scorecardresearch

বড় খবর

‘অ্যায় মেরে ওয়াতন কে লোগোঁ..’ লতার গান শুনে কেঁদে ফেলেছিলেন নেহেরু

দিল্লির রামলীলা ময়দানে ভরা সমাবেশেই কেঁদে ফেলেছিলেন তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী জওহরলাল নেহেরু।

‘অ্যায় মেরে ওয়াতন কে লোগোঁ..’ লতার গান শুনে কেঁদে ফেলেছিলেন নেহেরু
লতা মঙ্গেশকর, জওহরলাল নেহেরু

১৫ আগস্ট, স্বাধীনতা দিবসে হোক কিংবা ২৬ জানুয়ারি সাধারণতন্ত্র দিবস, আজও দেশব্যাপী পাড়া, ক্লাবঘরে একটাই গান তালিকার শীর্ষে থাকে- ‘অ্যায় মেরে ওয়াতন কে লোগোঁ..’ (Ae Mere Watan ke Logon)। যে গানে কণ্ঠ দিয়েছেন লতা মঙ্গেশকর (Lata Mangeshkar)। দেশাত্মবোধক ওই গান শুনলে আজও গায়ে কাঁটা দেয় না, এমন মানুষ বোধহয় খুব কমই রয়েছেন! লতার কণ্ঠে সেই গান শুনে একবার ভরা সমাবেশেই কেঁদে ফেলেছিলেন তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী জওহরলাল নেহেরু (Jawaharlal Nehru)।

লতার গাওয়া ‘অ্যায় মেরে ওয়াতন কে লোগোঁ..’ আজীবন যে শ্রোতাদের স্মৃতিতে গেঁথে থাকবে, তা বোধহয় আর আলাদা করে বলার প্রয়োজন পড়ে না। দীর্ঘ কয়েক দশকেও সেই গানের জনপ্রিয়তা বিন্দুমাত্র কমেনি। ১৯৬২ সালে তখন সীমান্তে ইন্দো-চিন যুদ্ধ চলছে। একের পর এক ভারতীয় জওয়ান দেশমাতৃকার রক্ষায় শহীদ হয়ে চলেছেন। গোটা দেশের চোখে জল। ঠিক সেই সময়েই ভারত-চীন যুদ্ধের প্রেক্ষাপটে শহীদ সৈনিকদের শ্রদ্ধা জানিয়ে ‘অ্যায় মেরে ওয়াতন কে লোগোঁ..’ গানটি লিখে ফেলেন কবি প্রতাপ। কম্পোজ করেছিলেন সি রামাচন্দ্রণ। সেই দেশাত্মবোধক গান গাওয়ার প্রস্তাব গেল কোকিলকণ্ঠী লতা মঙ্গেশকরের কাছে। গাইলেনও। তারপরের ঘটনাটা ভারতীয় সংগীত দুনিয়ার ইতিহাসের পাতায় স্বর্ণাক্ষরে লেখা থাকবে। যার সাক্ষী এই প্রজন্মও।

২০১৪ সালে এক সাক্ষাৎকারে লতা মঙ্গেশকর জানিয়েছিলেন, তাঁর গলায় ‘অ্যায় মেরে ওয়াতন কে লোগোঁ..’ গানটি শুনে নেহেরুজি কীভাবে আবেগপ্রবণ হয়ে পড়েছিলেন। ৫১তম স্বাধীনতা দিবস পূর্তি উপলক্ষে এক অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে আমন্ত্রিত ছিলেন লতা। সেখানেই ১৯৬৩ সালে, ২৭ জানুয়ারি দিল্লির রামলীলা ময়দানে ঠিক কী ঘটেছিল? ফাঁস করেন সেকথা।

[আরও পড়ুন: চিরবিদায় সুরসম্রাজ্ঞী…! কাঁদছে বলিউড, শোকজ্ঞাপন রহমান-সোনু, অক্ষয়-প্রিয়াঙ্কাদের]

ষাটের দশক। দেশের প্রধানমন্ত্রী পদে জওহরলাল নেহেরু। সাধারণতন্ত্র দিবসের পরদিন রাজধানীর এক অনুষ্ঠানে গান গাওয়ার প্রস্তাব আসে লতা মঙ্গেশকরের কাছে। রামলীলা ময়দানে আয়োজিত সেই অনুষ্ঠানে উপস্থিত থাকবেন নেহেরুও। একেবারে শেষলগ্নে সেই প্রস্তাব আসায় লতা রিহার্সাল করতে পারেননি। যাওয়ার আগে মাত্র একবার গানটি গেয়েছিলেন।

অনুষ্ঠানে গান শুরু করলেন লতা। কবি প্রতাপ তাঁকে ট্র্যাক ধরে গাইতে বললেন হঠাৎ! কিংবদন্তী গায়িকা ভাবলেন, তিনি হয়তো কিছু ভুল করে ফেলেছেন! তাই, খানিক নার্ভাস হয়ে যান। কিন্তু গান শেষ হতেই যখন মঞ্চ থেকে নেমে পণ্ডিত জওহরলাল নেহেরুর সঙ্গে দেখা করতে গেলেন, লতা দেখলেন, উনি কাঁদছেন। নেহেরুজি বললেন, “লতা, তুমি আমার চোখে জল এনে দিলে…।”

ভারতরত্ন গায়িকা জানিয়েছিলেন, তিনি ভাবতেও পারেননি যে, তাঁর গাওয়া ‘অ্যায় মেরে ওয়াতন কে লোগোঁ..’ গানটি দেশের গণ্ডী পেরিয়ে বিদেশের মাটিতেও জনপ্রিয়তা পাবে। স্মৃতিচারণা করে সেই সময়ে বলেছিলেন, আমি বিদেশে একশোটির ওপর শো করেছি। যখনই কোথাও গাইতে গিয়েছি, “শ্রোতারা আমাকে ‘অ্যায় মেরে ওয়াতন কে লোগোঁ..’ গানটি গাওয়ার অনুরোধ পাঠিয়েছেন।”

ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস বাংলা এখন টেলিগ্রামে, পড়তে থাকুন

Stay updated with the latest news headlines and all the latest Entertainment news download Indian Express Bengali App.

Web Title: Lata mangeshkars ae mere watan ke logon moved pm jawaharlal nehru