scorecardresearch

বড় খবর

বিভ্রান্ত তৃণমূল? ‘কাউকে ডিফেন্ড নয়’ বলেও অনুব্রতর বিরুদ্ধে পদক্ষেপহীন জোড়া-ফুল

‘দলের একটা সিস্টেম রয়েছে। শৃঙ্খলা-রক্ষা কমিটি রয়েছে। নেত্রী রয়েছেন। যথা সময়ে সব জানানো হবে।’

বিভ্রান্ত তৃণমূল? ‘কাউকে ডিফেন্ড নয়’ বলেও অনুব্রতর বিরুদ্ধে পদক্ষেপহীন জোড়া-ফুল
অনুব্রতর গ্রেফতারির পর কী অবস্থান তৃণমূলের?

দুর্নীতির বিরুদ্ধে জিরো টলারেন্সের কথা বলেছে তৃণমূল। কিন্তু, গরু পাচারকাণ্ডে ধৃত বীরভূমের জেলা তৃণমূল সভাপতির গ্রেফতারির পরও কড়া পদক্ষেপ করতে পারল না রাজ্যের শাসক দল। মন্ত্রী চন্দ্রিমা ভট্টাচার্য সাফ বললেন, ‘দলের একটা সিস্টেম রয়েছে। শৃঙ্খলা-রক্ষা কমিটি রয়েছে। নেত্রী রয়েছেন। যথা সময়ে সব জানানো হবে।’ তার আগে তিনি বলেছেন, ‘কোনও অনৈতিক ও দুর্নীতিযুক্ত কাজকে দল প্রশ্রয় দেয় না। দলের সাংসদ তথা সর্বভারতীয় সাধারণ সম্পাদক অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় আগেই বলেছেন, দুর্নীতিকে কোনও ভাবেই মেনে নেবে না দল। একই কথা বলেছেন আমাদের সর্বোচ্চ নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। মানুষের পক্ষে ক্ষতিকর এমন কোনও কাজ কোনও ব্যক্তি করলে, মানুষকে ঠকালে দল কোনও ভাবেই কাউকে সমর্থন করবে না।’

গ্রেফতারের পাঁচদিনের মাথায় মন্ত্রিত্ব ও দলীয় সব পদ থেকে সরানো হয়েছিল পার্থ চট্টোপাধ্যায়কে। গরু পাচারকাণ্ডে সিবিআই হেফাজতে অনুব্রত মণ্ডল। তারপরই প্রশ্ন ওঠে, পার্থর পথেই হেঁটেই কী মমতার প্রিয় কেষ্টর বিরুদ্ধে পদক্ষেপ করবে তৃণমূল? বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় তা নিয়েই অবস্থান স্পষ্ট করার চেষ্টা করল রাজ্যের শাসক দল। তবে বিভ্রান্তি থেকেই গেল।

তৃণমূল মুখপাত্র সমীর ভট্টাচার্যের কথায়, ‘গ্রেফতার হলেই দোষী নয়। যদিও তৃণমূল কংগ্রেস কাউকে ডিফেন্ড করবে না। কিন্তু বর্ডারটা পার হল কী করে? গরু তো পিঁপড়ে নয়। তাহলে সীমান্ত পেরিয়ে কীভাবে গরুগুলো গেল। কেন তাহলে বিএসএফ-কে গ্রেফতার করা হবে না?’

আরও পড়ুন- Live: ১০ দিনের CBI হেফাজতে অনুব্রত মণ্ডল

তাহলে কী অনুব্রত মণ্ডলের বিরুদ্ধে এখনই কোনও পদক্ষেপ করবে না শাসক দল? জবাবে চন্দ্রিমাদেবী বলেন, ‘দলের একটা সিস্টেম রয়েছে। শৃঙ্খলা-রক্ষা কমিটি রয়েছে। নেত্রী রয়েছেন। যথা সময়ে সব জানানো হবে।’

এদিনের সাংবাদিক বৈঠক থেকে সিবিআই, ইডি-র নিরপেক্ষতা নিয়ে পের প্রশ্ন তুলেছেন তৃণমূল নেতৃত্ব। চন্দ্রিমা ভট্টাচার্যের অভিযোগ, ‘কেন্দ্রীয় গোয়েন্দা সংস্থাগুলো কেন নিরপেক্ষ চেহারা হারাচ্ছে? এটা আমাদের প্রশ্ন। দুর্বল হয়ে যাচ্ছে তদন্তকারী সংস্থাগুলির চেহারা। আমরা এটা আশা করি, নিরপেক্ষ হয়ে সবার সঙ্গে একই ব্যবস্থা নেওয়া হোক। কেন্দ্রের শাসক দলে যারা থাকেন, তাদের বিরুদ্ধে কেন কোনো পদক্ষেপ হয় না? হিমন্ত বিশ্বশর্মার বিরুদ্ধে তদন্ত শুরু হল, অথচ উনি যাওয়ার পর তদন্ত কোথায় গেল? কিন্তু কেন্দ্রীয় শাসক দলের বিরোধী দলের হলেই তাঁর বিরুদ্ধে যত সক্রিয়তা।’

শুভেন্দু অধিকারীর প্রসঙ্গ উত্থাপণ করে চন্দ্রিমাদেবী বলেন, ‘বিরোধী দলনেতার বিরুদ্ধে বহু অভিযোগ। সারদা কর্তা অনেক কিছু বলে গেলেন। তাদের কোনও ডাকাডাকি নেই। এমনকি তার ভাইয়ের বিরুদ্ধে পুরসভার নথিপত্র সরিয়ে দেওয়ারযে অভিযোগ সেখানেও তো দেখছি না ইডি, সিবিআই যাচ্ছে।’

সিবিআই-ইডির নিরপেক্ষতার দাবি, কেন্দ্রীয় প্রতিহিংসার বিরুদ্ধে শুক্রবার পথে নামছে তৃণমূলের ছাত্র, যুব সংগঠন।

Stay updated with the latest news headlines and all the latest Westbengal news download Indian Express Bengali App.

Web Title: Tmc on anubrata mondal arrest