বড় খবর

অস্তিত্ব এবং উপলব্ধির অন্তহীন চক্রব্যূহ ‘সামসারা’

কার্যকারিতার নিয়ম অনুসারে আবর্তিত ‘সামসারা’ আসলে জীবন উপলদ্ধির চক্র। আর এই উপলব্ধির যাত্রাই পরিচালকদ্বয়ের ছবিতে প্রস্ফুটিত।

samsara
সমসারা ছবিতে রাহুল, ঋত্বিক ও ইন্দ্রজিৎ। অলংকরণ- অভিজিৎ বিশ্বাস

ছবি: সামসারা

পরিচালনা: সুদেষ্ণা রায় ও অভিজিৎ গুহ

অভিনয়ে: রাহুল, ঋত্বিক, ইন্দ্রজিৎ, সুদীপ্তা, দেবলীনা, তনুশ্রী, সমদর্শী

রেটিং: ৩.৮/৫

‘সামসারা’, সংস্কৃত এই ধারণা জোরেই বাঁধা হয়েছে সুদেষ্ণা রায় ও অভিজিৎ গুহর ছবির চিত্রনাট্য। বৌদ্ধদের জীবনচক্রকে এই নামে চিহ্নিত করা হয়। মৃত্যুর পরে পুনর্জন্ম নয় পুনরায় জন্মের আত্মোপলব্ধি। কার্যকারিতার নিয়ম অনুসারে আবর্তিত ‘সামসারা’ আসলে জীবন উপলদ্ধির চক্র। আর বেদ পরবর্তী সাহিত্যকালে কর্মচক্রের ধারণার উপলব্ধির যাত্রাই পরিচালকদ্বয়ের ছবিতে প্রস্ফুটিত।

তিন বন্ধু বিক্রম (ইন্দ্রজিৎ), অতনু (ঋত্বিক) ও চন্দন (রাহুল)। বিক্রমের উদ্যোগেই প্রায় বছর আঠারো পরে দেখা হয় তাদের। প্রত্যেকে জীবনে এতদিনে অনেক জল বয়ে গিয়েছে। প্রত্যেকের অজানা অতীত রয়েছে। মহেন্দ্র দত্ত ইনস্টিটিউশনের ’৯৫ ব্যাচের বিক্রমের ব্যবসা রয়েছে, অতনু একজন জনপ্রিয় লেখক। আর চন্দনের তিনটি সোনার গয়নার শোরুম আছে। আস্তে আস্তে অতনু দেখা করার উদ্দেশ্যে জানায়। গল্প এগোতে থাকলে সমান্তরাল তিনটি পথের কেন্দ্রবিন্দু এক হয়ে দাঁড়ায়। অতীতেই লুকিয়ে ছিল ভবিষ্যতের বিপদ।

rahul sudipta
ছবির একটি দৃশ্যে রাহুল ও সুদীপ্তা।

ছকভাঙা পথেই এগিয়েছেন পরিচালকদ্বয়। থ্রিলারের রহস্য ও রোমাঞ্চ বজায় থেকেছে ছবির শেষপর্যন্ত। দর্শকের মধ্যে উত্তেজনা ধরে রেখে থ্রিলার তৈরির উদ্দেশ্য সফল তাদের। এই ছবির সবথেকে বড় ও শক্ত পিলার চিত্রনাট্য। প্রথমার্ধে চরিত্রদের সঙ্গে পরিচয় পর্ব, গল্পের চলন এবং সঙ্গে সাসপেন্স বজায় রাখা সবটাই মানানসই। ছবিতে ‘পরপার’ দর্শককে ছবির যাত্রাপথের ক্লু বলা চলে। অযথা গানের ভিড়ে থ্রিলারের মেজাজ নষ্ট করেননি সুদেষ্ণা-অভিজিৎ। যোগ্য সঙ্গত দিয়েছে ছবির আবহ, উত্তেজনা ধরে রেখেছে ছবির কনক্লুসন পর্যন্ত। রানা দাশগুপ্তের ক্যামেরায় সামসারা-র দুনিয়ায় দর্শক সহজেই প্রবেশ করেছে।

আরও পড়ুন, শিশু অপহরণ এবং খুন, মহিলা সিরিয়াল কিলার সিরিজের নেপথ্যে সুমন

এতকিছু ভালর মধ্যে চোখের বালি আন্ডারলাইন করে দেওয়া সিম্বলিজম। বাইক অভিযানের দৃশ্যে বার বার করে দ্বিতীয় ফ্রেমে নম্বর প্লেটে ফোকাস করার প্রয়োজন অনর্থক মনে হয়েছে। দাঙ্গার সময়ে আগুনের দৃশ্যের ভয়াবহতা খারাপ গ্রাফিক্সের বদলে ঋত্বিকের এক্সপ্রেশনেও দেখানো সম্ভব ছিল। ঋত্বিক, সুদীপ্তা, তনুশ্রী, অম্বরিশের অভিনয় ভাল। সমদর্শীও মানানসই। তবে রাহুল, ইন্দ্রজিতের ওভার অ্যাক্টিং মূহুর্তে মনসংযোগ কেড়ে নেওয়ার পক্ষে যথেষ্ট। চিত্রনাট্যের জোর থাকলেও কিছু কিছু জায়গায় ফাঁক থেকেই গিয়েছে। অতীতের পাতায় চরিত্রদের অনেক কার্যের কারণ আরও স্পষ্ট হতে পারত।

sudeshna avijit
সুদেষ্ণা রায় ও অভিজিৎ গুহ।

আরও পড়ুন, খোঁজ মিলল ‘অভিযাত্রিক’-এর অপুর

অম্বরিশের সংলাপে হাস্যরসের উদ্রেক বোকা বোকা, ইন্দ্রজিতের শালা উপস্থিতির চরিত্রদের ভিড় বাড়িয়েছে। প্রথমার্থ মন্থর না হলে ছবিতে আর একটু গতিশীলতা আসত বৈকি। তবে বাংলা থ্রিলারের মানের নিরিখে ‘সামসারা’ প্রশংসার যোগ্য।

Get the latest Bengali news and Entertainment news here. You can also read all the Entertainment news by following us on Twitter, Facebook and Telegram.

Web Title: Bengali thriller samsara review

Next Story
একফ্রেমে স্বস্তিকা-অর্পিতাarpita swastika
The moderation of comments is automated and not cleared manually by bengali.indianexpress.com