WHO says Omicron may increase the number of death:হাসপাতালে ভর্তির সংখ্যা বাড়বে, পাল্লা দিয়ে বাড়বে মৃত্যুও, ওমিক্রন নিয়ে সাবধানবানী WHO-এর | Indian Express Bangla

হাসপাতালে ভর্তির সংখ্যা বাড়বে, পাল্লা দিয়ে বাড়বে মৃত্যুও, ওমিক্রন নিয়ে সাবধানবাণী WHO-এর

এখনই লাগাম টানার পরামর্শ WHO- এর!

হাসপাতালে ভর্তির সংখ্যা বাড়বে, পাল্লা দিয়ে বাড়বে মৃত্যুও, ওমিক্রন নিয়ে সাবধানবাণী WHO-এর

সারা দেশে বিদ্যুৎ গতিতে বেড়েছে ওমিক্রন সংক্রমণ। বঙ্গেও লাফিয়ে বাড়ছে আক্রান্তের সংখ্যা। ইতিমধ্যেই সংখ্যাটা ২০ হাজারের দোরগোড়ায়, একের পর এক ডাক্তার, স্বাস্থ্যকর্মী আক্রান্ত হচ্ছেন ওমিক্রনে। চিকিৎসা পরিষেবা স্বাভাবিক রাখা নিয়ে ইতিমধ্যেই কপালে চিন্তার ভাঁজ পড়েছে রাজ্য স্বাস্থ্য দফতরের। এর মধ্যেই নতুন করে আতঙ্ক বাড়িয়েছে বিশ্বস্বাস্থ্য সংস্থার সাবধানবানী। কী বলেছে WHO, করোনা ভাইরাসের নয়া প্রজাতি ‘ওমিক্রন’-এর জেরে হাসপাতালে ভর্তি রোগী ও মৃতের সংখ্যা বাড়তে পারে। আর তাতেই রাতের ঘুম উড়েছে সকলের।

সম্প্রতি এক বিবৃতিতে WHO জানিয়েছে, করোনার নতুন প্রজাতি জন্য বাড়ছে সংক্রমণ। সংক্রমিতের সংখ্যা বৃদ্ধি নিয়ে গোটা বিশ্ব উদ্বিগ্ন। WHO-এর বার্তা, ‘আমরা মনে করছি, হাসপাতালে ভর্তি হওয়া রোগী ও মৃতের সংখ্যা বাড়তে পারে।’ তবে ‘ওমিক্রন’-সংক্রমণ ও সংক্রমিতদের সম্পর্কে স্পষ্ট ধারণা পেতে আরও তথ্য পাওয়া দরকার বলে মনে করছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা। এর জন্য হাসপাতালে ভর্তি ওমিক্রন-সংক্রমিতদের বিস্তারিত তথ্য সমস্ত হাসপাতাল থেকে জোগাড় করে WHO কোভিড-১৯ ক্লিনিক্যাল ডেটা প্ল্যাটফর্ম’-এ তুলে ধরার ব্যাপারে সমস্ত দেশকে একসঙ্গে কাজ করার কথা বলেছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা। WHO-র ডিরেক্টর জেনারেল টেড্রস ঘেব্রেইসাস গত সপ্তাহেই ‘দ্রুত সংক্রমণ বৃদ্ধির একটি সামঞ্জস্যপূর্ণ ছবি’ তুলে ধরেছিলেন। তবে করোনা ভাইরাসের অন্য প্রজাতির তুলনায় ‘ওমিক্রন’-এর জেরে সংক্রমণের সঠিক হার এখনই বলা কঠিন বলে তিনি জানিয়েছিলেন।

প্রসঙ্গত, অতিরিক্ত মিউটেশন সম্পন্ন ‘ওমিক্রন’ ভ্যাকসিনের কার্যকারিতা হ্রাস করে দ্রুত ছড়িয়ে পড়তে সক্ষম বলে দিন দুয়েক আগেই আশঙ্কা প্রকাশ করেছে WHO। এমনকি ফের গোষ্ঠী সংক্রমণ শুরু হলে ‘ডেল্টা’-র ভয়াবহতাকেও ‘ওমিক্রন’ ছাপিয়ে যাবে বলে সতর্কবার্তা দিয়েছেন WHO-র বিজ্ঞানীরা। এর অন্যতম কারণ হিসাবে দ্রুত সংক্রমণ ছড়ানোর তথ্য তুলে ধরছেন তাঁরা। গত ২৪ নভেম্বর প্রথম দক্ষিণ আফ্রিকায় ‘ওমিক্রন’-এর হদিশ পাওয়া যায়। তারপর চলতি মাসের ৯ তারিখ অর্থাৎ এক পক্ষকালের মধ্যেই ৬৩টি দেশে ‘ওমিক্রন’ ছড়িয়ে পড়েছে বলে জানিয়েছে WHO। সম্প্রতি ভারতে ওমিক্রন আক্রান্তের যে সংখ্যা উঠে এসেছে তা রীতিমত ভয় ধরাচ্ছে সকলের মনে। জনস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞ থেকে শুরু করে সাধারণ মানুষ এখনই পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনার জন্য সরকারের কাছে সবরকম পদক্ষেপের দাবী জানিয়েছেন। তা না হলে। দ্রুত পরিস্থিতি হাতের বাইরে চলে যাবে মত তাঁদের

Stay updated with the latest news headlines and all the latest World news download Indian Express Bengali App.

Web Title: Who says omicron may increase the number of death

Next Story
করোনার নয়া স্ট্রেন IHU নিয়ে অযথা আতঙ্ক নয়, সাফ জানিয়ে দিল WHO