scorecardresearch

রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধের ঝাঁজ পাইকারি বাজারে, উর্ধ্বমুখী হবে ভোজ্য তেলের দাম

সানফ্লাওয়ার, সয়াবিন তেলের দাম আকাশছোঁয়া হতে চলেছে।

Edible oil price hike in India
Edible oil price touches sky: অর্থনীতি থেকে শুরু করে মূল্যবৃদ্ধি, পেট্রোপণ্যের আকাশছোঁয়া দামের মতো প্রভাব পড়বে ভোজ্য তেলেও।

ইউক্রেনে রাশিয়ার হামলা অনেক প্রশ্ন, সঙ্কটের মুখে ফেলে দিয়েছে গোটা বিশ্বকে। অর্থনীতি থেকে শুরু করে মূল্যবৃদ্ধি, পেট্রোপণ্যের আকাশছোঁয়া দামের মতো প্রভাব পড়বে ভোজ্য তেলেও। সবচেয়ে বেশি প্রভাবিত হবে সূর্যমুখী ফুলের তেল। কারণ সাবেক সোভিয়েত ইউনিয়নের সদস্য ইউক্রেন হল বিশ্বের এক নম্বর সূর্যমুখী ফুলের তেলের উৎপাদক।

ইউক্রেন থেকে অপরিশোধিত সূর্যমুখী তেল বা সানফ্লাওয়ার ওয়েল গোটা বিশ্বে রফতানি হয়। রাশিয়া ইউক্রেনের বিরুদ্ধে যুদ্ধ ঘোষণা করতেই এবার চড়চড়িয়ে বাড়তে চলেছে ভোজ্য তেলের দাম। উৎপাদক থেকে পাইকারি-খুচরো ব্যবসায়ীরা উর্ধ্বমুখী দামের বিষয়ে সতর্ক করেছেন আগেই। জোগানেও ঘাটতি হতে পারে বলে আশঙ্কা তাঁদের।

যদি ২০২০-২১ সালের তেলে সরবরাহ বর্ষ দেখা যায়, তাহলে ভারত প্রায় ১৯ লক্ষ টন অপরিশোধিত সানফ্লাওয়ার তেল আমদানি করেছে গোটা বিশ্ব থেকে। তার মধ্যে ১৪ লক্ষ টন শুধু ইউক্রেন থেকেই এসেছে। বাকিটা আর্জেন্টিনা এবং রাশিয়া থেকে। ইউক্রেনই হল ভারতের সবচেয়ে বড় তেল সরবরাহকারী দেশ।

আরও পড়ুন পুতিনের ঘোষণায় ব্যাপক ধস শেয়ার বাজারে, পড়ল সেনসেক্স-নিফটি

সলভেন্ট অ্যান্ড এক্সট্র্যাক্টর অ্যাসোসিয়েশনের (ভোজ্য তেলে উৎপাদক সংস্থাগুলির সংগঠন) সভাপতি অতুল চতুর্বেদী বলেছেন, তেলের দাম ঊর্ধ্বমুখী হবেই। বাজারে সুর্যমুখী ফুলের তেলের দাম বাড়বেই। কারণ অধিকাংশটাই আসে ইউক্রেন এবং রাশিয়া থেকে। সাপ্লাই চেন বিঘ্নিত হবে যুদ্ধের ফলে। আমরা প্রায় ২ লক্ষ মেট্রিক টন সানফ্লাওয়ার তেল প্রতি মাসে আমদানি করি।

প্রসঙ্গত, করোনার কোপে গত দুবছরে এমনিতেই বিশ্ব অর্থনীতির কোমর ভেঙে গিয়েছে। তার উপরে এবারে তৃতীয় বিশ্বযুদ্ধের পরিস্থিতি মুদ্রাস্ফীতির বাজারে মরার উপর খাঁড়ার ঘা ফেলবে বলে মনে করছে ভারতীয় বাজার। রিফাইনড সানফ্লাওয়ার তেলে খুচরো বাজারে প্রায় ১৬২ টাকা লিটার। যা আগে ছিল ১৪৫ টাকার মতো। কেন্দ্রীয় উপভোক্তা বিষয়ক মন্ত্রকের মূল্যনিয়ন্ত্রণ সেলের তথ্য অনুযায়ী, সাপ্লাই চেন বিঘ্নিত হলে এমনই মূল্যবৃদ্ধি হবে।

আরও পড়ুন Explained: রাশিয়া না ইউক্রেন, সামরিক শক্তিতে কে এগিয়ে?

চতুর্বেদীর মতে, এই পরিস্থিতিতে আর্জেন্টিনা বিকল্প হতে পারে ভারতীয় ব্যবসায়ীদের জন্য। কিন্তু ভারতের বাজারে চাহিদা মেটানোর জন্য যে মান প্রয়োজন তা লাতিন আমেরিকার এই দেশের পক্ষে সম্ভব নয়। যুদ্ধের ফলে আরও একটি নিত্যপ্রয়োজনীয় সামগ্রীতে ধাক্কা আসতে চলেছে। সেটি হল সয়াবিন। ভারতজুড়ে পাইকারি বাজারে সয়াবিনের দাম বাড়ছে। লাতুরের পাইকারি বাজারে ৬,২০০ টাকা কুইন্টাল দরে বিক্রি হওয়া সয়াবিন এখন সাত হাজার টাকা ছাড়িয়েছে। যাতে সিঁদুরে মেঘ দেখছেন ব্যবসায়ীরা।

Stay updated with the latest news headlines and all the latest Business news download Indian Express Bengali App.

Web Title: Edible oil to get costlier amid russias invasion of ukraine