scorecardresearch

বড় খবর

ঘোর দুঃসংবাদ! ‘ব্রেথলেস’ বিশ্ব সিনেজগৎ, প্রয়াত জঁ লুক গদার

ঘোর দুঃসংবাদে ছারখার বিশ্ব বিনোদুনিয়া।

ঘোর দুঃসংবাদ! ‘ব্রেথলেস’ বিশ্ব সিনেজগৎ, প্রয়াত জঁ লুক গদার
প্রয়াত জঁ লুক গদার

বিশ্বের সিনেমহলে ঘোরতর দুঃসংবাদ। চলে গেলেন নবকল্লোল সিনেমার পথপ্রদর্শক জঁ লুক গদার (Jean-Luc Godard Death)। যে ফরাসি পরিচালকের কাছ থেকে বিশ্বের সিনেপ্রেমীরা উপহার পেয়েছিলেন ‘ব্রেথলেস’, ‘কন্টেম্পট’, দ্য লিট সোলজার, ম্যাস্কুলিন ফেমিনিন-এর মতো ছবি। যে সিনেমা দর্শকদের সময়ের থেকে এগিয়ে ভাবনা ভাবতে অনুপ্রেরণা জোগাত। ৯১ বছর বয়সে সেই পরিচালকই ইহলোকের মায়া ত্যাগ করে চলে গেলেন পরলোকে।

ফ্রান্সের নিউ ওয়েভ বা নব্য ধারার সিনেমার সূচনা এই জঁ লুক গদারের হাত ধরেই। ষাটের দশকে গদারই সিনে নির্মাতাদের শিখিয়েছিলেন সিনেমার নতুন পরিভাষা। সে হ্যান্ডহেল্ড ক্যামেরা অ্যাঙ্গেলই হোক কিংবা জাম্প কাট অথবা চরম বাস্তববাদী ক্ষুরধার সংলাপে টান-টান চিত্রনাট্য। যে অনুপ্রেরণা পরবর্তীতে বিভিন্ন সময়ে কাজে লাগিয়েছেন বাংলার মৃণাল সেন, কোয়ান্টিন টারান্টিনো, মার্টিন স্করসেসি, ব্রায়ান ডে পালমোর মতো পরিচালকেরা।

বিশ্ব সিনেমায় এক নতুন যুগের সূচনা করেছিলেন জঁ লুক গদার। চিরাচরিত সিনেভাবনা ধাক্কা খেয়েছিল এই কিংবদন্তীর কাজে। এমনকী ফ্রেঞ্চ নি ওয়েভে নীরিক্ষামূলক ছবি দেখে তৎকালীন অনেকেই ভ্রু কুঁচকেছিলেন। পরে যদিও গদার-সৃষ্ট সেসব সিনেমাই সিনে-ব্যাকরণের দৃষ্টান্ত হয়ে ওঠে। আজ কিংবদন্তী পরিচালক গদারের প্রয়াণে যে বিশ্ব চলচ্চিত্র জগৎ আরও একবার অভিভাবক-হীন হল, তা বলাই বাহুল্য।

[আরও পড়ুন: পণপ্রথাকে সায় দিচ্ছেন! ভয়ঙ্কর বিতর্কে অক্ষয়ের বিজ্ঞাপন, নিন্দার মুখে কেন্দ্রীয় মন্ত্রীও]

মঙ্গলবার গোদারের পরিবারের তরফেই তাঁর মৃত্যুর খবর নিশ্চিত করা হয়। বার্ধক্যজনিত সমস্যাতেই শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন ‘ব্রেথলেস’ পরিচালক। তাঁর প্রয়াণের খবর প্রকাশ্যে আসতেই শোকস্তব্ধ সিনেমহল।

ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস বাংলা এখন টেলিগ্রামে, পড়তে থাকুন

Stay updated with the latest news headlines and all the latest Entertainment news download Indian Express Bengali App.

Web Title: Jean luc godard godfather of french new wave cinema dies