scorecardresearch

বড় খবর

সোশাল মিডিয়ায় ভুয়ো খবরে ‘সেরার সেরা’ বাংলা, এনসিআরবি রিপোর্ট

ন্যাশনাল ক্রাইম রেকর্ডস ব্যুরো (এনসিআরবি) প্রকাশিত তথ্য অনুসারে, পশ্চিমবঙ্গে সোশাল মিডিয়ায় ৪৩টি ভুয়ো খবরের ঘটনা ঘটেছে। এরমধ্যে শুধুমাত্র কলকাতায় ভুয়ো খবরের সংখ্যা ২৮টি৷

সোশাল মিডিয়ায় ভুয়ো খবরে ‘সেরার সেরা’ বাংলা, এনসিআরবি রিপোর্ট
ভুয়ো খবরে দেশের শীর্ষে পশ্চিমবঙ্গ।

একুশে ভোটের বছর সোশাল মিডিয়ায় ভুয়ো খবরের সংখ্যায় এগিয়ে বাংলা। এনসিআরবি রিপোর্ট অনুসারে, যা সারা দেশে মোট এই ধরনের মামলার প্রায় এক-চতুর্থাংশ। ন্যাশনাল ক্রাইম রেকর্ডস ব্যুরো (এনসিআরবি) প্রকাশিত তথ্য অনুসারে, পশ্চিমবঙ্গে সোশাল মিডিয়ায় ৪৩টি ভুয়ো খবরের ঘটনা ঘটেছে। এরমধ্যে শুধুমাত্র কলকাতায় ভুয়ো খবরের সংখ্যা ২৮টি৷

১৯ সালের লোকসভা ভোটে বিজেপির ভোট ব্যাংকে ব্যাপক উত্থান ঘটে। গেরুয়া দলের টার্গেট ছিল ২১শের ভোট। পাল্টা তৃণমূলও বাংলার রাশ ধরে রাখতে মরিয়া ছিল। ফলে প্রচারের উত্তাপ তুঙ্গে উঠেছিল। সোশাল মিডিয়ায় প্রচার, তরজা অন্য মাত্রায় পৌঁছেছিল। সামাজিক মাধ্যমে মাত্রা ছাড়া উত্তেজনা ছড়ায়।

যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ের সাংবাদিকতা ও গণযোগাযোগ বিভাগের প্রধান অধ্যাপক চট্টোপাধ্যায়ের কথায়, “এটি উদ্বেগের বিষয় কিন্তু আশ্চর্যজনক নয়। কারণ পোস্ট-ট্রুথ যুগে রাজনৈতিক প্রচার, জনগণের কাছে পৌঁছানোর জন্য অনৈতিক উপায় গ্রহণ করছে। এটি আরও প্রাধান্য পাচ্ছে।”

তাঁর সংযোজন, “আইনি সমস্যার চেয়েও এটি একটি নৈতিক বিষয়। এই বিপদ মোকাবেলায় আমাদের নৈতিক কাঠামোকে শক্তিশালী করতে হবে। জনগণকে সচেতন করার জন্য কিছু প্রচেষ্টা করা হচ্ছে তবে আমাদের আরও সমন্বিত প্রচেষ্টা দরকার।”

তালিকায় পশ্চিমবঙ্গের পরেই রয়েছে তেলেঙ্গানা। ওই রাজ্যে ৩৪টি এবং উত্তর প্রদেশ ২৪টি ভুয়ো খবর ধরা পড়েছে। সব মিলিয়ে ভারতে ১৭৯টি মামলার রিপোর্ট হয়েছে। শতাংশের বিচারে পশ্চিমঙ্গের ক্ষেত্রে যায় ২৪ শতাংশ।

দেশের ১৯টি মেট্রো শহরে রেকর্ড করা সমস্ত অপরাধের প্রায় ৬০ শতাংশই কলকাতার। তিলোত্তমায় ভুয়ো খবরের সংখ্যা ২৮টি। কলকাতার পরেই রয়েছে মুম্বই এবং হায়দ্রাবাদ। এই দুই শহরেই ৮টি করে মামলা রেকর্ড করা হয়েছিল।

এদিকে বাংলায় ভুয়ো খবরের ঘটনা বৃদ্ধির জন্য তৃণমূল কংগ্রেস এবং বিজেপি একে অপরকে দায়ী করেছে।

তৃণমূলের মুখপাত্র দেবাংশু ভট্টাচার্য অভিযোগ করেছেন যে, রাজ্যে বিজেপির উত্থানের সঙ্গেই পশ্চিমবঙ্গে ভুয়ো খবর বেড়েছে। সামাজিক মিডিয়া প্ল্যাটফর্মগুলিকেও এর জন্য দায়ী করা উচিত। দেশের অন্যান্য অংশে ভুয়ো খবরের সংস্কৃতি বিদ্যমান ছিল কিন্তু পশ্চিমবঙ্গ ছিল ব্যতিক্রম।”

দেবংশুর সংযোজন, “বিজেপি কেন্দ্রে ক্ষমতায় আসার পরে, সোশাল মিডিয়া প্ল্যাটফর্মগুলি কেনার চেষ্টা করেছিল। আমাদের অভিজ্ঞতায়, আমরা দেখেছি যে আমরা যদি অন্য কোনও হ্যান্ডেল দ্বারা পোস্ট করা জাল খবর রিপোর্ট করি, তবে সেই পোস্টগুলি অবিলম্বে সরিয়ে দেওয়া হবে। তবে বারবার রিপোর্ট করা সত্ত্বেও বিজেপির প্রচারের ভুয়ো পোস্টগুলির বিরুদ্ধে কোনও পদক্ষেপ করা হয়নি।”

পশ্চিমবঙ্গ বিজেপির সোশাল মিডিয়া ইনচার্জ উজ্জ্বল পারীক জানিয়েছেন, তার দল গত বছরের বিধানসভা নির্বাচনের সময় সোশাল মিডিয়াতে একটি ইতিবাচক প্রচার চালিয়েছিল এবং টিএমসিকে বেশি সংখ্যক জাল খবরের মামলার জন্য দায়ী করেছিল। তিনি বলেন, “আমরা সোশাল মিডিয়া ব্যবহারে অত্যন্ত দায়িত্বশীল ছিলাম এবং জনগণের সমস্যা তুলে ধরে একটি ইতিবাচক প্রচারের নেতৃত্ব দিয়েছিলাম। এটা বেশ স্পষ্ট যে টিএমসি ভুয়ো খবর করেছিল।”

সিপিআই(এম) এই বিপদের জন্য টিএমসি এবং বিজেপি উভয়কেই দায়ী করেছে, দাবি করেছে যে দুটি দল একে অপরের দৃষ্টিভঙ্গি এবং কীভাবে তাদের ব্যবহার করতে হবে তা জানে। “কেউ এই ইস্যুতে আমাদের বিরুদ্ধে অভিযোগ তুলতে পারে না কারণ আমরা কিছু নীতি বজায় রাখি।”

কলকাতা প্রেসক্লাবের সভাপতি স্নেহাশীষ সুর বলেন, “সংবাদ প্রকাশের আগে সাংবাদিকদের তাদের তথ্য কয়েকবার যাচাই করা উচিত। এছাড়াও, একজন সাংবাদিকের কখনই রিপোর্ট করার সময় যে কোনও বিষয়ে ধারণাকে উপেক্ষা করা উচিত নয়। সন্দেহ হলেই যাচাই খবর যাচাই করা উচিত।”

Stay updated with the latest news headlines and all the latest Westbengal news download Indian Express Bengali App.

Web Title: West bengal topped in fake news cases in 2021 on social media