scorecardresearch

বড় খবর

বাংলায় সপ্তাহে দু’দিন পুরো লকডাউন, গোষ্ঠী সংক্রমণের আশঙ্কা

রাজ্য়ের কোথাও কোথাও গোষ্ঠী সংক্রমণ হয়েছে বলে ধারণা করা হচ্ছে বলে এদিন জানালেন স্বরাষ্ট্রসচিব।

lockdown, coronavirus, লকডাউন, করোনাভাইরাস
ফাইল ছবি।

বাংলায় করোনা রুখতে এবার নয়া লকডাউন কৌশল নিল মমতা সরকার। পশ্চিমবঙ্গে এবার থেকে প্রতি সপ্তাহে দু’দিন করে সম্পূর্ণ লকডাউন লাগু করা হবে। চলতি সপ্তাহে বৃহস্পতিবার ও শনিবার রাজ্য়জুড়ে সম্পূর্ণ ও কড়া লকডাউন জারি থাকবে বলে এদিন নবান্নে জানালেন স্বরাষ্ট্রসচিব আলাপন বন্দ্য়োপাধ্য়ায়। আগামী সপ্তাহে বুধবার রাজ্য়ে পুরো লকডাউন থাকবে। আরেকটি দিন কবে তা পরে ঘোষণা করা হবে বলে জানিয়েছেন স্বরাষ্ট্রসচিব।

রাজ্য়ের কোথাও কোথাও গোষ্ঠী সংক্রমণ হয়েছে বলে ধারণা করা হচ্ছে বলে এদিন জানালেন স্বরাষ্ট্রসচিব। এ প্রসঙ্গে আলাপন বন্দ্য়োপাধ্য়ায় জানান, ”বিভিন্ন বিশেষজ্ঞদের সঙ্গে কথা বলে ধারণা করা হচ্ছে যে গোষ্ঠী সংক্রমণ হয়েছে। সেই ব্য়াপারটি বিবেচনা করে সপ্তাহে দু’দিন লকডাউন জারি করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে”।

উল্লেখ্য়, দেশে গোষ্ঠী সংক্রমণ হয়েছে বলে সম্প্রতি দাবি করেছে আইএমএ। পাশাপাশি কেরলেও গোষ্ঠী সংক্রমণের কথা মেনেছেন সে রাজ্য়ের মুখ্য়মন্ত্রী পিনারাই বিজয়ন। এই প্রেক্ষাপটে বাংলায় যেভাবে রোজই সংক্রমণের সংখ্য়া বাড়ছে, তাতে এদিন যে আশঙ্কার কথা বললেন স্বরাষ্ট্রসচিব, তা ‘উদ্বেগজনক’ বলেই মনে করছে সংশ্লিষ্ট মহলের একাংশ।

প্রসঙ্গত, গত শনিবারই সাংবাদিক বৈঠকে রাজ্য়ের মুখ্য়সচিব রাজীব সিনহা জানিয়েছিলেন, বাংলার পরিস্থিতি ‘উদ্বেগজনক নয়’। একইসঙ্গে তিনি জানান, রাজ্য়ে সার্বিকভাবে আর লকডাউন জারির পরিকল্পনা নেই, যদি না পরিস্থিতি আরও মারাত্মক হয়। এদিকে, কনটেনমেন্ট জোনভুক্ত এলাকাতেই শুধুমাত্র পূর্ণ লকডাউন চলছে।

অন্য়দিকে, করোনায় রাজ্য়ে ইন্টিগ্রেটেড হেল্পলাইন নম্বর চালু করল রাজ্য় সরকার। ইন্টিগ্রেটেড হেল্পলাইন নম্বরগুলি হল- ১৮০০৩১৩৪৪৪২২২ ও ০৩৩২৩৪১২৬০০। টেলি-মেডিসিন পরিষেবার জন্য় হেল্পলাইন নম্বরটি হল ০৩৩-২৩৫৭৬০০১। অ্য়াম্বুল্য়ান্স পরিষেবার জন্য় হেল্পলাইন নম্বরটি হল- ০৩৩-৪০৯০২৯২৯

 

ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস বাংলা এখন টেলিগ্রামে, পড়তে থাকুন

Stay updated with the latest news headlines and all the latest Westbengal news download Indian Express Bengali App.

Web Title: Westbengal complete lockdown twice a week corona community transmission