scorecardresearch

‘Boycott Bollywood ট্রেন্ড বন্ধ হোক’, কড়া হুঙ্কার সিনেকর্মীদের! সরকারে দ্বারস্থ বলিপাড়া

‘পাঠান’ বিতর্কের মাঝেই সরকারকে আর্জি সিনেকর্মীদের।

‘Boycott Bollywood ট্রেন্ড বন্ধ হোক’, কড়া হুঙ্কার সিনেকর্মীদের! সরকারে দ্বারস্থ বলিপাড়া
বয়কট বলিউড ট্রেন্ড নিয়ে সরব ফেডারেশন অফ ওয়েস্টার্ন ইন্ডিয়া সিনে এমপ্লয়িজ

২০২০ সাল। সুশান্ত সিং রাজপুতের মৃত্যু। গোটা দেশকে নাড়িয়ে দিল। তারপর থেকেই ‘বয়কট বলিউড’ ট্রেন্ডের প্রবণতা আরও বেশি করে শুরু। একের পর এক সুপারস্টার এই ট্রেন্ডের শিকার। প্রথম সারির তারকাদের ছবি মুক্তি মানেই নেটপাড়ার একাংশের হুঙ্কার ‘বয়কট করা হোক এই ছবি’! ‘পাঠান’ তার জ্বলন্ত উদাহরণ। কম রাজনৈতিক চাপানোতর হয়নি এই সিনেমা নিয়ে। দক্ষিণপন্থী সংগঠনগুলোর তরফে হুমকিও এসেছে ‘পাঠান’ প্রদর্শিত হলে জ্বালিয়ে দেওয়া হবে সিনেমাহল। ‘বয়কট বলিউড’ ট্রেন্ড এতটাই উগ্র আকার ধারণ করেছে যে, অতিষ্ট হয়ে এবার শেষমেশ সরকারের দ্বারস্থ হল বি টাউনের সিনেকর্মীরা।

সম্প্রতি মুম্বইতে যোগী আদিত্যনাথ বলিউড তারকাদের সঙ্গে বৈঠকে বসেন। সেখানে সুনীল শেট্টি সরাসরি এপ্রসঙ্গ উত্থাপন করেন। অভিনেতা বলেন, “এই অ্যান্টি-বলিউড মানসিকতার পরিবর্তন হওয়া দরকার। আপনারাই পারেন তা বন্ধ করতে। এবার ফেডারেশন অফ ওয়েস্টার্ন ইন্ডিয়া সিনে এমপ্লয়িজ-এর তরফে এক বিবৃতি জারি করে ‘Boycott Bollywood’ ট্রেন্ড বন্ধ করার আর্জি জানাল সরকারে কাছে।

FWICE তরফে বিবৃতিতে বলা হয়েছে, “একটা সিনেমা বানাতে শুধু পরিচালক বা সিনেমার মুখ্য চরিত্ররাই পরিশ্রম করেন না, তার সঙ্গে যুক্ত থাকে আরও লক্ষ লক্ষ কর্মীদের হাড়ভাঙা খাটুনি। তাই একটা ছবিকে বয়কট করা মানে এই মানুষগুলোর জীবনযাপন সংশয়ে ফেলা হয়। তাই ফেডারেশনের তরফে আমরা প্রতিবাদ জানাচ্ছি যাতে এই বয়কট বলিউড ট্রেন্ড-এর বিরুদ্ধে কড়া পদক্ষেপ করা হয় এবং সিনেমাহলে ভাঙচুর করা, পোস্টার ছেঁড়া, পরিচালকদের হুমকি দেওয়ার মতো গুন্ডামিগুলো বন্ধ হয়।”

[আরও পড়ুন: বাইশে ফ্লপের বাহার, মন্দা বাজার! তেইশের শুরুতেই ‘ধম্ম-কম্মে’ মন বলিউড তারকাদের]

“ইন্ডাস্ট্রির কলাকুশলী, কর্মী তথা বহু শিল্পীদের রোজকার পেটের ভাত জোগায় এই কাজ। তাদের বাঁচিয়ে রাখে। কত আশা, প্যাশন নিয়ে একটা সিনেমা তৈরি করা হয়। সাফল্যের স্বপ্ন দেখে কত মানুষ। তবে এই বয়কট ট্রেন্ড সমস্ত পরিশ্রম, আশা-ভরসাকে ধুলিস্যাৎ করে দেয়। অনেকেই ঘৃণা ছড়াতে পছন্দ করে। আর তাতে প্রভাবিত হন অন্যরা। আর তার ফলস্বরূপ মানুষ সিনেমাহলে ভাঙচুর চালায়। প্রকাশ্যেই হুমকি দেয় পরিচালক, অভিনেতা-অভিনেত্রীদের। সোশ্যাল মিডিয়ায় কুরুচিকর কথা বলে। যদি সিনেমার কন্টেন্ট নিয়ে কারও আপত্তি থাকে, তাহলে সরাসরি সেন্ট্রাল বোর্ড অফ ফিল্ম সার্টিফিকেশনকে জানান ভাঙচুর না করে”, মন্তব্য FWICE-এর।

“বলিউড লক্ষ লক্ষ মানুষের উপার্জনের উৎস, মাথা উঁচু করে বাঁচতে শেখায়। সরকারের কাছে আর্জি জানাই এই বয়কট ট্রেন্ডের বিরুদ্ধে কড়া পদক্ষেপ করুন”, আর্জি ফেডারেশনের। বর্তমানে শাহরুখ খান, দীপিকা পাড়ুকোন অভিনীত ‘পাঠান’ও এই বয়কট ট্রেন্ডের শিকার।

Stay updated with the latest news headlines and all the latest Entertainment news download Indian Express Bengali App.

Web Title: Fwice issues statement against boycott bollywood trend