ক্যানসার রোগীদের জন্য অত্যাধুনিক প্রযুক্তি খোদ কলকাতার সরকারি হাসপাতালে

কেমো নিতে গেলে এতদিন ক্যানসার আক্রান্ত রোগীর যে কষ্ট হত, তা এই মেশিনের ক্ষেত্রে হবে না। বলা যেতে পারে ক্যানসার রোগীদের জন্য অন্যতম দামী ও আপগ্রেডেড মেশিন লিনিয়ার অ্যাক্সিলারেটর বা লাইন্যাক মেশিন।

By: Kolkata  Dec 9, 2018, 6:15:48 AM

ক্যানসার রোধে অত্যাধুনিক চিকিৎসা ব্যবস্থা এবার মিলবে কলকাতায়, সৌজন্যে নীলরতন সরকার হাসপাতাল, এবং সাধারণ মানুষের কাছে ক্যানসার চিকিত্‍সা বিনামূল্যে পৌঁছে দেওয়ার ব্যাপারে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের উদ্যোগ।

এই সরকারি হাসপাতালের রেডিওথেরাপি বিভাগের উদ্যোগেই শুরু হয়েছে এই পরিষেবা, যার কেন্দ্রস্থলে রয়েছে একটি মেশিন। হাসপাতাল সূত্রে জানা গেছে, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র থেকে নিয়ে আসা হয়েছে এই অত্যাধুনিক মেশিন। যার পোশাকি নাম লিনিয়ার অ্যাক্সিলারেটর। এই মূহুর্তে দুটি মডেল নিয়ে রাখা হয়েছে নীলরতন সরকার হাসপাতালে। একটি ট্রুবিম অন্যটি ভাইটাল বিম। মেশিনটি বসাতে খরচ হয়েছে ৫০ কোটি টাকা। তবে হাসপাতাল সূত্রে জানা গিয়েছে, আলাদা করে ঝাঁ চকচকে একটি ভবন নির্মাণ করা হয়েছে এই দুটি মেশিনের জন্য।

এতদিন কোবাল্ট মেশিনের মাধ্যমে রাজ্যের ক্যানসার আক্রান্ত রোগীদের কেমোথেরাপি দিতে হত। এবার থেকে নিখরচায় কেমো দেওয়া সম্ভব হবে লিনিয়ার অ্যাক্সিলারেটর মেশিনের মাধ্যমে। ভিনরাজ্যে বা টাটা ইনস্টিটিউটে যে ভারী খরচের বিনিময়ে পরিষেবা পান রোগী ও তাঁর পরিবার, তা বিনামূল্যে সম্ভব নীলরতন সরকার হাসপাতালে।

আরও পড়ুন: ব্যস্ত শহরে রোগীর বাহন এক অভিনব অ্যাম্বুলেন্স

এই অত্যাধুনিক যন্ত্রের মাধ্যমে মানব শরীরের কোথায় ক্যানসার হয়েছে, তা যেমন দ্রুত জানা যাবে, ক্যানসার কী অবস্থায় আছে, তাও জানা সম্ভব হবে। শরীরের যে অংশ ক্যানসারে আক্রান্ত, শুধুমাত্র সেই অংশকেই রেডিওথেরাপির মাধ্যমে কেমো দেওয়া সম্ভব। এতে পার্শ্ববর্তী অন্যান্য টিস্যু ক্ষতিগ্রস্ত হবে না। ট্রুবিম ও ভাইটাল বিম উভয় মেশিনকে একটি বাঙ্কারে বসানো হয়েছে। যার ফলে কোনোভাবেই রেডিয়েশন বাইরে যাবে না। কেমো নিতে গেলে এতদিন ক্যানসার আক্রান্ত রোগীকে যে কষ্ট ভোগ করতে হত, তা এই মেশিনের ক্ষেত্রে হবে না।

আরও পড়ুন: “চিকিৎসার জন্য আর দক্ষিণ ভারতে যাওয়ার দরকার হবে না”

বেসরকারি সংস্থায় রেডিওথেরাপির মাধ্যমে কেমোথেরাপির সেশন পিছু খরচ হয়ে থাকে কয়েক লাখ টাকা। উল্লেখ্য, কেমো দেওয়ার পদ্ধতি, কোথায় কেমো দেওয়া হয়েছে, এই সবকিছুই আসে মোটা অঙ্কের টাকার বিনিময়ে। তবে নীলরতন সরকার হাসপাতালে তা এখন সম্পূর্ণ বিনামূল্যে সম্ভব। হাসপাতাল সূত্রে খবর, প্রায় ৩ কোটি টাকা খরচ করে তৈরি করা হয়েছে নতুন ভবন।

প্রসঙ্গত, এখনও সেভাবে চিকিৎসার কাজ শুরু হয়নি। কারণ মেশিন বসানোর কাজ, সেটআপের কাজ শেষ হতে আরও বেশ কিছুদিন সময় লাগবে। মেশিন এসে উপস্থিত হলেও প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত কোনো কর্মী নেই, যাঁরা এই মেশিন চালনা করতে পারবেন। তবে কয়েকজন ডাক্তার মাঝেমধ্যে কিছু রোগীকে লিনিয়ার অ্যাক্সিলারেটরের মাধ্যমে কেমো দিয়ে থাকেন। সম্পূর্ণভাবে মেশিনটির সঙ্গে অভ্যস্ত হতে আরও বেশ কিছুদিন সময় লাগবে।

Indian Express Bangla provides latest bangla news headlines from around the world. Get updates with today's latest West-bengal News in Bengali.


Title: Cutting edge cancer treatment: অত্যাধুনিক প্রযুক্তি খোদ সরকারি হাসপাতালে

Advertisement