুনীল গাভাস্কার প্রত্যেকেই মুখ খুলেছেন। এর মধ্যেই ফের একবার আরসিবির বিরুদ্ধে ব্যাট হাতে ঝলসে উঠেছেন সূর্যকুমার। ব্যাট দিয়েই জবাব দিয়েছেন সমস্ত উপেক্ষার।

আরো পড়ুন: জাতীয় দল নির্বাচনে অন্তর্ঘাতের সম্ভাবনা, সৌরভকে তদন্ত করতে বললেন বেঙ্গসরকার

বুধবার রাতে ১৬৫ রান তাড়া করতে নেমে ৪২ বলে ৭৫ রানের ইনিংস খেলে দলকে জিতিয়ে মাঠ ছেড়েছেন। নির্বাচকদের বার্তা পাঠিয়েছেন, ব্রাত্য করা হলেও ব্যাটে রানের গতি কমবে না। ম্যাচের সেরা অন্য কাউকে ভাবা যায়নি।

এই ম্যাচেই আবার অন্য কারণে শিরোনামে উঠে এলেন তিনি। ১৩তম ওভারের ঘটনা। ষষ্ঠ বলে ডেল স্টেইনের বল এক্সট্রা কভার দিয়ে হাঁকান তিনি। যেখানে ফিল্ডিং করছিলেন বিরাট কোহলি। সেটাই ওভারের শেষ বল হওয়ায় কোহলি ক্রিজের দিকেই হাঁটতে থাকেন। সেই সময় নীরব দৃষ্টি নিয়ে কোহলির দিকে বেশ কয়েক সেকেন্ড তাকিয়ে ছিলেন তিনি। ক্রোধ আর হতাশা যেন মাখামাখি হয়ে ছিল সূর্যকুমারের দৃষ্টিতে। তাঁর দিকে সূর্যকুমার তাকিয়ে আছেন দেখে কোহলিও কড়া দৃষ্টিতে চোখ রাখেন মুম্বইয়ের তারকার দিকে। বেশ কিছুক্ষণ চোখে চোখ রাখার পর দুই তারকাই এগিয়ে যান।

ম্যাচের পরেই মুম্বইয়ের অস্থায়ী অধিনায়ক কায়রণ পোলার্ড জানিয়ে দেন, সূর্যকে শীঘ্রই সুযোগ পাবেন জাতীয় দলে। পোলার্ড জানান, “জাতীয় দলে সুযোগ না পাওয়ায় ভিতরে ভিতরে সূর্যকুমার ভীষণ হতাশ। ও কিন্তু প্রতি মুহূর্তেই উন্নতি করছে। ও যদি এভাবেই ধারাবাহিকতা দেখাতে পারে, নিশ্চিত পুরস্কার পাবে।”

এর আগে বেঙ্গসরকার সৌরভকে উদ্দেশ্য করে বলেছিলেন, “একজন ব্যাটসম্যান ২৬ থেকে ৩৪ বছরের মধ্যে সেরা ফর্মে থাকে। এই মুহূর্তে সূর্য (৩০ বছর) ফর্মের তুঙ্গে রয়েছে। যদি ফর্ম এবং ফিটনেস বিবেচ্য না হয়, তাহলে যোগ্যতামান কী? কেউ কি আমাকে বলতে পারবে? রোহিত হ্যামস্ট্রিংয়ে চোট পেয়ে ছিটকে যাওয়ায় সূর্যকুমারকে রাখা উচিত ছিল মিডল অর্ডারকে শক্তপোক্ত করার জন্য। বোর্ড সভাপতি সৌরভকে দেখতে হবে সূর্যকুমারকে বাদ দেওয়ার পিছনে মোটিভ কী!”

বেশ কয়েক মরশুম ধরেই সীমিত ওভারের ক্রিকেটে ধারাবাহিক সূর্যকুমার। ২০১৮ সালে মুম্বই ইন্ডিয়ান্সের সর্বোচ্চ রান সংগ্রাহক ছিলেন। ২০১৯ এ সূর্যকুমারের সংগ্রহে ৪২৪ রান। দ্বিতীয় সর্বোচ্চ স্কোরার হয়েছিলেন গত বছর। সৈয়দ মুস্তাক আলি ট্রফিতে মুম্বইয়ের জার্সিতেও দ্বিতীয় সর্বোচ্চ রান স্কোরার হন। ৫১ গড়ে করেছিলেন ৩৬০ রান। এমন পারফরমেন্সের পরেও জাতীয় ফলে সুযোগ না পাওয়ায় প্রবল বিতর্ক তৈরি হয়েছে।

ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস বাংলা এখন টেলিগ্রামে, পড়তে থাকুন

Get the latest Bengali news and Sports news here. You can also read all the Sports news by following us on Twitter, Facebook and Telegram.

Web Title: Suryakumar yadavs dead end stare at virat kohli trends on social media

Next Story
আঙুল উঁচিয়ে মরিসকে আক্রমণ হার্দিকের, মাঠেই বেনজির কাণ্ডে স্তম্ভিত আইপিএল
The moderation of comments is automated and not cleared manually by bengali.indianexpress.com